ঢাকা ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪
Khaborer Kagoj

সকল অপশক্তি মোকাবিলায় ছাত্রলীগকে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে : শামীম

প্রকাশ: ০২ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৯:৫৭ পিএম
সকল অপশক্তি মোকাবিলায় ছাত্রলীগকে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে : শামীম
ছবি : খবরের কাগজ

সকল অপশক্তি মোকাবিলায় ছাত্রলীগকে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে বলে জানিয়েছেন পানিসম্পদ উপমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম।

তিনি বলেন, ‘বিএনপির জন্ম হয়েছে অবৈধ ক্ষমতা দখলকারীর হাতে। তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করলে নির্বাচনে এসে প্রমাণ করতো। ছাত্রলীগ যেকোনো দুর্যোগ-দুর্বিপাকে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। তাই যেকোনো অপশক্তির বিরুদ্ধে সজাগ থাকতে হবে। সকল অপশক্তি মোকাবিলায় ছাত্রলীগকে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে।

শনিবার (২ ডিসেম্বর) সকালে শরীয়তপুরের নড়িয়ায় দলীয় কার্যালয়ে নড়িয়া উপজেলা ও  সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘বিশ্বদরবারে বাঙালি জাতি মাথা উঁচু করে চলবে সেটিই হবে আমাদের আজকের দিনের প্রতিজ্ঞা। যে সংগঠন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গড়ে তুলেছিলেন মাতৃভাষা আদায়ের জন্য। যে সংগঠন এদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং মুক্তিযুদ্ধে অবদান রেখে গেছে। যে সংগঠন এদেশের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার পথে অগ্রণী ভূমিকা নিচ্ছে সেই সংগঠনের নামই বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। তাই ছাত্রলীগের প্রতিটি নেতাকর্মীকে ক্লিন ইমেজ নিয়ে আসন্ন নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় আনতে কাজ করতে হবে।’

এনামুল হক শামীম বলেন, ‘ছাত্রলীগের সৃষ্টিই হয়েছে চ্যালেঞ্জ সংগ্রামের মধ্যদিয়ে। সূচনা থেকে অদ্যবধি ছাত্রলীগের সব অর্জনই আকাশসম প্রতিকূলতাকে অতিক্রম করে। ছাত্রলীগ জাতির পিতার হাতে গড়া সংগঠন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মতো একজন সরকারপ্রধান পেয়ে বর্তমান প্রজন্মের শিক্ষার্থীরা সৌভাগ্যবান। আসন্ন নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনার নিরঙ্কুশ বিজয়ের পথে শিক্ষার্থী ও তরুণসমাজকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এবং একই আওয়াজ তুলে ছাত্রলীগ নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

উপমন্ত্রী বলেন, ‘অগ্নিসন্ত্রাসকারী বিএনপি ক্ষমতায় না এলেও তাদের ষড়যন্ত্র ও চন্ত্রান্ত থেমে নেই। সুতরাং এসব অপশক্তির সম্পর্কে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে নৌকার বিজয়ের বিকল্প নাই। কারণ নৌকা এগিয়ে গেলে শেখ হাসিনা এগিয়ে যায়। আর শেখ হাসিনা এগিয়ে গেলে বাংলাদেশ এগিয়ে যায়।’

নড়িয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আসাদুজ্জামান বিপ্লবের সভাপতিত্বে ও কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান খালাসীর সঞ্চালনায় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন- নড়িয়া পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মাল, সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান খোকন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য জহির সিকদার, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নুর এ আলম আশিক।

সভায় বক্তব্য রাখেন, নড়িয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম আকাশ, কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আল-আমিন প্রমূখ।

পরে এনামুল হক শামীম নড়িয়া উপজেলার ফতেজঙ্গপুর ইউনিয়নে দলীয় নেতাকর্মী ও জনসাধারণের সাথে গণসংযোগ করেন।

রাজিব হোসেন/এআর/

কালিয়াকৈরে অতিরিক্ত মদপানে দুইজনের মৃত্যু

প্রকাশ: ০২ মার্চ ২০২৪, ০৬:৪৫ পিএম
কালিয়াকৈরে অতিরিক্ত মদপানে দুইজনের মৃত্যু

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে অতিরিক্ত মদ পান করে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার (২ মার্চ) রাতে উপজেলার হরিণহাটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মারা যাওয়া দুজন হলেন, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি থানার পূর্ব বালিঘাটা গ্রামের হেলাল উদ্দিন (৪২), দিনাজপুরের বিরামপুর থানার কাদেরুল (২৮)। 

