ঢাকা ১১ বৈশাখ ১৪৩১, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪
Khaborer Kagoj

মৎস্য অধিদপ্তরের প্রকল্পে চাকরি, পদ ৫০

প্রকাশ: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০১:৩৩ পিএম
মৎস্য অধিদপ্তরের প্রকল্পে চাকরি, পদ ৫০

মৎস্য অধিদপ্তর জনবল নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। অধিদপ্তরটি দ্য সাসটেইনেবল কোস্টাল অ্যান্ড মেরিন ফিশারিজ প্রজেক্টে (এসসিএমএফপি) একটি পদে ৫০ জনকে চুক্তিভিত্তিতে নিয়োগ দেবে। আগ্রহী প্রার্থীদের নির্ধারিত ফরম পূরণ করে আবেদনপত্র পাঠাতে হবে।

পদের নাম: অনবোর্ড অবজারভারস

পদসংখ্যা: ৫০

যোগ্যতা: স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয়/শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে মেরিন ফিশারিজ, ফিশারিজ অথবা মেরিন সায়েন্সে স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি থাকতে হবে। সমুদ্রে থাকার মতো শারীরিক যোগ্যতা থাকতে হবে।

বেতন: মাসিক বেতন ৩৫,০০০ টাকা 

আবেদন যেভাবে

আগ্রহী প্রার্থীদের মৎস্য অধিদপ্তরের http://fisheries.gov.bd/ এই ওয়েবসাইট থেকে চাকরির নির্ধারিত ফরম ডাউনলোড করতে হবে। নির্ধারিত ফরম পূরণ করে দুই কপি সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের সত্যায়িত ছবি, শিক্ষাগত যোগ্যতার সত্যায়িত সনদ, জাতীয় পরিচয়পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি ও প্রশিক্ষণে সদনের সত্যায়িত কপি সরাসরি বা ডাকযোগে পাঠাতে হবে। খামের ওপরে পদের নাম উল্লেখ করতে হবে।

আবেদনপত্র পাঠানোর ঠিকানা: প্রজেক্ট ডিরেক্টর, সাসটেইনেবল কোস্টাল অ্যান্ড মেরিন ফিশারিজ প্রজেক্ট (এসসিএমএফপি), মৎস্য অধিদপ্তর, মৎস্য ভবন, রমনা, ঢাকা-১০০০।

আবেদনের শেষ সময়: ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪।

কলি 

রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদে কাজের সুযোগ

প্রকাশ: ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০২:১৫ পিএম
রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদে কাজের সুযোগ

রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদে হস্তান্তরিত জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগে একাধিক পদে জনবল নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। এ প্রতিষ্ঠানে আট ক্যাটাগরির পদে ১১ থেকে ২০তম গ্রেডে ৫০ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীদের নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। শুধু রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা ও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের স্থায়ী বাসিন্দারা আবেদন করতে পারবেন।

১. পদের নাম: উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার
পদসংখ্যা: ৪
যোগ্যতা: এসএসসি পাস। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক অনুমোদিত মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল (ম্যাটস) থেকে চিকিৎসা সহকারীদের জন্য নির্ধারিত কমপক্ষে তিন বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা কোর্স পাস। বেতন স্কেল: ১২,৫০০–৩০,২৩০ টাকা (গ্রেড–১১)

২. পদের নাম: পরিবারকল্যাণ পরিদর্শিকা (এফডব্লিউভি) (নারী)
পদসংখ্যা: ১৪
যোগ্যতা: এসএসসি বা সমমান পাস। কৃতকার্য প্রার্থীরা প্রশিক্ষণার্থী হিসেবে মৌলিক প্রশিক্ষণের জন্য নির্বাচিত হবেন। প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত প্রার্থীদের নির্ধারিত প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে ১৮ মাসের মৌলিক প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করার পর বাংলাদেশ নার্সিং কাউন্সিল থেকে সনদ প্রাপ্তিসাপেক্ষে শূন্যপদের বিপরীতে নিয়োগপ্রাপ্ত হবেন।
বেতন স্কেল: ১০,২০০-২৪,৬৮০ টাকা (গ্রেড-১৪)

