ঢাকা ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ২৬ প্রার্থী জয়ী

প্রকাশ: ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৫৭ পিএম
প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ২৬ প্রার্থী জয়ী
ছবি : সংগৃহীত

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৬ প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এসব উপজেলায় তিন পদে একজন করে প্রার্থী থাকায় এসব পদে আর ভোটের প্রয়োজন পড়ছে না।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তারা ওইসব প্রার্থীকে নির্বাচিত ঘোষণা করেছেন বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার কর্মকর্তারা। 

সংশ্লিষ্ট ২৬ উপজেলা চেয়ারম্যান পদে ৭ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৯ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১০ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।

নির্বাচিতদের মধ্যে রয়েছেন- বালিয়াডাঙ্গীতে (ঠাকুরগাঁও) উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, হাকিমপুরে (দিনাজপুর) মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, সাঘাটায় (গাইবান্ধা) চেয়ারম্যান, বেড়া (পাবনা) উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, সিংড়ায় (নাটোর) চেয়ারম্যান, কুষ্টিয়া সদরে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, বাগেরহাট সদরে সব পদ, মুন্সীগঞ্জ সদরে সব পদ, শিবচরে (মাদারীপুর) সব পদ, বড়লেখায় (মৌলভীবাজার) মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, পরশুরামে (ফেনী) সব পদ, সন্দ্বীপে (চট্টগ্রাম) ভাইস চেয়ারম্যান, কক্সবাজার সদরে ভাইস চেয়ারম্যান, রোয়াংছড়িতে (বান্দরবান) চেয়ারম্যান পদ, কাউখালীতে (রাঙামাটি) ভাইস চেয়ারম্যান, চুয়াডাঙ্গার ডামুহুদায় ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান। 

আগামী ৮ মে প্রথম ধাপে ১৫০ উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আজ প্রতীক পাওয়ার পর প্রার্থীরা প্রচারে নেমে পড়েছেন। 

এলিস/সালমান/

নজরুলের গানেই বিদ্বেষ, সহিংসতা রুখে দেওয়ার আহ্বান

প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪, ০৯:৫০ এএম
নজরুলের গানেই বিদ্বেষ, সহিংসতা রুখে দেওয়ার আহ্বান
ছবি : খবরের কাগজ

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের গানে যে সাম্য ও মানবতার বাণী ধ্বনিত হয়েছে বারবার, সে বাণীকে জাতীয় জীবনে ধারণ করে সমাজের সব বিদ্বেষ ও সহিংসতা রুখে দেওয়ার প্রত্যয় নিয়েছেন রাজনীতিবিদ, শিক্ষক, গবেষক ও সংস্কৃতিকর্মীরা৷

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫তম জন্মজয়ন্তীর আয়োজনে জাতীয় কবির সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে এসে তারা এ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন৷ 

শনিবার (২৫ মে) ভোর সোয়া ৬টায় জাতীয় কবির জন্মজয়ন্তী উপলক্ষ্যে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী নাহিদ ইজাহার খানের নেতৃত্বে শ্রদ্ধা জানায় বাংলা একাডেমি, নজরুল ইনস্টিটিউট, প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর, জাতীয় জাদুঘর, কপিরাইট অফিস, শিল্পকলা একাডেমির কর্মকর্তারা।

নজরুল সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদনের পরে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, আজকে সারা বিশ্বে যেভাবে যুদ্ধ ও অশান্তি লেগে আছে নজরুল কিন্তু সবসময় এটার বিপক্ষে ছিলেন৷ অসাম্প্রদায়িকতার পক্ষে ছিলেন তিনি। সবসময় শান্তি চাইতেন৷ নজরুলের গানগুলো যদি আন্তর্জাতিকভাবে চর্চা করি, তাহলে বিশ্বকে শান্তির স্থানে নিয়ে যেতে পারব৷
  
নজরুল সংগীত ও নজরুল রচনাবলীর প্রচার ও কপিরাইট বিষয়ে খবরের কাগজের এক প্রশ্নের জবাবে নাহিদ ইজাহার খান বলেন, নজরুলের গানের কপিরাইট সংরক্ষণের দায়িত্ব শুধু পরিবারের না, রাষ্ট্রেরও৷ নজরুলের গান যত তাড়াতাড়ি করে ফেলতে পারবো, ততই ভালো৷ তাহলে দেশের সম্পদ দেশেই থাকবে৷

