ঢাকা ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, রোববার, ২৬ মে ২০২৪

সনদ বাণিজ্য : আলী আকবরের কাছে দুদিনের মধ্যে ব্যাখ্যা চেয়েছে ডিবি

প্রকাশ: ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:১৬ পিএম
সনদ বাণিজ্য : আলী আকবরের কাছে দুদিনের মধ্যে ব্যাখ্যা চেয়েছে ডিবি
কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের সদ্য সাবেক চেয়ারম্যান আলী আকবর খান। ছবি : সংগৃহীত

কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের সনদ জালিয়াতির ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদে নিজের দায় এড়ানোর চেষ্টা করেছেন প্রতিষ্ঠানটির সদ্য সাবেক চেয়ারম্যান আলী আকবর খান। তবে ডিবি পুলিশ তাকে দুদিনের সময় দিয়ে ছেড়ে দিয়েছে, এর মধ্যে অভিযোগ সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট ব্যাখ্যা দেওয়ার সুযোগ পাবেন তিনি। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যদি অভিযোগের সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা না দেন এবং সনদ জালিয়াতিতে তার জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া যায়, তাহলে আলী আকবরের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ। অন্যদিকে তার স্ত্রীকে রিমান্ড শেষে মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। 

এদিন দুপুরে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের সনদ জালিয়াতির ঘটনায় প্রতিষ্ঠানটির সদ্য সাবেক চেয়ারম্যান আলী আকবর খানকে ডিবি কার্যালয়ে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদের পর সাংবাদিকদের এসব কথা জানান তিনি।

হারুন অর রশীদ বলেন, ‘আগারগাঁও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের সিস্টেম অ্যানালিস্ট শামসুজ্জামানের বাসায় অভিযান পরিচালনা করা হয়েছিল। সেখানে কারখানা তৈরি করে সনদ বানানো হচ্ছিল। তিনি কারিগরি শিক্ষা বোর্ড থেকে হাজার হাজার কাগজ এনে জালিয়াতি করতেন। এ ঘটনায় আমরা ৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছি, এর মধ্যে পাঁচজন সব দোষ স্বীকার করেছেন। এর সঙ্গে আর কারা কারা জড়িত সে সম্পর্কে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।’

ডিবি প্রধান আরও বলেন, ‘সদ্য ওএসডি হওয়া বোর্ডের চেয়ারম্যানের স্ত্রী সেহেলা পারভীনকেও আমরা জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। তিনি জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন যে, সিস্টেম অ্যানালিস্ট শামসুজ্জামানের কাছ থেকে টাকা নিয়েছিলেন তিনি। শামসুজ্জামান ও সেলেহা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। মঙ্গলবার আমরা কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের সদ্য ওএসডি হওয়া চেয়ারম্যান ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রককে ডিবি কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। আমরা জানতে চেয়েছি, ওয়েবসাইটের পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে আপলোড করা সনদ অনিয়ম করা হয়েছে মাসের পর মাস। প্রতিষ্ঠান থেকে কাগজ নিয়ে যাচ্ছে, সিসিটিভিতে দেখা গেছে। আবার পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক সার্টিফিকেটগুলোয় স্বাক্ষরও করেছেন বহুদিন ধরে। কলেজগুলোর পরীক্ষার সঙ্গে মিলিয়ে দেখে সার্টিফিকেটে স্বাক্ষর করা। এত জালিয়াতি হলো, অথচ চেয়ারম্যান হিসেবে তিনি এসব দেখেননি বা জানেন না, সেটা কীভাবে সম্ভব?’

