ঢাকা ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪
Khaborer Kagoj

বেঙ্গালুরুর ৪৪টি স্কুলে বোমা হামলার হুমকি

প্রকাশ: ০১ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৮:২২ পিএম
বেঙ্গালুরুর ৪৪টি স্কুলে বোমা হামলার হুমকি
ছিবি : সংগৃহীত

ভারতের বেঙ্গালুরু রাজ্যের ৪৪টি স্কুলে বোমা হামলার হুমকি দেওয়া হয়েছে। এক ই-মেইলে বলা হয়, স্কুল চত্বরে বিস্ফোরক রাখা আছে। শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) সকালে স্থানীয় পুলিশের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

হুমকির মেইল পেয়েই সঙ্গে সঙ্গে তা পুলিশকে জানায় স্কুল কৃর্তৃপক্ষ। এরপরই ‘সন্দেহজনক বস্তুর’ খোঁজে স্কুলগুলোতে তল্লাশি চালাতে শুরু করে পুলিশ। তবে ওই ৪৪টি স্কুলে এখন পর্যন্ত কোনো ধরনের বিস্ফোরক পাওয়া যায়নি। 

হুমকির পর চারদিকে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এরই মধ্যে বেঙ্গালুরু পুলিশ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে। সব স্কুল থেকে ছাত্রছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং শিক্ষাকর্মীদের সরিয়ে দিয়েছে। তবে কোথা থেকে কে বা কারা এই ধরনের হুমকি দিয়েছে, তা এখনো স্পষ্ট নয়। প্রাথমিকভাবে পুলিশের অনুমান, কেউ মজা করে এই হুমকি ই-মেইল করেছে। বোমা নিষ্ক্রিয়কারী বাহিনীকে নিয়ে পুলিশ স্কুল চত্বরে চিরুনি তল্লাশি চালাচ্ছে। এখনো কোনো স্কুলে বোমা পাওয়া না গেলেও হুমকির বিষয়টি একেবারে উড়িয়ে দিচ্ছে না পুলিশ।

কর্ণাটকের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জি পারমেশ্বর বলেছেন, ‘আমরা ই-মেলের উৎসটি যাচাই করছি। আমরা এটিকে গুরুত্বসহকারে নিচ্ছি। আমি এটিকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পরীক্ষা করার জন্য পুলিশকে জানিয়েছি।’ তিনি এক্স-এ লিখেছেন, বেঙ্গালুরু শহরের কিছু স্কুল আজ সকালে বোমার হুমকি ইঙ্গিত করে ইমেল পেয়েছে।

এমএ/

আফগানিস্তানে ভারী তুষারপাতে ১৫ জন নিহত

প্রকাশ: ০২ মার্চ ২০২৪, ০৩:৩৫ পিএম
আফগানিস্তানে ভারী তুষারপাতে ১৫ জন নিহত
ছবি: সংগৃহীত

আফগানিস্তানের বিভিন্ন প্রদেশে গত তিন দিনে ভারী তুষারপাতে ১৫ জন নিহত এবং ৩০ জন আহত হয়েছেন। 

শনিবার (২ মার্চ) ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি আফগান সংবাদ মাধ্যম টোলো নিউজের বরাতে এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানায়।

ভারী এ তুষারপাতে বালখ ও ফারিয়াব প্রদেশে গবাদিপশুসহ প্রায় ১০ হাজার প্রাণীরও মৃত্যুর হয়েছে। 

দেশটির গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মোহাম্মদ আশরাফ হকসেনাস জানান, তীব্র তুষারপাতে সালাং গিরিপথসহ ঘোর, বাদঘিস, গজনি, হেরাত ও বামিয়ানের মতো বিভিন্ন প্রদেশের রাস্তা বন্ধ হয়ে গেছে।

ফারিয়াবের প্রাদেশিক গভর্নরের মুখপাত্র ইসমাতুল্লাহ মুরাদি জানান, ভারী তুষারপাতের ফলে বেশির ভাগ জেলায় রাস্তা বন্ধ হয়ে গেছে, এতে প্রত্যন্ত অঞ্চলের বাসিন্দারা আটকা পড়েছেন। 

স্থানীয় বাসিন্দা আমানুল্লাহ ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য জরুরি সরকারি সহায়তার ওপর জোর দিয়েছেন। 

চলমান এই সংকট নিরসনে ও গবাদিপশুর মালিকদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আফগানিস্তানের বিভিন্ন মন্ত্রীর সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠনের ঘোষণা দিয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। 