পরে তিনি বলেন, আমরা চাইবো, কবির যত গান, নাটক, রচনা রয়েছে তা কেবল ইংরেজি ভাষায় নয়, বিশ্বের অন্যান্য ভাষায় অনূদিত হয়৷ নজরুলের কবিতা ও গান নিয়ে আরও গবেষণা করা উচিত৷ 

পরে নজরুল ইনস্টিটিউটের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান খায়রুল আনাম শাকিল বলেন, মানুষে মানুষে যে হানাহানি, সমাজে যে বিদ্বেষ কবি নজরুল এর বিপক্ষে ছিলেন আজীবন৷ তিনি জীবনভর বলে গেছেন মানুষে মানুষে প্রেম থাকবে৷ জাতীয় কবির দর্শন, ভাবনাগুলো জাতীয় জীবনে ধারণ করতে পারলে তবে তার প্রতি আমরা শ্রদ্ধা জানাতে পারবো৷ 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম সারাজীবন অসাম্প্রদায়িকতা ও মানবিকতার চর্চা করেছেন এবং সাম্যবাদের পক্ষে অসংখ্য কবিতা লিখেছেন। নজরুলের প্রতিবাদ ও সাম্যের কথা তরুণদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পারলে আমরা নজরুল চর্চাকে প্রাতিষ্ঠানিক করতে পারবো৷ 

অসাম্প্রদায়িকতা প্রতিষ্ঠায় নজরুল চর্চার তাৎপর্য নিয়ে অধ্যাপক মাকসুদ কামাল বলেন,নজরুলকে আমরা তখনই সর্বাত্মকরণে ধারণ করতে পারব, যখন আমরা জাতীয় জীবনে অসাম্প্রদায়িকতাকে সামগ্রিকভাবে প্রতিষ্ঠা করতে পারব।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক নিজামুল হক ভুঁইয়া, ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক মো. মাকসুদুর রহমান  উপস্থিত ছিলেন৷ 

পরে ঢাবির বিভিন্ন হলের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানানো হয়৷ 

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পরে কবির সমাধিতে শ্রদ্ধা জানায় যুবলীগ, ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল, সিপিবি, বাসদ, ডেমোক্রেটিক পার্টি ও ১০ দলীয় জোট, সমাজতান্ত্রিক মহিলা দল, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট৷ 

এছাড়া সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, সুরসপ্তক, ধুমকেতু, আন্তর্জাতিক নজরুল একাডেমি, বাফা, জলতরঙ্গের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়৷ 

জয়ন্ত সাহা/অমিয়/

সিলেটের নতুন গ্যাসকূপের সন্ধান

প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪, ০৯:৪৬ এএম
সিলেটের নতুন গ্যাসকূপের সন্ধান
গ্যাসকূপের সন্ধান। খবরের কাগজ ফাইল ফটো

সিলেটের কৈলাশটিলা গ্যাসফিল্ডের নতুন একটি কূপে গ্যাসের সন্ধান মিলেছে। খননকাজ শুরু হওয়ার সাড়ে ৪ মাসের মাথায় গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে গ্যাসের ফ্লো শুরু হয়েছে।

শনিবার (২৫ মে) ও আগামীকাল রবিবার (২৬ মে) এই পরীক্ষা চলমান থাকবে। প্রেসার ঠিক থাকলে এই কূপ থেকে প্রতিদিন ১৮ থেকে ২১ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে। আগামী তিন মাসের মধ্যে জাতীয় গ্রিডে এই গ্যাস যেতে পারবে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

কৈলাশটিলা ৮ নম্বর কূপ থেকে গ্যাসের সঙ্গে উপজাত হিসেবে কনডেনসেটও (তরল হাইড্রোকার্বন) মিলবে, তবে প্রতি ঘনফুট গ্যাসের সঙ্গে কী পরিমাণ কনডেনসেট মিলবে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরই তা জানা যাবে।