হারুন বলেন, ‘এই ঘটনাগুলোকে কী অবহেলা করেছেন চেয়ারম্যান ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক? নাকি স্বপ্রণোদিতভাবে করেছেন কি না জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। কেন জেনেও আপনারা ব্যবস্থা নিলেন না? তখন চেয়ারম্যান ডিবিকে বলেছেন, তাদের লোকবল কম ছিল, তাই নজরদারি সম্ভব হয়নি। কিন্তু প্রশ্ন হলো, সার্টিফিকেট কেনাবেচা হচ্ছে এবং বানানোর পর কারিগরি দর ওয়েবসাইটে আপলোড হচ্ছে। মানুষ সার্টিফিকেট কিনছে- জানার পরও দায় এড়াতে চেষ্টা করেছেন আলী আকবর খান। স্ত্রীর বিষয়টিও তিনি জানতেন না বলে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছেন।’

ডিবি প্রধান বলেন, ‘সনদ জালিয়াতির ঘটনায় আলী আকবরের দায় সম্পর্কে সঠিক ব্যাখ্যা দিতে হবে। তিনি যদি সঠিক ব্যাখ্যা দিতে না পারেন, আর আমরা যদি তার সংশ্লিষ্টতা বা অনৈতিক যোগসাজশের তথ্য-প্রমাণ পাই, তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণ করব। জড়িত প্রত্যেককে আমরা একে একে আইনের আওতায় নিয়ে আসব। কাউকে ছাড় দেব না।’ 

ডিবি জানায়, সার্টিফিকেটগুলো কারা কিনেছেন, কোথায় কোথায় বিক্রি হয়েছে, সেটা দেখা হবে। বুয়েটের একটি পরীক্ষক দল আসবে। বিশ্লেষণ করে দেখা হবে আসলে কী পরিমাণ সার্টিফিকেট ইস্যু করা হয়েছিল এবং কী পরিমাণ টাকা লেনদেন হয়েছে। তদন্ত আরও চলবে। আপাতত ছেড়ে দেওয়া হলেও ডিবির নজরদারিতে থাকবেন কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের ওএসডি চেয়ারম্যান আলী আকবর খান।

আলী আকবরের স্ত্রী রিমান্ড শেষে কারাগারে

বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অব্যাহতিপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. আলী আকবর খানের স্ত্রী মোছা. সেহেলা পারভীনকে (৫৪) কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতাউল্লাহর আদালত মঙ্গলবার তাকে কারাগারে পাঠান। রিমান্ড শেষে তাকে আদালতে হাজির করা হলে এই নির্দেশ দিয়ে জামিন শুনানির জন্য আগামীকাল বুধবার (২৪ এপ্রিল) দিন ধার্য করা হয়। 

আদালতে নিযুক্ত মিরপুর মডেল থানার সাধারণ নিবন্ধন শাখার সাব-ইন্সপেক্টর জালাল উদ্দিন এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘রাজধানীর মিরপুর মডেল থানায় করা মামলায় দুই দিনের রিমান্ড শেষে সেহেলাকে মঙ্গলবার আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করে পুলিশ। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা লালবাগ গোয়েন্দা বিভাগের পরিদর্শক মো. আমিরুল ইসলাম এই আবেদন করেন। আর আসামি পক্ষের আইনজীবী আবদুর রহমান জামিন চেয়ে আবেদন করেন এবং আগামীকাল বুধবার শুনানি করবেন বলে আদালতকে জানান। পরে জামিন শুনানির জন্য বুধবার দিন ধার্য করে সেহেলাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।’

একই অভিযোগে গত ১ এপ্রিল গ্রেপ্তার হন কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের সিস্টেম অ্যানালিস্ট প্রকৌশলী এ কে এম শামসুজ্জামান। তাকে জিজ্ঞাসাবাদে সেহেলা পারভীনের নাম উঠে আসে। গত শনিবার সেহেলা পারভীনকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। 

সৌদি আরব পৌঁছেছেন ৪৩ হাজার ৩৮৬ হজযাত্রী

প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৪, ১০:০৭ পিএম
সৌদি আরব পৌঁছেছেন ৪৩ হাজার ৩৮৬ হজযাত্রী
ছবি : সংগৃহীত

পবিত্র হজ পালনের উদ্দেশ্যে সৌদি আরব পৌঁছেছেন ৪৩ হাজার ৩৮৬ বাংলাদেশি। এদিকে গতকাল শনিবার (২৫ মে) মক্কায় আরও এক বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে হজ করতে গিয়ে মোট ছয়জন মারা গেছেন। তার মধ্যে মক্কায় চারজন ও মদিনায় দুজন মারা যান।