৩. পদের নাম: অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক
পদসংখ্যা: ১
যোগ্যতা: অন্যূন দ্বিতীয় বিভাগ বা সমমানের জিপিএতে এইচএসসি বা সমমান পাস। কম্পিউটার ব্যবহারে দক্ষতা এবং কম্পিউটারে ওয়ার্ড প্রসেসিং, ডাটা এন্ট্রি ও টাইপিংয়ের গতি প্রতি মিনিটে বাংলায় সর্বনিম্ন ২০ শব্দ ও ইংরেজিতে সর্বনিম্ন ২০ শব্দ হতে হবে।
বেতন স্কেল: ৯,৩০০-২২,৪৯০ টাকা (গ্রেড-১৬)

৪. পদের নাম: অফিস সহায়ক
পদসংখ্যা: ১
যোগ্যতা: এসএসসি বা সমমান পাস।
বেতন স্কেল: ৮,২৫০-২০,০১০ টাকা (গ্রেড-২০)

৫. পদের নাম: নিরাপত্তা প্রহরী (গার্ড)
পদসংখ্যা: ৫
যোগ্যতা: অষ্টম শ্রেণি পাস।
বেতন স্কেল: ৮,২৫০-২০,০১০ টাকা (গ্রেড-২০)

৬. পদের নাম: আয়া (নারী)
পদসংখ্যা: ৩
যোগ্যতা: অষ্টম শ্রেণি পাস।
বেতন স্কেল: ৮,২৫০-২০,০১০ টাকা (গ্রেড-২০)

৭. পদের নাম: পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক (এফপিআই) (পুরুষ)
পদসংখ্যা: ১০
যোগ্যতা: দ্বিতীয় বিভাগসহ এইচএসসি বা সমমান পাস।
বেতন স্কেল: ৯,৩০০-২২,৪৯০ টাকা (গ্রেড-১৬)

৮. পদের নাম: পরিবারকল্যাণ সহকারী (এফডব্লিউএ) (নারী)
পদসংখ্যা: ১২, যোগ্যতা: এসএসসি বা সমমান পাস।
বেতন স্কেল: ৯,০০০-২১,৮০০ টাকা (গ্রেড-১৭)
বয়সসীমা, আবেদনপত্র দাখিলের নির্ধারিত শেষ তারিখে প্রার্থীদের বয়সসীমা ১৮ থেকে ৩০ বছর। তবে বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রাধিকার কোটায় আবেদনকারীদের ক্ষেত্রে বয়সসীমা ১৮ থেকে ৩২ বছর।

আবেদন যেভাবে

আবেদনকারীদের নির্ধারিত ফরমে চেয়ারম্যান, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদকে সম্বোধন করে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লিখিত প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র সরাসরি বা ডাকযোগে পৌঁছাতে হবে। নির্ধারিত আবেদন ফরম এই

https://rhdc.gov.bd/sites/default/files/files/rhdc.portal.gov.bd/notices/47c6c985_4114_48c8_8582_52cdfc6b5b44/2024-04-16-06-03-0dcffa34ca6fa8d449f455800bd378f3.pdf লিংক থেকে ডাউনলোড করতে হবে। আবেদনপত্রের খামের ওপর লাল কালিতে আবেদন করা পদের নাম স্পষ্টভাবে লিখতে হবে এবং খামের বাম পার্শ্বে আবেদনকারীর পুরো নাম ও ঠিকানা লিখতে হবে। নিয়োগসংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য এই https://rhdc.gov.bd/sites/default/files/files/rhdc.portal.gov.bd/notices/47c6c985_4114_48c8_8582_52cdfc6b5b44/2024-04-16-06-01-b8df9cb1465b65be897f2994a05bcdc8.pdf লিংকে জানা যাবে।

আবেদন ফি
পরীক্ষার ফি (অফেরতযোগ্য) বাবদ ১ থেকে ৩ ও ৭ নম্বর পদের ক্ষেত্রে ৪০০ টাকা এবং ৪ থেকে ৬ ও ৮ নম্বর পদের ক্ষেত্রে ৩০০ টাকা চেয়ারম্যান, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ, রাঙামাটির নামীয় সোনালী ব্যাংক, নিউ কোর্ট বিল্ডিং শাখার চলতি হিসাব নম্বর— ৫৮১৯২৪০০০০৪৭২-এ জমা দিয়ে জমা স্লিপের মূল কপি আবেদনপত্রের সঙ্গে সংযুক্ত করতে হবে।