সিলেট গ্যাস ফিল্ড সূত্রে জানা যায়, সারা দেশে গ্যাস উৎপাদন বাড়াতে নতুন যেসব প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়, তার একটি এই কৈলাশটিলা ৮ নম্বর কূপ। এ কূপের খনন কাজ শুরু হয় চলতি বছরের ১১ জানুয়ারি। সাড়ে ৪ মাসে সফলভাবে খনন কাজ শেষে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য গ্যাসের প্রেশারসহ অন্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু হয়েছে। শিগগিরই আনুষ্ঠানিকভাবে গ্যাসের মজুতের পরিমাণ জানাবেন সংশ্লিষ্টরা। সিলেট গ্যাস ফিল্ড কোম্পানির এই কূপটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে খনন করছে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান বাপেক্স। কূপের মাত্র দেড় কিলোমিটার দূরে বিদ্যমান পাইপলাইন ও আড়াই কিলোমিটার দূরত্বে ব্যবহারযোগ্য প্রসেস প্ল্যান্ট রয়েছে। 

তাই দ্রুত এই গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত করা সম্ভব বলে জানান কর্মকর্তারা। সিলেট গ্যাস ফিল্ড লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মিজানুর রহমান জানান, কৈলাশটিলা ৮ নম্বর কূপ থেকে পরীক্ষামূলকভাবে ২১ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন শুরু হয়েছে। কূপের ৩ হাজার ৪৪০ থেকে ৫৫ হাজার ফুট গভীরতায় গ্যাস পাওয়া গেছে। পাইপলাইন হয়ে গেলে আগামী তিন মাসের মধ্যে এই গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত করা যাবে।

অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়াই হবে নজরুলের প্রতি শ্রদ্ধা: কাদের

প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪, ০৮:৩৫ এএম
অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়াই হবে নজরুলের প্রতি শ্রদ্ধা: কাদের
ছবি : খবরের কাগজ

সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষ সমূলে উৎপাটিত করে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে পারলেই জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শনিবার (২৫ মে) সকালে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানাতে এসে এ কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, আজকের এদিনে বলতে চাই, আমরা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী হয়েছি। কিন্তু সেই বিজয়কে সুসংহত করার এখনো অনেক কাজ বাকি। বিজয়কে সুসংহত করার পথে বাধা দিতে বিএনপির পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশের কিছু সাম্প্রদায়িক অশুভ শক্তি তৎপর। আজকের এ দিনে বলতে চাই, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষকে সমূলে উৎপাটিত করে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়াই হবে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, অসাম্প্রদায়িক চেতনার কবি, বিদ্রোহ বেদনার কবি, যৌবনের কবি কাজী নজরুল ইসলাম আমাদের জাতীয় কবি। জাতীয় কবির জন্মতিথিতে আমরা বলব, বাঙালি জাতির স্বাধিকার সংগ্রাম, আমাদের মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা সংগ্রামে আমাদের প্রেরণার উৎস হচ্ছেন কবি নজরুল। যার কবিতা, গান স্বাধীনতা ও স্বাধিকার সংগ্রামে আমাদের অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে।

বিএনপি নেতাদের এক অভিযোগ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, কোনো রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীকে জেলে পাঠানোর এজেন্ডা আমাদের নেই। যে দুর্বৃত্ত, অগ্নিসন্ত্রাস, খুন করে, অস্ত্র ব্যবসা করে, অপরাধীর বিরুদ্ধে জেল-জুলুম হয়, মামলা হয়। সেখানে কোনো বিএনপি বা কোনো দলের ব্যাপারে নির্বাচনের পর নতুন করে আমরা কোনো চিন্তাভাবনা করিনি। এমন চিন্তা নেই যে, রাজনৈতিক দলের কাউকে নির্যাতন করব, জেলে পাঠাব।

তবে অপরাধ করে কেউ পার পাবে না এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, কোনো রাজনৈতিক দলের কেউ যদি অপরাধ করে থাকে, এসবের সঙ্গে যারা জড়িত তারা রাজনৈতিক নেতা বা কর্মী নয়, এরা হচ্ছে দুর্বৃত্ত। তাদের শায়েস্তা করতেই হবে জনস্বার্থে, জাতীয় স্বার্থে।

এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাছিম, দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী বিপ্লব বড়ুয়া, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন প্রমুখ।

জয়ন্ত সাহা/অমিয়/

‘দুর্গম গিরি কান্তার মরু’ গানটি রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে গাওয়ার অনুরোধ কবি পরিবারের

প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪, ০৮:১৩ এএম
‘দুর্গম গিরি কান্তার মরু’ গানটি রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে গাওয়ার অনুরোধ কবি পরিবারের
ছবি : খবরের কাগজ

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‘দুর্গম গিরি কান্তার মরু...’ গানটি রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে জাতীয় সংগীতের পরে গাওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন তার পরিবারের সদস্যরা।