বলখ, জাওজান, বাদঘিস, ফারিয়াব ও হেরাত প্রদেশে ক্ষতিগ্রস্ত গবাদিপশুর মালিকদের সহায়তার জন্য ৫০ মিলিয়ন আফগান অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

আফগান রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মুখপাত্র এরফানুল্লাহ শারাফজোই বলেন, শীতকালীন পরিষেবাকর্মীরা এরই মধ্যে বাদঘিস, ঘোর, ফারাহ, কান্দাহার, হেলমান্দ, জাওজান ও নুরিস্তান প্রদেশে কাজ করছে। সূত্র: এনডিটিভি 

ইসরাত চৈতি/অমিয়/

ইরানে পার্লামেন্ট নির্বাচনে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন

প্রকাশ: ০২ মার্চ ২০২৪, ০৯:১৮ এএম
ইরানে পার্লামেন্ট নির্বাচনে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন
ছবি: সংগৃহীত

ইরানে গতকাল শুক্রবার অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে পার্লামেন্ট নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। দেশটিতে ২৯০টি আসনের জন্য ভোটার ছিলেন ৬ কোটি ১২ লাখ। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামিনি তেহরানের একটি কেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন। সবাইকে তিনি ভোটদানের আহ্বানও জানিয়েছেন।   

এ নির্বাচনে শুধু পার্লামেন্ট সদস্যই নন- ইরানি বিশেষজ্ঞ পরিষদের ৪৪ জন সদস্যকেও বেছে নিতে ভোট দিয়েছেন ইরানিরা। এটি পার্লামেন্ট থেকে আলাদা পৃথক একটি সংস্থা। যারা ইরানের সর্বোচ্চ নেতাকে নিয়োগ করে থাকে। 

তবে দেশটিতে সাম্প্রতিককালে পার্লামেন্ট নির্বাচনে ভোট দেওয়ায় আগ্রহ হারাচ্ছে সাধারণ ইরানিরা। ১৯৭৯ সালে দেশটিতে ইসলামি বিপ্লবের পর সবশেষ ২০২০ সালের পার্লামেন্ট নির্বাচনে সর্বনিম্ন ভোট পড়ে। 

এ নির্বাচনেও বেশ কয়েকজন বিরোধী মতাবলম্বী রাজনীতিবিদ নির্বাচন বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। 

দেশটির রাজনৈতিক শিবিরে এখন দুইটি উপদলের আধিপত্য রয়েছে। এর একটি প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির অতি রক্ষণশীল স্টেডফাস্টনেস পার্টি ও মোহাম্মদ বাঘের কালিবাফের অপেক্ষাকৃত উদারপন্থি প্রোগ্রেস অ্যান্ড জাস্টিস পপুলেশন পার্টি। 

তবে দুই পার্টির নেতৃস্থানীয় ব্যক্তির সঙ্গে সর্বোচ্চ নেতার সম্পর্ক বেশ উষ্ণ। ফলে যেই নির্বাচনে জিতুক না কেন, আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে ইরানের অবস্থান পরিবর্তনের খুব একটা সুযোগ নেই।  

সাধারণ জনগণ মনে করছে, দেশটিতে পার্লামেন্টের গুরুত্ব কমে গেছে। অনেক ক্ষেত্রেই সিদ্ধান্ত এককভাবে সর্বোচ্চ নেতা ও প্রেসিডেন্ট গ্রহণ করছেন। ফলে অকার্যকর সংসদে জনগণের আর আগ্রহ নেই। 

তবে এবারের নির্বাচনের ফলাফল দেশটির শাসকগোষ্ঠীর গ্রহণযোগ্যতার জন্য পরীক্ষা হতে যাচ্ছে। কারণ ২০২২ সালে নৈতিকতা পুলিশ হেফাজতে কুর্দি নারী মাইশা আমিনির মৃত্যুর ঘটনায় দেশব্যাপী বিক্ষোভ ও ক্র্যাকডাউনের পর দেশটিতে এটিই প্রথম নির্বাচন। 

নির্বাচনে ভোটগ্রহণের আগে ইরান ইন্টারন্যাশনালের প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, মাইশা ইস্যুতে হওয়া বিক্ষোভ যেভাবে ইরানি কর্তৃপক্ষ দমন করেছে- তা দেশটির তরুণ প্রজন্ম পছন্দ করেনি। ফলে ভোটের ফলাফলে এর প্রভাব দেখা যাবে। বা তরুণ প্রজন্ম ভোটের প্রতি আস্থা হারানোর ছাপও দেখা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে হয়তো ২০২০ সালের থেকেও এবার আরও ভোট কম পড়বে।  

এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা ও উচ্চ মূল্যস্ফীতি ইরানিদের গুরুতর অর্থনৈতিক সংকটে ফেলেছে। এই ইস্যুটিও নির্বাচনে বড় প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।  সূত্র : আল-জাজিরা/ইরান ইন্টারন্যাশনাল 

বিশ্বে একশ কোটিরও বেশি মানুষ স্থূলকায়

প্রকাশ: ০২ মার্চ ২০২৪, ০৯:০০ এএম
বিশ্বে একশ কোটিরও বেশি মানুষ স্থূলকায়

বিশ্বের একশ কোটিরও বেশি মানুষ এখন স্থূলকায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নতুন তথ্য বলছে এ কথা। নানা ধরনের গুরুতর স্বাস্থ্যগত সমস্যা দেখা দেয় স্থূলকায় মানুষের মধ্যে। এ জন্য বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ ক্রমশ বাড়ছে গোটা বিশ্বেই।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অভ্যন্তরীণ গবেষকরা দেখেছেন, স্থূলকায়তা এখন এমন একটি সাধারণ বিষয়ে পরিণত হয়েছে যে, বিশ্বের অনেক রাষ্ট্রে অল্প ওজনের মানুষের চেয়ে স্থূলকায় মানুষ দেখা যাচ্ছে বেশি। গত বৃহস্পতিবার নিজেদের তথ্য-উপাত্ত চিকিৎসা বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী ল্যানসেটে প্রকাশ করেছেন।

গবেষণা প্রতিবেদনের জ্যেষ্ঠ গবেষক ও ইমপেরিয়াল কলেজ লন্ডনের মাজিদ এজাতি বলেছেন, প্রচুরসংখ্যক মানুষ এখন স্থূলকায়তায় ভুগছেন। তিনি আরও জানান, সম্পদশালী দেশগুলোতে স্থূলকায়তার হার আগের মতো থাকলেও বিশ্বের অন্যান্য স্থানে এটি দ্রুত বাড়ছে।

এ প্রসঙ্গে ডব্লিউএইচওর ফ্রান্সেসতো ব্রাঙ্কা বলেন, অতীতে স্থূলকায়তা ধনীদের সমস্যা বলে মনে করতাম। কিন্তু এখন এটি বৈশ্বিক একটি সমস্যা।’ গবেষণায় বলা হয়েছে, ১৯৯০ থেকে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে স্থূলকায়তার হার দ্বিগুণেরও বেশি হয়েছে। আর ৫ থেকে ১৯ বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে বেড়েছে চারগুণ। সূত্র: রয়টার্স

ইসরায়েলের কাণ্ডে নিন্দার ঝড়

প্রকাশ: ০২ মার্চ ২০২৪, ০৮:৫৩ এএম
ইসরায়েলের কাণ্ডে নিন্দার ঝড়
ছবি: সংগৃহীত

গাজায় খাদ্য সহায়তা সংগ্রহের জন্য জড়ো হওয়া মানুষের ওপর গুলি চালিয়ে ১০৪ জনকে হত্যা করেছে ইসরায়েলি বাহিনী। এ নিয়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে গোটা বিশ্বে। এমনকি ইসরায়েলি গণমাধ্যমেও প্রকাশিত হয়েছে এ খবর। 

ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রপ্রধান জোসেফ বরেল এ ঘটনাকে সম্পূর্ণরূপে অগ্রহণযোগ্য বলে অভিহিত করেছেন। ফ্রান্সের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, খাবার পাওয়ার আশায় জড়ো হওয়া বেসামরিকদের ওপর ইসরায়েলি সেনাদের গুলি চালানোর বিষয়টি অযৌক্তিক। তুরস্ক এ ঘটনার পর ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ‘মানবতার বিরুদ্ধে আরও একটি অপরাধ’ করার অভিযোগ তুলেছে। দেশটি গাজায় দুর্ভিক্ষ সৃষ্টির চেষ্টা করছে বলেও জানিয়েছে।