আবেদনপত্র পাঠানোর ঠিকানা: চেয়ারম্যান, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ, রাঙ্গামাটি।

আবেদনের শেষ সময়: ৮ মে ২০২৪।

কলি

প্রাণ গ্রুপে চাকরি, নেবে ১০০ জন

প্রকাশ: ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০২:১০ পিএম
প্রাণ গ্রুপে চাকরি, নেবে ১০০ জন

প্রাণ গ্রুপ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। দেশের অন্যতম প্রতিষ্ঠানটি অ্যাসিস্ট্যান্ট টেরিটরি সেলস ম্যানেজার (এটিএসএম) পদে লোকবল নিয়োগে এ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। আবেদন নেওয়া শুরু হয়েছে। আগ্রহীরা আগামী ১৫ মে পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন। প্রার্থীরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।

পদের নাম: অ্যাসিস্ট্যান্ট টেরিটরি সেলস ম্যানেজার (এটিএসএম)

পদসংখ্যা: ১০০ জন

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এমবিএ/এমএসসি

বেতন: আলোচনাসাপেক্ষে নির্ধারণ করা হবে। নির্বাচিত প্রার্থীরা মাসিক বেতন ছাড়াও বিক্রির ওপর কমিশন, প্রণোদনা, আকর্ষণীয় টিএ/ডিএ প্যাকেজ, মোবাইল বিল, উৎসব বোনাস, প্রভিডেন্ট ফান্ড, ইনস্যুরেন্সসহ প্রতিষ্ঠানের নীতিমালা অনুযায়ী আরও বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা পাবেন। আবেদনকারীর

বয়স: ২৩ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে

কর্মস্থল: যেকোনো স্থান

আবেদনকারী প্রার্থীর ধরন: পুরুষ

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা অনলাইন মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

কলি 

বিটিভির দশম গ্রেডের চাকরির লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ

প্রকাশ: ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০২:০৭ পিএম
বিটিভির দশম গ্রেডের চাকরির লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) উপসহকারী প্রকৌশলী/স্টুডিও যন্ত্রবিদ (দশম গ্রেড) পদে লিখিত পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) ওয়েবসাইটে ওই ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বিটিভির উপসহকারী প্রকৌশলী/স্টুডিও যন্ত্রবিদ (দশম গ্রেড) পদের লিখিত পরীক্ষা গত বছরের ২২ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হয়। এই পরীক্ষায় মোট ৬০ জন প্রার্থী সাময়িকভাবে উত্তীর্ণ হয়েছেন।

২০২১ সালের ২৩ ডিসেম্বর পিএসসি কর্তৃক জারিকরা নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির শর্তানুযায়ী মূল আবেদনপত্র বিপিএসসি ফরম-৫এ (অ্যাপ্লিকেন্টস কপি) কমিশনের https://bpsc.gov.bd/ ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করে বিজ্ঞাপনের নির্দেশাবলির ৯-এ উল্লিখিত প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) ২৩ এপ্রিল থেকে আগামী ৯ মের মধ্যে (সাপ্তাহিক ছুটির দিন ছাড়া) প্রতি কর্মদিবসে সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত পরিচালক

[ইউনিট-২], বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন সচিবালয়, আগারগাঁও, শেরেবাংলা নগর, ঢাকা বরাবর ডাকযোগে অথবা সরাসরি জমা দিতে হবে।
কোনো প্রার্থী নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মূল আবেদনপত্র বিপিএসসি ফরম-৫এ (অ্যাপ্লিকেন্টস কপি) ডাকযোগে বা সরাসরি জমা দিতে ব্যর্থ হলে তার প্রার্থিতা বাতিল হবে।

পরবর্তী সময়ে কোনো প্রার্থীর সংশ্লিষ্ট নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লিখিত কোনো শর্তের গুরুতর ঘাটতি দেখা গেলে মৌখিক পরীক্ষার আগে বা পরে বা যেকোনো পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল বলে গণ্য হবে।

উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষার তারিখ, স্থান ও সময়সূচি পরবর্তী সময়ে কর্মকমিশনের ওয়েবসাইটসহ জাতীয় দৈনিক পত্রিকার মাধ্যমে জানানো হবে।

কলি

প্রবাসীদের সব সমাধান যেখানে

প্রকাশ: ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০২:০৬ পিএম
প্রবাসীদের সব সমাধান যেখানে
’আমি প্রবাসী’ অ্যাপে এ পর্যন্ত প্রায় ৪ হাজার নতুন চাকরির খোঁজ মিলেছে। ছবি: সংগৃহীত

ভাগ্য বদলাতে প্রতিদিনই দেশ ছাড়ছে হাজারো বাংলাদেশি। তবে বিদেশ যাওয়ার প্রক্রিয়াগুলো সম্পন্ন করা নিয়ে বিদেশগামীদের ভোগান্তির কথা সবার জানা। অসহনীয় এই ভোগান্তি কমিয়ে আনতে বিদেশে যাওয়ার পুরো প্রক্রিয়া ডিজিটালাইজেশনে কাজ করে যাচ্ছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় এবং জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)। ২০২১ সালের শেষের দিকে বিদেশগামীদের সেবা দিতে তৈরি করা হয় ‘আমি প্রবাসী’ নামের একটি অ্যাপ। এটি ব্যবহার করে সহজেই যে কেউ বিদেশে কর্মসংস্থান খুঁজে বের করাসহ বিদেশ যাওয়ার পুরো প্রক্রিয়া ঘরে বসে সম্পন্ন করতে পারেন।

বিদেশ যেতে ইচ্ছুকদের বিএমইটি নিবন্ধন থেকে শুরু করে প্রশিক্ষণ, ছাড়পত্র ও স্মার্ট কার্ডসহ সবই এখন মিলছে অনলাইনে। স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিদেশ যেতে ইচ্ছুকদের সব সেবাই ডিজিটালাইজড করা হয়েছে। সংশ্লিষ্টদের মতে এই অনলাইন প্রক্রিয়া পুরোপুরি চালু হলে নিরাপদ অভিবাসনে যোগ হবে নতুন মাত্রা।

মাত্র তিন বছরেই এই অ্যাপের ব্যবহারকারী সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৮ লাখেরও বেশি। এ সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এই অ্যাপ ও ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করে ঘরে বসেই এখন বিএমইটির ডাটাবেইজে রেজিস্ট্রেশন করা যায়। আর এখন পর্যন্ত এই সেবা নিয়েছেন ৩০ লাখেরও বেশি বিদেশগামী ব্যক্তি। আগে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে এই সেবা নিতে যেকোনো জনশক্তি কার্যালয়ে গিয়ে দীর্ঘ লাইনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হতো। এখন ‘আমি প্রবাসী’ অ্যাপ ব্যবহার করে, ঘরে বসেই সে সেবা নিতে পারছেন অভিবাসনপ্রত্যাশীরা।

সৌদি আরব ফেরত প্রবাসী আবু রায়হান করোনার সময় অ্যাপটি ব্যবহার শুরু করেন। তিনি এটি ব্যবহারের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে গিয়ে বলেন, ‘প্রথমবার বিদেশ যেতে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। এজেন্টের মাধ্যমে বিদেশ যাওয়ার সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করলেও রেজিস্ট্রেশন, ট্রেনিংয়ের শিডিউল নেওয়া, সার্টিফিকেট উত্তোলন, স্মার্ট কার্ডসহ বিদেশ যাওয়ার প্রতিটা ধাপ ম্যানুয়াল থাকায় অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। ব্যয়ও হয়েছে অতিরিক্ত। তবে এখন এসব প্রক্রিয়া ডিজিটাল হওয়ায় এসব ঝামেলা অনেকটাই করেছে। সবকিছু নিজে নিজেই করা যাচ্ছে। তবে বাকি কার্যক্রমগুলো অনলাইনে সম্পন্ন করা গেলে আরও ভালো হতো।’