এদের মধ্যে হেলাল পেশায় কসাই ও কাদেরুল স্থানীয় একটি বেকারিতে শ্রমিকের কাজ করতেন। 

তারা দুজনই হরিণহাটি গ্রামের দুলাল উদ্দিন সরকারের বাড়ির ভাড়াটিয়া।

স্থানীয় ও তাদের স্বজনদের সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার রাতে দেশীয় মদ (বাংলা মদ) পান করে অসুস্থ হয়ে পড়েন হেলাল উদ্দিন ও কাদেরুল। পরে রাতেই তাদের মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে রাত ১টার দিকে হেলাল উদ্দিন ও দেড়টার দিকে কাদেরুল মারা যায়।

কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম নাসিম খবরের কাজকে বলেন, তারা মদ পান করেছিল। এতে বিষক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

পলাশ প্রধান/অমিয়/

গাজীপুরে ট্রেনে কাটাপড়ে নিহত ২

প্রকাশ: ০২ মার্চ ২০২৪, ০৬:০১ পিএম
গাজীপুরে ট্রেনে কাটাপড়ে নিহত ২

গাজীপুরে পৃথক স্থানে ট্রেনে কাটাপড়ে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (২ মার্চ) সকাল ৬টা থেকে ১১টার মধ্যে এই দুটি ঘটনা ঘটে।

মারা যাওয়া দুজন হলেন, নীলফামারীর ডুমুর উপজেলার মুকুটপাড়া গ্রামের হাকিমের ছেলে রাব্বানী (২৫)। তিনি স্থানীয় একটি কারখানার শ্রমিক।

তবে কোনাবাড়ি খোলাপাড়া এলাকায় মারা যাওয়া ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানান, শনিবার (২ মার্চ) সকাল ১১টার দিকে কালিয়াকৈর উপজেলার রতনপুর রেলগেট সংলগ্ন পথ দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন রাব্বানী। তার কানে হেডফোন লাগানো ছিল। এ সময় পেছন থেকে ট্রেন ধাক্কা দিলে তার দেহ ছিন্নভিন্ন হয়ে যায়। পরে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে। তিনি স্থানীয় একটি কারখানায় কাজ করতেন।

অপরদিকে, সকাল ৭টার দিকে গাজীপুর মহানগরীর কোনাবাড়ি খোলাপাড়া রেললাইনে এক যুবকের ছিন্নভিন্ন দেহ দেখতে পায় স্থানীয়রা। পরে তারা কোনাবাড়ি থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে।

কোনাবাড়ি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাইদুর রহমান খবরের কাগজকে জানান, খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে তার পরিচয় এখন নিশ্চিত হওয়া যায়নি। যেহেতু রেললাইনে লাশ পাওয়া গেছে এজন্য রেলওয়ে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়েছে।

জয়দেবপুর জংশন রেলওয়ে পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) শহিদুল ইসলাম জানান, আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে রওনা হয়েছি। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

পলাশ প্রধান/অমিয়/

মহাদেবপুরে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশ: ০২ মার্চ ২০২৪, ০৪:২৫ পিএম
মহাদেবপুরে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার
ছবি : খবরের কাগজ

নওগাঁ জেলার মহাদেবপুরে সড়কের পাশ থেকে মন্টু হোসেন (৪৫) নামে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার (২ মার্চ) সকাল ১১টার দিকে রাইগাঁ-পত্নীতলা সড়কের বিষ্ণুপুর মোড়ে রাস্তার পাশ থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। 

মন্টু মহাদেবপুর উপজেলার জোয়ানপুর গ্রামের রকিব উদ্দিনের ছেলে।

মহাদেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত)  আবুল কালাম আজাদ খবরের কাগজকে জানান, সকালে স্থানীয়রা সড়কের পাশে একটি মরদেহ দেখে থানায় খবর দেন। এরপর পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে। সুরতহালের সময় নিহতের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

শফিক ছোটন/জোবাইদা/অমিয়/

সিরাজগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনায় বোনজামাইকে কুপিয়ে হত্যা

প্রকাশ: ০২ মার্চ ২০২৪, ০৩:৩৩ পিএম
সিরাজগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনায় বোনজামাইকে কুপিয়ে হত্যা

সিরাজগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ইমরান হোসেন নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে শ্যালকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত শ্যালক রাশেদুল ইসলাম পলাতক রয়েছে।

শনিবার (২ মার্চ) ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিহত ইমরান হোসেন (৩৫) সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার রানীগ্রাম মহল্লার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে।