অন্যদিকে, ফিলিস্তিনি মানুষকে লক্ষ্য করে চালানো ‘গণহত্যার’ নিন্দা জানিয়েছে কলম্বিয়া। পাশাপাশি ইসরায়েলের কাছ থেকে তারা অস্ত্র কেনা থামিয়ে দিচ্ছে বলে উল্লেখ করেছে। গাজায় ‘তাৎক্ষণিকভাবে যুদ্ধবিরতির’ আহ্বান জানিয়েছে ইতালি। ফিলিস্তিনি জনগোষ্ঠীকে মর্মান্তিক মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষায় ইসরায়েলকে অনুরোধ জানিয়েছে তারা। নিন্দা জানিয়েছে কাতারও। তারা সবচেয়ে কড়া ভাষায় এই গণহত্যার প্রতিবাদ জানাচ্ছে বলে উল্লেখ করেছে। 

চীন জানিয়েছে, তারা ইসরায়েলের এ রকম কাণ্ডে ‘হতবাক’ হয়ে গেছে। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মাও নিঙ গতকাল শুক্রবার বলেন, ‘আমরা ভুক্তভোগীদের জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি এবং আহতদের সহানুভূতি জানাচ্ছি।’ অস্ট্রেলিয়া ইসরায়েলের এ কাণ্ডে ‘আতঙ্কিত’ অনুভব করেছে। সরাসরি ইসরায়েলি রাষ্ট্রদূতের কাছে নিজেদের এ অবস্থান স্পষ্ট করেছে তারা। জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বেসামরিকদের ওপর গুলি চালানোর ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন। তিনি এ সংঘাত থেকে সৃষ্ট মৃতের সংখ্যা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।    

যা বলছে ইসরায়েল

গাজায় গত বৃহস্পতিবার হয়ে যাওয়া এ কাণ্ড জায়গা করে নিয়েছে ইসরায়েলি গণমাধ্যমেও। তবে সেগুলোর বেশ কয়েকটিতে দাবি করা হয়েছে, ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী এর জন্য দায়ী নয়। 

ইসরায়েলি সংবাদপত্র মারিভে শিরোনাম করা হয়েছে, ‘সহায়তার লাইনে কয়েক ডজনকে হত্যা, হামাস বলছে ইসরায়েল দায়ী’। সংবাদমাধ্যম ইয়েডিওথ আহরোনথে একটি ছবি প্রকাশ করা হয়েছে। তারা শিরোনামে বলার চেষ্টা করেছে, খাবারের সারিতে হয়ে যাওয়া এ গণহত্যা ইসরায়েলের হাতে হয়নি। 

কিছু ইসরায়েলি সংবাদপত্রে প্রথম পাতায় জায়গা দেওয়া হয়নি খবরটিকে। ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী শুরু থেকে এ ঘটনার জন্য ভিড়, পায়ের নিচে চাপা পড়া ও গাজার ট্রাকচালকদের দায়ী করছে। পরে এক সামরিক কর্মকর্তা জানান, তাদের সৈন্যদের দিকে ফিলিস্তিনিরা এমনভাবে এগোতে শুরু করেছিল যে তারা ‘বিপন্ন’ হয়ে পড়েছিল। এ জন্য সেনারা গুলি চালায়।

ইসরায়েলিদের মতে, তাদের সামরিক বাহিনী গাজায় থাকলে এ রকম ঘটনা আরও দেখা যাবে। আল-জাজিরার খবর বলছে, অনেক সমালোচক বলেছেন– ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা আরও চোখে পড়বে। 

এদিকে, এসব ঘটনার মধ্যে ইসরায়েলের হামলা থেমে নেই। পূর্ব রাফায় ইসরায়েলি হামলায় মানুষ আহত হয়েছে বলে খবর এসেছে। এ ছাড়া খান ইউনিসে এক স্কুলের ওপর চালানো হামলায় তিনজন মারা গেছে। সেখানে আহত হয়েছে ১০ জন। সূত্র: রয়টার্স 

রাখাইনের রাজধানীতে শেল বিস্ফোরণ, নিহত ১২

প্রকাশ: ০১ মার্চ ২০২৪, ১০:৩৬ এএম
রাখাইনের রাজধানীতে শেল বিস্ফোরণ, নিহত ১২
ছবি: সংগৃহীত

মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যের রাজধানী সিত্তয়েতে আর্টিলারি শেল বিস্ফোরণের ঘটনায় অন্তত ১২ বেসামরিক লোক নিহত হয়েছেন এবং আহত হয়েছেন অন্তত ৪০ জন। মায়ানমারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম নারিনজারায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শহরের মায়োমা আউটডোর মার্কেটে গতকাল বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সকাল ৮টা ৩০ মিনিটে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। শেলটি শহরেরই একটি নৌঘাঁটি থেকে ছোড়া হয়েছিল, যেখানে জান্তা বাহিনীর ২০তম পদাতিক ব্যাটালিয়ন (আইবি) অবস্থান করছে। 