করোনা মহামারিতে সারা বিশ্বের অর্থনীতি যখন স্থবির হয়ে পড়ে। বিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনীতিও থমকে যায়। আর এই সময় ভরসা হয়ে ওঠে প্রবাসী আয় বা রেমিট্যান্স। এ অবস্থায় প্রবাসী আয় বাড়াতে তৎপর হয় সরকার। অভিবাসনপ্রত্যাশীদের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে ও সুশৃঙ্খলভাবে করোনার টিকা পেতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে এই অ্যাপ।

১৭ লাখেরও বেশি বিদেশগামী করোনা টিকার রেজিস্ট্রেশন করেন ‘আমি প্রবাসী’ অ্যাপ ব্যবহার করে। ফলে কোনো রকম ভোগান্তি ছাড়াই বিদেশগামীরা টিকা নিয়েছেন।

করোনা-পরবর্তী সময়ে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের হয়রানি ও ভোগান্তি কমাতে বিদেশ যাত্রার সব সরকারি প্রক্রিয়াগুলো ডিজিটালাইজেশনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এরই অংশ হিসেবে ‘আমি প্রবাসী’ অ্যাপে প্রাথমিকভাবে বিএমইটি রেজিস্ট্রেশন, প্রি-ডিপার্চার ওরিয়েন্টেশন (পিডিও), ট্রেনিং এবং বিএমইটি কিউআর কোড সংবলিত স্মার্ট কার্ডসহ চারটি সেবা ডিজিটালাইজেশন করা হয়। বিএমইটির তথ্যমতে, এ পর্যন্ত প্রায় ২২ লাখ পিডিও অন্তর্ভুক্তি হয়েছে এই অ্যাপের মাধ্যমে।

অভিবাসন বিশ্লেষকদের মতে, আগে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে পিডিওতে অংশ নেওয়ার জন্যও নানা ঝামেলা হতো। এই সেবাটি নিতে বিদেশ গমনেচ্ছুদের এক দিন পিডিও শিডিউল চেক করতে আসতে হতো, আরেক দিন ভর্তি, তারপর কোর্সে অংশগ্রহণ ও সর্বশেষ সার্টিফিকেট উত্তোলন করতে হতো। এসব প্রক্রিয়াতেই নষ্ট হতো অন্তত সাত থেকে দশ কর্মদিবস ও অর্থ। আর এখন পিডিওর ডিজিটালাইজেশনের ফলে অনলাইনেই সেবাগ্রহীতা শিডিউল দেখে অনলাইনে পেমেন্ট করে, সরাসরি পিডিও সেশনে ভর্তি হতে পারছেন। আবার কোর্স শেষে সার্টিফিকেটও মিলছে অনলাইনেই। ফলে বিদেশগামীদের একদিকে বাঁচছে টাকা, অন্য দিকে পোহাতে হচ্ছে না ভোগান্তি।

কর্মকর্তাদের ফাইল জট কমাতে ও রিক্রুটিং এজেন্সিদের সেবাগুলোও নিরবচ্ছিন্ন করতে ডিজিটালাইজেশনের আওতায় আনা হয়েছে রিক্রুটিং এজেন্সিদের সেবাগুলো। শুরুতে এজেন্সিগুলোর ডিজিটালাইজেশনে কিছুটা অনীহা থাকলেও সময়ের ব্যবধানে প্রায় দুই হাজারেরও বেশি রিক্রুটিং এজেন্সি যুক্ত হয়েছে স্মার্ট সেবায়।

অ্যাপে গিয়ে যাবতীয় কাগজপত্রাদিসহ একজন বিদেশগামীকে অনলাইন ক্লিয়ারেন্সের জন্য আবেদন করতে হয়। এরপর কর্তৃপক্ষের অনুমোদনের সঙ্গে সঙ্গেই অভিবাসনপ্রত্যাশীরা তাদের মোবাইলে স্মার্ট কার্ডটি পিডিএফ আকারে ডাউনলোড করতে পারবেন বা প্রিন্টও করতে পারবেন। সেই সঙ্গে কিউআর কোডের মাধ্যমে স্মার্ট কার্ডটি দেখাতে পারবেন ইমিগ্রেশনসহ বিশ্বের যেকোনো জায়গা থেকে। ফলে স্মার্ট কার্ডটি হারিয়ে বা নষ্ট হয়ে যাওয়ার কোনো ভয়ও নেই।