বাংলাদেশ সময় গতকাল দিবাগত রাত ২টা ৫৯ মিনিটে হজ ব্যবস্থাপনা পোর্টালে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ থেকে এ পর্যন্ত মোট ১০৯টি ফ্লাইট সৌদিতে গেছে। তার মধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ৫১টি, সৌদি এয়ারলাইনসের ৩৫ এবং ফ্লাইনাস এয়ারলাইনস ২৩টি ফ্লাইট পরিচালনা করেছে।

এয়ারলাইনস, সিভিল এভিয়েশন অথরিটি অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ হজ অফিস ঢাকা এবং সৌদি আরব সূত্রে এ তথ্য জানিয়েছে আইটি হেল্প ডেস্ক। বুলেটিনের তথ্যমতে, গত শনিবার রাত পর্যন্ত ৮৪ হাজার ৬৮৬টি ভিসা ইস্যু করা হয়েছে। সে হিসাব অনুযায়ী, সরকারি ব্যবস্থাপনার শতভাগ হজযাত্রীর ভিসা হয়েছে। আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীর ভিসার হয়েছে ৯৯ শতাংশ। তার মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় সৌদি পৌঁছেছেন ৩ হাজার ৭৪৭ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পৌঁছেছেন ৩৯ হাজার ৬৩৯ জন। 

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১৬ জুন হজ অনুষ্ঠিত হতে পারে। হজ কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারী হজ এজেন্সির সংখ্যা ২৫৯টি। হজ ফ্লাইট শুরু হয়েছে ৯ মে। শেষ ফ্লাইট পরিচালিত হবে আগামী ১০ জুন। হজযাত্রীদের প্রথম ফিরতি ফ্লাইট ২০ জুন আর শেষ ফ্লাইট ২২ জুলাই পরিচালিত হবে।

এ বছর সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় গাইডসহ হজ পালনে সৌদি আরব যাবেন ৮৫ হাজার ১১৭ জন। এর মধ্যে সরকারিভাবে নিবন্ধন করেছেন ৪ হাজার ৫২৩ জন। আর বেসরকারিভাবে নিবন্ধন করেছেন ৭৮ হাজার ৮৯৫ জন।

রেলওয়ের বেদখল থাকা জমিগুলো উদ্ধারে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ

প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৪, ১০:০১ পিএম
রেলওয়ের বেদখল থাকা জমিগুলো উদ্ধারে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ
খবরের কাগজ গ্রাফিকস

বাংলাদেশ রেলওয়ের বেদখল থাকা জমিগুলো উদ্ধারে দ্রুত কাজ শুরু করার সুপারিশ করেছে রেলপথ মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি। একই সঙ্গে নারায়ণগঞ্জে রেলের জমি উদ্ধারে প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা গ্রহণের লক্ষ্যে শামীম ওসমানকে আহ্বায়ক করে পাঁচ সদস্যের সাব-কমিটি গঠন করা হয়। এ ছাড়া প্রতিটি রেলস্টেশনে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল তৈরির গৃহীত প্রকল্প দ্রুত সময়ে শেষ করার তাগিদ দেওয়া হয়।

রবিবার (২৬ মে) সংসদ ভবনের ‘রেলপথ মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির তৃতীয় সভায় এসব সুপারিশ করা হয়। এ ছাড়া ঢাকা-কক্সবাজার রুটে আরেকটি ট্রেন যোগ করা, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে যাতায়াতকারী শাটল ট্রেনের আধুনিকায়নের এবং ট্রেনের বগি দেশে তৈরি করার সক্ষমতা যাচাইয়ে মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করা হয়। 

অন্যদিকে যেসব শর্তে ডেমো ট্রেন আমদানি করা হয়েছিল, তার যথাযথ বাস্তবায়ন না হয়ে থাকলে সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা এবং সহজ ডটকম রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তি অনুযায়ী সব শর্ত পূরণ না করায় ওই প্রতিষ্ঠানকে আর্থিক জরিমানাসহ প্রয়োজনীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়। এ ছাড়া এলজিইডি বা সড়ক ও জনপথ বিভাগের নিয়ন্ত্রণাধীন ওভারপাস, আন্ডারপাস ও রেল ক্রসিংয়ের তালিকা ও মন্ত্রণালয়ের জনবল ঘাটতির তথ্য আগামী বৈঠকে উপস্থাপনের সুপারিশ করা হয়।