এদিকে মায়ানমারের সরকারি টেলিভিশনের বরাতে ভিয়েতনাম প্লাস নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে, দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় শান রাজ্যের মোমেইক ও মাবেইন শহরে গত বুধবার সামরিক আইন জারি করেছে জান্তা সরকার। জান্তানিয়ন্ত্রিত কাউন্সিল দাবি করেছে, রাজ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, আইনের শাসন বজায় রাখা এবং এই অঞ্চলের শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া অপর এক আদেশে এই দুই শহরের সেনা কমান্ডারদের প্রশাসনিক ও বিচারিক ক্ষমতা প্রদান করা হয়েছে। 

রাখাইনের সিত্তয়ের এক নারী নারিনজারাকে বলেন, ‘আর্টিলারি শেলটি সরাসরি একটি সবজির গুদামে আঘাত হানে। আমি শুনেছি গুদামের মালিক নিহত হয়েছেন। আমিও এ ঘটনায় আহত হয়েছিলাম। অনেকেই আহত হয়েছেন। তবে সঠিক সংখ্যা বলতে পারছি না।’ 

তবে সবজি গুদামে বিস্ফোরণের ঘটনাটি নারিনজারা নিউজ স্বাধীনভাবে যাচাই করতে পারেনি। 

স্থানীয় একজন সমাজকর্মী জানিয়েছেন, আহতদের স্থানীয় সিত্তয়ে জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অনুমান কমপক্ষে ১২ জন মারা গেছেন ও ৩০ জন আহত হয়েছেন। যদিও মায়ানমার নাউয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ ঘটনায় ৬ জন নিহত ও ৪০ জন আহত হয়েছেন।  

সিত্তয়ের বাসিন্দারা জানিয়েছেন, জান্তা বাহিনী অন্তত তিনবার রকেট আর্টিলারি দিয়ে হামলা চালিয়েছে। তবে পাল্টা কোনো হামলার বিষয়ে তারা নিশ্চিত কিছু জানে না। এ হামলা নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করেনি আরাকান আর্মি।

যদিও সিত্তয়ে শহরটি আরাকান আর্মির নিয়ন্ত্রণে নেই। ফলে জান্তা বাহিনী কী কারণে এই শহরে হামলা চালাল, তা স্পষ্ট নয়। তবে আরাকান আর্মির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, খুব শিগগিরই তারা সিত্তয়ে শহর দখলের মাধ্যমে রাখাইনকে জান্তামুক্ত করবে।
 
রাখাইনে গ্রেপ্তার শতাধিক ব্যক্তির হদিস নেই 

জান্তা বাহিনীর সদস্যরা গত ২০ ফেব্রুয়ারি ইয়াঙ্গুন থেকে রাখাইন রাজ্যে রওনা দেওয়া ৩টি বাস থেকে ১০০ জনের বেশি রাখাইনের বাসিন্দাকে গ্রেপ্তার করেছে। এখন পর্যন্ত তাদের কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। ভুক্তভোগীদের পরিবার এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এবং জান্তা বাহিনীর কাছে তাদের ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে। 

এদিকে মায়ানমারভিত্তিক আরেক সংবাদমাধ্যম ইরাবতি জানিয়েছে, সিত্তয়ের বিমানবন্দরে আসা যাত্রীদের মধ্যে যারা বয়সে সামরিক বাহিনীতে যোগদানের উপযুক্ত, তাদেরও আটক করা হচ্ছে। পরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের কাছের সেনাক্যাম্পে নেওয়া হচ্ছে। 

হাসপাতালেও হামলা চালিয়েছে জান্তা বাহিনী

আরাকান আর্মি মঙ্গলবার দেওয়া এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, সামরিক জান্তা রাখাইন রাজ্যের মিনবিয়া শহরের মিন এইচপু সিভিল হাসপাতালে বিমান হামলা চালিয়েছে। এ ঘটনায় বেসামরিক ব্যক্তি, চিকিৎসা কর্মীসহ যুদ্ধবন্দি জান্তা সেনারাও আহত হয়েছেন।  সূত্র: মায়ানমার নাউ/নারিনজারা