অ্যাপটির সিনিয়র এক্সিকিউটিভ সাইফ উল আলম জানান, এটি ব্যবহারে অভিবাসীপ্রত্যাশীদের থেকে বেশি সুবিধা পাবেন রিক্রুটিং এজেন্সিগুলো। কারণ আমাদের সিস্টেমে রিক্রুটিং এজিন্সিগুলো বিএমইটিতে না এসেও অনলাইনে তাদের ক্লায়েন্টদের ফাইল পুট-আপের সুযোগ রয়েছে। এ কারণে ফাইল নিয়ে তাদের আর কোনো দপ্তরে ঘুরতে হবে না। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়াতে হবে না।

তিনি আরও বলেন, আগে শুধু ম্যানুয়ালি যখন বিএমইটি ক্লিয়ারেন্সের জন্য ফাইল জমা পড়ত, সেখানে লোকবলের ঘাটতি থাকায় সময়মতো অনেকেরই ক্লিয়ারেন্স পেতে সমস্যা হতো। এখন অনলাইনে কিউআর কোডের মাধ্যমে মিলছে বিএমইটি ক্লিয়ারেন্স।

বিএমইটির সাবেক মহাপরিচালক শহিদুল আলম অ্যাপটিকে সেইফ মাইগ্রেশন বা স্মার্ট মাইগ্রেশন নাম দিয়ে ডিজিটাল কিউআর কোডভিত্তিক স্মার্ট কার্ড প্রবর্তনকে যুগান্তকারী সংযোজন হিসেবে আখ্যা দেন। তিনি বলেন, এর মাধ্যমে একদিকে কার্ড প্রিন্টিংয়ের অতিরিক্তি ঝামেলা কমেছে। শুধু কার্ড প্রিন্টিং এড়ানোর কারণে সরকারে এখান থেকে বছরে বড় অঙ্কের খরচ কমেছে। এ ছাড়া ভুয়া স্মার্ট কার্ড বা জালিয়াতির মাধ্যমে ক্লিয়ারেন্স নেওয়ার সুযোগ বন্ধ হয়েছে। কাজে এসেছে স্বচ্ছতা।

গত বছরের জুনে অনলাইনে বিএমইটি ক্লিয়ারেন্সের ফিচারটি চালু করা হয়। এতে গ্রাহকদের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া মিলেছে। বিএমইটির তথ্যমতে, ইতোমধ্যে ৮ লাখেরও বেশি কিউআর কোডভিত্তিক ইমিগ্রেশন স্মার্ট কার্ড ইস্যু করা হয়েছে। গত মাসে রেকর্ড সংখ্যক বিএমএইটি ছাড়পত্র ইস্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এ ছাড়া ট্রেনিংয়ে অংশ না নিয়ে ভুয়া সার্টিফিকেট দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে বিদেশ যাওয়ার সুযোগ বন্ধ হয়েছে। ফলে এক দিকে বিদেশে গিয়ে শ্রমিকদের প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা কমে গেছে, অন্যদিকে বিদেশি প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছেও বাংলাদেশি শ্রমিকদের হারানো আস্থা ফিরছে। ইতোমধ্যে আড়াই লাখেরও বেশি কর্মী বিভিন্ন ট্রেনিং সেন্টারের বিভিন্ন কোর্সে ডিজিটাল প্রক্রিয়ায় তালিকাভুক্ত হয়েছেন।

বর্তমানে এই অ্যাপে প্রায় ৪ হাজার ৫০০ নতুন চাকরির খোঁজ মিলেছে। যে কেউ চাইলেই নিজের চাকরি নিজেই খুঁজে অথবা নিজের সংগৃহীত ভিসার প্রসেসিং বা সিঙ্গেল ভিসার প্রসেসিং ওয়ানস্টপের মাধ্যমে করতে পারবেন। বিএমইটির ওয়ানস্টপ সেবাও অনলাইনে মিলছে। তাই যে কেউ চাইলেই এখন নিজের ভিসার যাবতীয় কার্যক্রম ঘরে বসে অনলাইনেই সম্পন্ন করতে পারবেন। সেই সঙ্গে একজন ব্যক্তি বিদেশ যাওয়ার আগে তার জব বা তার ভিসা সঠিক কি না অথবা তিনি যে কোম্পানিতে যাচ্ছেন সেটির তথ্য যাচাই করতে পারছেন।