এর আগে দ্বিতীয় সভার সিদ্ধান্তগুলোর বাস্তবায়ন ও অগ্রগতি, বাংলাদেশ রেলওয়ের মোট জমির পরিমাণ, রেলওয়ে কর্তৃক ব্যবহার করা জমির পরিমাণ, লিজ জমির পরিমাণ, লিজ থেকে আয়ের অর্থের পরিমাণ, লিজ গ্রহণ করা ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের তালিকা, অবৈধভাবে দখল করা জমির পরিমাণ, অবৈধ দখলদারদের তালিকা, ভূমি-সম্পর্কিত মামলার সংখ্যাসহ অন্যান্য বিষয়ে প্রতিবেদন, বাংলাদেশ রেলওয়ের মামলাগুলো পরিচালনার জন্য আইনজীবী নিয়োগের পদ্ধতি ও কর্মপরিকল্পনা সম্পর্কে প্রতিবেদন, বাংলাদেশ রেলওয়ের ট্র্যাকের ওপর দিয়ে অতিক্রম করা স্থানে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর এবং স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের ওভারপাস/আন্ডারপাস ও গেট নির্মাণ সম্পর্কে আলোচনা হয়।

বাংলাদেশ বেতারকে ভালোমানের অনুষ্ঠান প্রচারের নির্দেশ

বাংলাদেশ বেতারকে ভালোমানের অনুষ্ঠান প্রচারের নির্দেশনা দিয়েছে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি। রবিবার সংসদ ভবনে চলতি সংসদের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির তৃতীয় বৈঠক এ সুপারিশ করা হয়। 

এ ছাড়া সভায় বাংলাদেশ টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি নিয়োগের ক্ষেত্রে সংসদ সদস্যদের সুপারিশকে প্রাধান্য দেওয়ার জন্য মন্ত্রণালয়কে বৈঠকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়, বিটিভির প্রতিনিধিদের খোঁজখবর নিতে ডিসি অফিসে পত্র পাঠানো এবং তাদের জন্য ক্যামেরা সরবরাহ করতে কমিটি মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করে। এ সময় বাংলাদেশ বেতারের চলমান কার্যক্রম সম্পর্কে বিস্তারিত পর্যালোচনা করা হয় এবং ভালোমানের অনুষ্ঠান প্রচারের জন্য নির্দেশনা দেয় কমিটি।

সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলীর সভাপতিত্বে সভায় কমিটির সদস্য, তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত, সংসদ সদস্য মুহম্মদ শফিকুর রহমান, আলী আজম, আবুল কালাম মো. আহসানুল হক চৌধুরী ও মো. আবদুচ ছালাম বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। আলোচনার শুরুতে দ্বিতীয় বৈঠকের সংশোধিত আকারে কার্যবিবরণী নিশ্চিত করা হয় এবং দ্বিতীয় বৈঠকের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের অগ্রগতি সম্পর্কে পর্যালোচনা হয়।

পার্বত্যাঞ্চলে স্বাস্থ্যসেবার মান বৃদ্ধিতে মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ

তিন পার্বত্য জেলায় মেডিকেল টেকনিশিয়ান নিয়োগ, রাঙামাটি মেডিকেল কলেজকে ব্যবহার উপযোগী এবং ৩৪১টি কমিউনিটি ক্লিনিক সংস্কার, প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ ও সেবার মান বৃদ্ধির জন্য মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। 

রবিবার সংসদ ভবনে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক-সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির তৃতীয় বৈঠক এই সুপারিশ করা হয়।

এ ছাড়া পার্বত্য খাগড়াছড়ি, পার্বত্য রাঙামাটি এবং পার্বত্য বান্দরবান জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানদের পদবি উপমন্ত্রী পদমর্যাদা করতে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কমিটি কর্তৃক মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করা হয়। বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসি) মাধ্যমে তিন পার্বত্য জেলার স্থায়ী নাগরিকদের মধ্য থেকে নিয়োগদান এবং স্কুল, কলেজ নির্মাণের পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীদের আবাসিক হলের ব্যবস্থা রাখার জন্য মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করা হয়।