শনিবার (২৫ মে) ভোরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫তম জন্মজয়ন্তীতে কবির সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে এসে এই দাবি করেন কবির নাতনি নজরুল সংগীতশিল্পী খিলখিল কাজী।

এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন কবির আরেক নাতনি মিষ্টি কাজী। 

খিলখিল কাজী বলেন, জাতীয় সংগীতের পরে রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে জাতীয় কবির ‘দুর্গম গিরি কান্তার মরু’ গানটি বাজানোর অনুরোধ জানাই। এ গানে তিনি দেশ ও মানুষের মুক্তির কথা বলেছেন। মানুষের এগিয়ে যাওয়ার কথা বলেছে। এ গানটি নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর খুব প্রিয় ছিল। মানুষকে আলোকিত পথে নিয়ে যাওয়ার দিকনির্দেশনা দেয়।

বিদ্রোহী কবির রচনাবলি বিশ্বের নানা ভাষায় অনুবাদের দাবি রেখে খিলখিল কাজী বলেন, নজরুল রচনাবলি আমাদের জাতীয় সম্পদ। এ রচনাবলি অনুবাদের মাধ্যমে পৃথিবীর সব ভাষাভাষী মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া হোক। তার রচনা অনুবাদের দায়িত্ব সরকারের। নজরুল ইনস্টিটিউটের পাশাপাশি বেসরকারিভাবেও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আমাদের দাবি হলো, এ কাজটি দ্রুত করা হোক। 

জাতীয় কবির জন্মদিনের দিনটি সরকারিভাবে ছুটি ঘোষণার দাবিও পুনর্ব্যক্ত করেন তিনি। 

জয়ন্ত সাহা/অমিয়/

বাবার দেহাংশ এক টুকরো হলেও চাই, এমপি আনারের মেয়ে ডরিন

প্রকাশ: ২৪ মে ২০২৪, ১০:৩১ পিএম
বাবার দেহাংশ এক টুকরো হলেও চাই, এমপি আনারের মেয়ে ডরিন
সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন। ছবি: খবরের কাগজ

আমার বাবার লাশের দেহাংশের এক টুকরো আমি চাই। যে লাশের টুকরো ছুঁয়ে দেখতে পারি। লাশের টুকরোকেই বাবা মনে করে জানাজা করাতে চাই।

ঝিনাইদহ-৪ (কালীগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারকে নৃশংসভাবে হত্যার সুষ্ঠু বিচার ও হত্যার পরিকল্পনাকারীকে গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে কাঁদতে কাঁদতে এসব কথা বলেন নিহত সংসদ সদস্য আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন।

শুক্রবার (২৪ মে) বিকেলে কালীগঞ্জ পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দারা শহরের মেইন বাসস্ট্যান্ডে এ কর্মসূচির আয়োজন করেন। মানববন্ধন চলাকালে ঝিনাইদহ-যশোর মহাসড়কে আধাঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন বলেন, প্রধানমন্ত্রী বাবা হারানোর ব্যথা-কষ্ট বোঝেন। তিনি আমার বাবা হারানোর বেদনা বুঝবেন। তার বাবার হত্যার বিচার করেছেন, আমার বাবা হত্যার বিচারও করবেন। হত্যার পরিকল্পনাকারীকে ধরার পরই খতিয়ে দেখা যাবে আসলে সে এত বড় অপকর্ম কেন ঘটাল। এর বিচার অবশ্যই হবে।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। গতকালও কথা বলেছি। আমরা আইনের আশ্রয় নেব। প্রধানমন্ত্রী আছেন, আওয়ামী লীগের দলীয় সর্বোচ্চ অভিভাবকরা আছেন, তারা আমাদের পরামর্শ দেবেন এবং তারা অবশ্যই তাদের দলীয় এমপি হত্যার সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা করবেন। কালীগঞ্জের মানুষের সুখে দুঃখে যিনি সবসময় পাশে থেকেছেন সেই মানুষটির হত্যার বিচার আমরা চাই। আমরা কোনো শৃঙ্খলাহানি করতে চাই না।

মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন কালীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আশরাফুল আলম আশরাফ। এ সময় নব-নির্বাচিত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শিবলী নোমানী, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান মতি, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হোসেনসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী ও এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

মাহফুজুর রহমান/এমএ/