‘আমি প্রবাসী’ অ্যাপের সিইও নামির আহমেদ বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের স্মার্ট মাইগ্রেশন বা স্মার্ট অভিবাসন প্রক্রিয়া বাস্তবায়নের লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের এই খাতে শতভাগ ডিজিটাল সেবার আওতায় নিয়ে আনতে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই আমরা ডিজিটাল সত্যায়ন চালু করছি। ফলে আর কোনো কর্মী বিদেশে গিয়ে প্রতারিত হওয়ার আশঙ্কা থাকবে না। সেই সঙ্গে সরকারও ভিসা অ্যাটাস্টেশন বাবদ নির্ধারিত রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হবে না। অ্যাপটি বিনামূল্যে ডাউনলোড করা যাবে গুগল প্লে স্টোর ও আইওএস অ্যাপ স্টোর থেকে।

কলি

ক্যারিয়ার গড়তে পারেন কৃষিতে

প্রকাশ: ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০২:০০ পিএম
ক্যারিয়ার গড়তে পারেন কৃষিতে

কৃষিপ্রধান দেশ বাংলাদেশ। তাই একজন কৃষিবিদ হিসেবে ভবিষ্যতে দেশের এ গুরুত্বপূর্ণ খাতে অবদান রাখতে পারা গৌরব এবং আনন্দেরও। তা ছাড়া কৃষি নিয়ে পড়াশোনা ও গবেষণার উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ রয়েছে। উচ্চশিক্ষিত অনেকেই এখন শখের বশে নিজের বাসার ছাদে ছাদকৃষি করছেন। কৃষি নিয়ে কাজ করতে তরুণ-তরুণীদের মধ্যেও দিন দিন আগ্রহ বাড়ছে। কৃষি বিষয়ে পড়ালেখা করে দেশ-বিদেশে ভালো মানের চাকরি করা যায়। ইদানীং ভেষজ ওষুধ উৎপাদনেও কৃষি গ্র্যাজুয়েটদের সম্ভাবনাময় পদচারণা শুরু হয়েছে। এক কথায়, বাংলাদেশসহ সারা দেশে কৃষিবিদদের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে।

পড়াশোনা 
নিত্যনতুন কোনো কিছু আবিষ্কার করতে ভালোবাসেন কিংবা কোনো জিনিসকে ভেঙে যারা উন্নত করতে চান তাদের জন্য কৃষিতে একটা বিষয় রয়েছে- যার নাম কৃষি প্রকৌশল। এ ছাড়া উদ্ভিদ রোগবিদ্যা পড়ে গাছের চিকিৎসক হতে পারেন। এই যেমন মানুষ কিন্তু নিজের রোগের ব্যাপারে বলতে পারে, গাছপালা পারে না। সেই না বলতে পারা গাছের অসুখটা বের করে নিমিষেই চিকিৎসা করে সুস্থ করাটা হবে আপনার কাজ। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে কৃষি অনুষদের অধীনে কৃষিতে গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি দেওয়া হয়। এ অনুষদে রয়েছে ১৬টি বিভাগ। এখানে কৃষিতত্ত্ব, মৃত্তিকাবিজ্ঞান, কীটতত্ত্ব, উদ্যানতত্ত্ব, উদ্ভিদ রোগতত্ত্ব, ফসল উদ্ভিদবিজ্ঞান, কৌলিতত্ত্ব ও উদ্ভিদ প্রজনন, কৃষি সম্প্রসারণ, কৃষিরসায়ন, প্রাণরসায়ন ও অণুপ্রাণ বিজ্ঞান, ফুড সেফটি ম্যানেজমেন্ট, বায়োটেকনোলজি, পরিবেশ বিজ্ঞান, সিড সায়েন্স ও টেকনোলজি বিষয়ে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করা হয়। তবে কৃষিবিদ হতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পড়াশোনা করতে হবে। পরে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর নিজস্ব ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে বিভিন্ন অনুষদের ৪ বছর মেয়াদি বিএসসি (অনার্স) কোর্স বেছে নিতে হবে।