জলাবদ্ধতা দূর ও কৃষি খাতের উন্নয়নে খাল খননের সুপারিশ

জলাবদ্ধতা দূর করতে টিআরএম (টাইডাল রিভার ম্যানেজমেন্ট) নয় বরং খাল খননকে সফল উপায় উল্লেখ করে বালু ভরাট না করে খাল খননের মাধ্যমে কৃষি খাতের উন্নয়নে কাজ করা সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। বৈঠকে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের তৃতীয় বৈঠকের কার্যবিবরণী অনুমোদন ও অগ্রগতি সম্পর্কে আলোচনা করা হয়।

জাতীয় সংসদের পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির চতুর্থ বৈঠকে এই সুপারিশ করা হয়। সুনামগঞ্জ জেলার হাওরগুলোতে বোরো ধান শতভাগ কর্তন সম্পন্ন হয়েছে উল্লেখ করে এ বছরে হাওর অঞ্চলে ধান রোপণ হতে শুরু করে কাটা পর্যন্ত বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা নিজ কর্মক্ষেত্রে অবস্থান করে রক্ষণাবেক্ষণ কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করায় কমিটির পক্ষ থেকে বোর্ডকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করা হয়। বৈঠকে সার্ফেস ওয়াটার ধরে রাখার জন্য বাসায় বৃষ্টির পানি ধরে রাখতে প্রয়োজনে আরেকটি ট্যাংক ব্যবহার করার সুপারিশ করা হয়। 

সভায় খুলনা জেলার ভূতিয়ার বিল এবং বর্ণিল সলিমপুর কোলাবাশুখালী বন্যানিয়ন্ত্রণ ও নিষ্কাশন প্রকল্পের, টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর উপজেলাধীন লৌহজং নদীর ভাঙন থেকে কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের আওতাধীন কুমুদিনী হাসপাতাল, ভারতেশ্বরী হোমসসহ ঐতিহ্যবাহী স্থাপনাগুলো রক্ষা প্রকল্পের ও তেঁতুলিয়া নদীর ভাঙন থেকে পটুয়াখালী জেলার বাউফল উপজেলায় ধুলিয়া লঞ্চঘাট থেকে বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলার ধর্মপাশা রক্ষা প্রকল্পের অগ্রগতি-সম্পর্কিত প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। এ ছাড়া ওই প্রকল্পগুলোর কাজ দ্রুত শেষ করার তাগিদ দেওয়া হয়। 

জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কায় কক্সবাজারের আশ্রয়কেন্দ্রে ৬ হাজার মানুষ

প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৪, ০৯:৫৫ পিএম
জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কায় কক্সবাজারের আশ্রয়কেন্দ্রে ৬ হাজার মানুষ
ছবি : খবরের কাগজ

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে সমুদ্রের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। আর তাতেই তলীয়ে গেছে কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন গ্রাম। এসব গ্রামের প্রায় ৬ হাজার ৩৩২ জন নারী-পুরুষ ও শিশু আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান নিয়েছেন।

রবিবার (২৬ মে) সন্ধ্যা ৬টায় বিষয়টি খবরের কাগজকে নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রশাসক মো. শাহীন ইমরান। 

তিনি বলেন, আশ্রয় নেওয়া মানুষের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশাপাশি মেডিকেল টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে। তবে অধিকাংশ মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে আসতে অনীহা জানাচ্ছে। এখনও অনেকেই অবস্থা পর্যবেক্ষণ করছে। 

জেলা প্রশাসনের তথ্যমতে ৬৩৮টি আশ্রয়কেন্দ্র নির্ধারণ করা হয়েছে। স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে ৮ হাজার মানুষ। 

শহরের পৌর প্রিপ্যার‌্যাটরি উচ্চ বিদ্যালয় আশ্রয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়-১নং ওয়ার্ডের সমিতি পাড়া, কুতুবদিয়া পাড়া, নাজিরারটেক ও ফদনার ডেইল এলাকার মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে ছুটে আসছে। তাদের মধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যা বেশি। অনেকেই গবাদিপশুও নিয়ে এসেছেন। অনেকেই অভিযোগ করেছেন, বেলা ১২টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত খাবার খাননি।