জানা যায়, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার (১ মার্চ) বিকেলে ইমরানকে কুপিয়ে আহত করেন শ্যালক রাশেদুল।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সদর উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়নের উত্তর সারটিয়া গ্রামে ফরিদুল ইসলামের মেয়েকে বিয়ে করে সেখানে বাড়ি করে বসবাস করতেন ইমরান হোসেন। বেশ কিছুদিন আগে শ্যালক রাশেদুল তাকে মারধর করলে তিনি থানায় অভিযোগ দেন।

এদিকে সম্প্রতি রাশেদুল ইসলামের সঙ্গে বনিবনা না হওয়ায় তার বিরুদ্ধে যৌতুক ও নারী নির্যাতন মামলা করেন তার স্ত্রী। মামলায় ওয়ারেন্ট হলে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করতে যায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যান রাশেদুল। রাশেদুল মনে করেন, তার বোনজামাইয়ের অভিযোগে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করতে এসেছে।

এরপর বাড়ি ফিরে তিনি বোনজামাই ইমরান হোসেনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করে পালিয়ে যান। স্থানীয়রা আহত ইমরানকে উদ্ধার করে প্রথমে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে রাতেই তাকে ঢাকা মেডিকেলে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎিসাধীন অবস্থায় শনিবার ভোরে ইমরানের মৃত্যু হয়।

তার মৃত্যুর খবরে স্বজনরা রাশেদুলের বাড়িঘর ভাঙচুর করেন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, তার লাশ ঢাকা মেডিকেলের মর্গে আছে। সেখানেই তার ময়নাতদন্ত হবে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি।

সিরাজুল ইসলাম/ইসরাত চৈতি/অমিয়/

হ্নীলা থেকে দেখা যাচ্ছে মায়ানমারের কালো ধোঁয়া

প্রকাশ: ০২ মার্চ ২০২৪, ০১:১৬ পিএম
হ্নীলা থেকে দেখা যাচ্ছে মায়ানমারের কালো ধোঁয়া
ছবি : খবরের কাগজ

মায়ানমারের রাখাইনে জান্তা বাহিনী এবং সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান আর্মির মধ্যে সংঘর্ষ চলছে। কিন্তু এই সংঘর্ষের রেশ উড়ে আসছে কক্সবাজার সীমান্তে। টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়ন ও হ্নীলা ইউনিয়নের সীমান্ত এলাকার স্থানীয় লোকজন কালো ধোঁয়া দেখতে পাচ্ছেন। কিছুদিন বন্ধ থাকলেও ফের কয়েকদিন ধরে মর্টারশেলের ভারী আওয়াজের কারণে সীমান্ত এলাকায় লোকজন আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন।

শনিবার (২ মার্চ) টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের চৌধুরীপাড়ার পূর্বে মায়ানমারে কালো ধোঁয়া দেখতে পায় স্থানীয়রা।

হ্নীলার সাবেক ছাত্রলীগ নেতা তারেক মোহাম্মদ রনি বলেন, ‘গতকাল বড় বড় মর্টারশেলের বিকট শব্দে কেঁপে উঠছে সীমান্তবর্তী এলাকার বাড়িঘর। শনিবার সকালে আমরা হাঁটার জন্য বের হই, হঠাৎ চোখে পড়ে হ্নীলা চৌধুরীপাড়ার পূর্বে মায়ানমার বলি বাজার নামক এলাকার সীমান্তে আগুনের কালো ধোঁয়া। ধারণা করা হচ্ছে, আরাকান আর্মি মায়ানমারে ঘাঁটি দখল করেছে।’

হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদ মোহাম্মদ বলেন, ‘মায়ানমারের ওপারে গতকাল (শুক্রবার) সারা রাত থেমে থেমে চলছিল মর্টারশেল ও গোলাগুলি। সকালেও সেটি থেমে থেমে চলমান ছিল। হ্নীলা চৌধুরীপাড়ার পূর্বে মায়ানমারে কালো ধোঁয়া দেখা যায়। বলতে পারছি না কখন শেষ হবে এ সংঘাত। দিন দিন আরও বাড়ছে, এর প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে। মানুষ সব সময় আতঙ্কে রয়েছে।’

টেকনাফ-২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘সীমান্তে অবৈধ অনুপ্রবেশ ও মাদক পাচার রোধসহ যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিজিবি সদস্যরা সব সময় সতর্ক অবস্থায় রয়েছে এবং সীমান্ত নিরাপদে রাখতে বিজিবি রাত-দিন কাজ করছে।’

শাহীন/জোবাইদা/অমিয়/