তা ছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এবং একাধিক বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়েও কৃষিতে পড়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন। দেশে যেসব সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে কৃষি বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রি নেওয়ার সুযোগ রয়েছে সেগুলো হলো- বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও অ্যানিমেল সায়েন্স বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ফিশারিজ কলেজ জামালপুর, বরিশাল ভেটেরিনারি কলেজ। এদিকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও বঙ্গবন্ধু কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিভিন্ন বিষয়ে পিএইচডি অর্জন করা যাচ্ছে। দেশ ছাড়াও কৃষিবিদদের বিদেশে রয়েছে উচ্চশিক্ষার বিশাল সুযোগ।

ক্যারিয়ার 
প্রতি বিসিএসেই কৃষি ক্যাডারে পদ থাকে। উত্তীর্ণরা বিসিএস (কৃষি) ক্যাডারে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অধীনে ‘কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার’ পদে জয়েন করেন। কৃষিতে স্নাতক সম্পন্ন করার পর নিজস্ব বিষয়সহ যেকোনো উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা ও উচ্চশিক্ষার সুযোগ রয়েছে। বর্তমানে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় উল্লেখযোগ্য কয়েকটি অনুষদেও চাকরির ক্ষেত্র বেড়েছে। ভালো ফল করলে সেখানে শিক্ষকতার সুযোগ রয়েছে। সরকারি কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠানেও চাকরি করা যায়। এ ছাড়া বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠান, বাংলাদেশ ধান গবেষণা, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড, বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা কাউন্সিল, পল্লি উন্নয়ন একাডেমি, বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউট (বিএসটিআই), এসিআই, সিনজেনটা, কাজী ফার্মসসহ কৃষি যন্ত্রপাতি উৎপাদক বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরির সুযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে পড়াশোনা হয়, যা বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি খাদ্য প্রক্রিয়াজাত এবং খাদ্যের গুণগতমান নির্ধারণ করা প্রতিষ্ঠানে চাকরির পথ খুলে দেয়। বিভিন্ন বেসরকারি দুগ্ধ ও পোলট্রির খামার, ব্র্যাক, ফিড মিল, এনজিও এবং আন্তর্জাতিক সংস্থায়ও চাকরির সুযোগ আছে। এসবের মধ্যে আড়ং ডেইরি, কাজী ফার্মস, আফতাব বহুমুখী ফার্ম, মিল্ক ভিটা, সিপি ফুড উল্লেখযোগ্য। আর আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর মধ্যে ইউএসএইড, ডিএফআইডি, ড্যানিডা, সিডা, উইনরক, ইরি, আইএফডিসি ও অক্সফাম জিবির মতো প্রতিষ্ঠানেও কৃষিবিদদের অগ্রাধিকার রয়েছে। বর্তমানে এনজিও এবং বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলো কৃষিক্ষেত্রে কাজের পরিধি বাড়াচ্ছে। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, জাপান, জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া, সাউথ কোরিয়া, মালয়েশিয়া ও ভারতে প্রতিবছর উচ্চশিক্ষা ও চাকরির জন্য অনেক শিক্ষার্থী গমন করছেন।

আয়
বাংলাদেশে সাধারণত কৃষি সম্পর্কিত যেকোনো প্রতিষ্ঠানে একজন কৃষিবিদদের বেতন সরকারি স্কেলেই ধার্য করা হয়। তা ছাড়া বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে প্রথম অবস্থায় উচ্চ বেতন দিয়ে চাকরি শুরু হয়, দিন যত গড়ায় তত বেতন বাড়তে থাকে। আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো অনেক উচ্চমানের বেতন দিয়ে থাকে। সে ক্ষেত্রে শুরুতেই লাখ টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে।

কলি