তবে কক্সবাজার পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র সালাউদ্দিন সেতু খবরের কাগজকে বলেন, কক্সবাজার পৌরসভা ২৩টি আশ্রয়কেন্দ্র খুলেছে। সেখানে ৬ হাজার মানুষের জন্য রাতের খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। 

কক্সবাজারের সহকারী আবহাওয়াবিদ মো. আবদুল হান্নান বলেন, সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ২০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। তবে রাত ৮টার পর বৃষ্টির পরিমাণ আরও বাড়তে পারে।

তিনি আরও বলেন, ঘূর্ণিঝড় রিমাল ইতোমধ্যে উপকূলীয় এলাকায় আঘাত হেনেছে। তবে কক্সবাজারের তুলনায় এটি পটুয়াখালী, বরিশাল, খুলনা উপকূলে আঘাত হানবে বেশি।

মুহিববুল্লাহ মুহিব/এমএ/

ঈদে ঝুঁকিপূর্ণ যাত্রায় কঠোর হবে হাইওয়ে পুলিশ

প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৪, ০৯:৫৪ পিএম
ঈদে ঝুঁকিপূর্ণ যাত্রায় কঠোর হবে হাইওয়ে পুলিশ
ছবি : খবরের কাগজ

হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি মো. শাহাবুদ্দিন খান বলেছেন, ‘আসন্ন ঈদুল আজহায় যানবাহনের গতি নিয়ন্ত্রণ ও ঝুঁকিপূর্ণ যাত্রা বন্ধে কঠোর হবে হাইওয়ে পুলিশ। সে লক্ষ্যে প্রস্তুতি শুরু হয়েছে।’ 

রবিবার (২৬ মে) দুপুরে রাজারবাগ পুলিশ অডিটোরিয়ামে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন। ঈদযাত্রায় নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখার লক্ষ্যে এ সভার করা হয়।

শাহাবুদ্দিন খান বলেন, ‘ঈদযাত্রায় এবার বেশ কয়েকটি বিষয়ে কঠোর থাকবে হাইওয়ে পুলিশ। এর মধ্যে যানবাহনের ওভার স্পিড কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা ও কোনো যানবাহন নির্ধারিত গতিসীমা অতিক্রম করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক সম্পূর্ণ সিসি ক্যামেরার আওতায় নিয়ে এসেছি। ১৪২৭ সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। সার্বক্ষণিক নজরদারি রাখা হচ্ছে। এ ছাড়া সারা দেশে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হচ্ছে। হাইওয়ে পুলিশের সদস্যদের জন্য বডি অন ক্যামেরা দেওয়া হয়েছে। যাতে জবাবদিহি নিশ্চিত করা যায়।’

পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘এবারের ঈদযাত্রা হবে আনন্দ ও স্বস্তিদায়ক। সেটা নিশ্চিতে দায়িত্ব সবাইকে নিতে হবে। আমরা কেউ ঝুঁকিপূর্ণ ঈদযাত্রায় শামিল হব না।’

তিনি বলেন, ‘ঢাকা, গাজীপুর ও সাভারে ঈদের আগে গার্মেন্ট ছুটি হওয়ায় বড় ধরনের সমস্যা তৈরি হয়। আমরা এবার ড্রোন দিয়ে দেখব, কোথায় কী হচ্ছে। কোথায় জটলা লাগছে। পোশাককর্মীরা যাতে স্বস্তিতে বাড়ি যেতে বা ফিরতে পারেন, সে জন্য কারখানাগুলোর পক্ষ থেকে পরিবহন ব্যবস্থা ও যানবাহন ঠিক করতে হবে। এ ক্ষেত্রে শিল্প পুলিশ, কারখানা মালিক-শ্রমিক সবাই সহযোগী হবেন।’

অতিরিক্ত আইজিপি বলেন, ‘ঈদযাত্রায় সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ খোলা ট্রাক, পিকআপ ও যানবাহনের ইঞ্জিনে যাতায়াত। এ ক্ষেত্রে মালিক, চালক ও যাত্রীদের সচেতন হতে হবে।’

পর্যটন কর্মীদের প্রশিক্ষণে মালয়েশিয়ার সহযোগিতাকে স্বাগত জানানো হবে: বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী

প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৪, ০৯:৩২ পিএম
পর্যটন কর্মীদের প্রশিক্ষণে মালয়েশিয়ার সহযোগিতাকে স্বাগত জানানো হবে: বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী
ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পে কর্মরত কর্মীদের উন্নত প্রশিক্ষণ প্রদানের ক্ষেত্রে  মালয়েশিয়া সরকারের সহযোগিতাকে স্বাগত জানানো হবে বলে মন্তব্য করেছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মুহাম্মদ ফারুক খান।

রবিবার (২৬ মে) সচিবালয়ে মন্ত্রীর সঙ্গে তার দপ্তরে বাংলাদেশে নিযুক্ত মালয়েশিয়ার হাইকমিশনার হাজনাহ মো. হাশিম সাক্ষাৎ করতে আসলে তিনি একথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, পর্যটন শিল্পের কর্মীদের বৃত্তি প্রদানের মাধ্যমে মালয়েশিয়ার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রশিক্ষণ প্রদান করা যেতে পারে। পর্যটন শিল্পে পারস্পরিক সহযোগিতা দুই দেশের জনগণের  সম্পর্ককে আরও দৃঢ় করবে।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এবং মালয়েশিয়ার মধ্যে চমৎকার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিদ্যমান। জনশক্তি রপ্তানিসহ ব্যবসা-বাণিজ্যের বিভিন্ন ক্ষেত্রে গত ১৫ বছরে দুই দেশের সম্পর্ক বৃদ্ধি পেয়েছে। পর্যটন শিল্পের উন্নয়নেও আমাদের যৌথভাবে কাজ করার অনেক সুযোগ রয়েছে।

ফারুক খান বলেন, বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পের সম্ভাবনা অসীম। পর্যটনের এই অফুরন্ত সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশে পর্যটন শিল্প সম্পর্কিত ব্যবসায় অনেক কিছু করার সুযোগ রয়েছে। মালয়েশিয়ার পর্যটন শিল্পের অভিজ্ঞতা এবং দক্ষতা রয়েছে। তারা চাইলে তাদের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতাকে পুঁজি করে বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পে বিনিয়োগ করতে পারে। বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পের বিশাল অভ্যন্তরীণ বাজারের সুযোগ গ্রহণ করতে পারে। সরকার পর্যটন শিল্পে বিনিয়োগকারীদের সকল ধরনের সহযোগিতা প্রদান করবে।

সাক্ষাৎকালে মালয়েশিয়ার হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশে ইতোমধ্যে টেলিকমিউনিকেশনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে মালয়েশিয়ার বিনিয়োগ রয়েছে। বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পে বিনিয়োগ করার বিষয়টিও আমি সরকারের যথাযথ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করব। পর্যটন শিল্পের উন্নয়নে দুই দেশের যৌথভাবে কাজ করতে পারাটা হবে আনন্দের। এছাড়াও মালয়েশিয়া ইতোমধ্যেই বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বিষয়ে বৃত্তি প্রদান করে থাকে যার মধ্যে পর্যটন সম্পর্কিত বিষয়ও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। পর্যটন সম্পর্কিত বিষয়ে বৃত্তি যেন আরও বৃদ্ধি করা হয় সে বিষয়ে আমি চেষ্টা করবো।

হাইকমিশনার আরও বলেন, মালয়েশিয়া বাংলাদেশের জন্য একটি ভালো শ্রমবাজার। আমরা আশা করব বাংলাদেশ থেকে যে সমস্ত কর্মী মালয়েশিয়া গমন করবেন তারা যথাযথ ভিসা নিয়ে আইনানুগ প্রক্রিয়া অবলম্বন করে সেখানে যাবেন এবং আইনগতভাবে অবস্থান করবেন। কর্মীদের দক্ষতা এবং সুনাম যত বাড়বে তত বেশি এই শ্রমবাজারের ব্যবহার করতে পারবে বাংলাদেশ।

তিথি/এমএ/