ঢাকা ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০, বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Khaborer Kagoj

একই কলেজের ২ শহিদ মিনার ভাঙচুর

প্রকাশ: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৭:৫৪ পিএম
একই কলেজের ২ শহিদ মিনার ভাঙচুর
ছবি : খবরের কাগজ

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার বাবুখালী আদর্শ কলেজের দুই শহিদ মিনার ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। গত সোমবার মধ্যরাতে এই ঘটনা ঘটে। 

মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

কলেজের নৈশপ্রহরী আব্দুর রউফ জানান, রাতে তিনি কলেজ পাহারার দায়িত্বে ছিলেন। রাত ১টার দিকে শব্দ শুনতে পেয়ে তিনি শহিদ মিনারের দিকে যাচ্ছিলেন। ওই সময় তিনি শহিদ মিনারের কাছে আবুল মৃধা ও তার ছেলে মিজানুর মৃধাসহ সাত-আটজনকে দেখতে পান। তারা তাকে (নৈশপ্রহরী) ধমক দিয়ে ‘চলে যেতে বলেন।’ ভয় পেয়ে আব্দুর রউফ কলেজের ভেতরে চলে যান। কিছু সময় পর বের হয়ে তিনি দেখেন, পুরোনো শহিদ মিনারের দুইটি পিলার ভেঙে ফেলা হয়েছে। এ ছাড়া নির্মাণাধীন নতুন শহিদ মিনারের টাইলসের কিছু অংশ ভাঙা। 

বাবুখালী আদর্শ কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ দিলীপ সরকার বলেন, “রাতে নৈশপ্রহরী আমাকে ফোন দিয়েছিল। আমি ফোন ধরতে পারিনি। সকালে কলেজে এসে দেখি শহিদ মিনার ভাঙা অবস্থায় আছে। নৈশপ্রহরী আমাকে জানিয়েছে ‘আবুল মৃধা ও মিজানুর মৃধাসহ সাত-আটজনকে দেখতে পেয়েছে’।” 

শহিদ মিনার ভাঙার ঘটনায় মিজানুর রহমান মৃধাকে ফোন করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে তিনি তার ফেসবুক পেজে এই ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়ে লেখেন, ‘আজ বেলা সাড়ে ১১টার সময় ফেসবুকের মাধ্যমে জানতে পারলাম, বাবুখালী আদর্শ কলেজের শহিদ মিনার কে বা কারা ভেঙে ফেলেছেন, আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রকৃত দোষীদের শাস্তি চাই।’ 

“কিছুক্ষণ পরে আবার ফেসবুকে দেখতে পারি, কলেজের নাইটগার্ড আব্দুর রউফ সাংবাদিকদের বলছেন, ‘রাত ১২টা ৪৫ মিনিটে একটা শব্দ শুনে ঘর থেকে বেরিয়ে দেখি, আবুল মৃধা ও মিজানুর মৃধা শহিদ মিনার ভেঙে পালিয়ে যাচ্ছে।’ এই বক্তব্য সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই। কারণ কলেজ মার্কেটে থাকা আমার একটা দোকানটা ভাঙা হয়েছিল। ওই ঘটনায় আমি একটা মামলা করেছি। সেই মামলার ৫ নম্বর আসামি আব্দুর রউফ মৃধা।”

মহম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বোরহান উল ইসলাম বলেন, ‘কলেজের জায়গায় লিজ নিয়ে দোকান নির্মাণকে কেন্দ্র করে বেশ কিছুদিন ধরে কলেজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে মিজানুর মৃধার ঝামেলা চলছে। এ ঘটনায় একটি মামলাও করেছেন মিজানুর মৃধা। তাই শহিদ মিনার ভাঙচুর করে মিজানুর মৃধাদের নামে দোষ চাপাচ্ছে কি না অথবা এই ঘটনার সঙ্গে মিজানুর মৃধাসহ অন্য কেউ জড়িত আছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ড : দগ্ধ আরও এক শিশুর মৃত্যু

প্রকাশ: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০১:২১ পিএম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ড : দগ্ধ আরও এক শিশুর মৃত্যু
ছবি: সংগৃহীত

নোয়াখালীর ভাসানচরের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ আরও এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। 

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে সোহেল (৫) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়। এ নিয়ে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দগ্ধ হয়ে চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন চার শিশুর মৃত্যু হলো।

বর্তমানে হাসপাতালটিতে চিকিৎসাধীন রয়েছে এক শিশু ও দুই নারী। তারা হলেন- জোবায়দা (২২), রোসমিনা (৫), আমেনা খাতুন (২৪)।

চমেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম আহসান বলেন, ‘সোহেল নামে আরও এক শিশু পিআইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। তার শরীরের ৫২ শতাংশ দগ্ধ হওয়াসহ শ্বাসনালি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল।’

এর আগে শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় ভাসানচরে দগ্ধ ৫ শিশুসহ ৭ জনকে চমেক হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাসেল নামে তিন বছর বয়সী এক শিশুকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ছাড়া গত সোমবার ভোরে মোবাশ্বেরা ও সন্ধ্যায় রবি আলম নামে আরও দুই শিশু মারা যায়।

উল্লেখ্য, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি সকালে নোয়াখালীর ভাসানচরের রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ৮১ নম্বর ক্লাস্টারে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দুই পরিবারের ৯ জন দগ্ধ হন। এর মধ্যে সাতজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়। আহতদের চমেক হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছিল।

ইসরাত চৈতি/

মসিক নির্বাচন: প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় খাদ্য কর্মকর্তা

প্রকাশ: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২:১৩ পিএম
মসিক নির্বাচন: প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় খাদ্য কর্মকর্তা
ছবি : খবরের কাগজ

ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন (মসিক) নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় নেমেছেন জামালপুর সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জিন্নাত শামসুন্নাহার রুমা। এতে ভোটার ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও আলোচনা-সমালোচনা সৃষ্টি হয়েছে। 

এই খাদ্য কর্মকর্তা মেয়র পদে সাদেকুল হক খান মিল্কী টজুর হাতি প্রতীকে ভোট চেয়ে প্রচারণা চালিয়েছেন। এ ছাড়া তিনি নগরীর ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী ঠেলাগাড়ি প্রতীকের শরাফ উদ্দিনের পক্ষে অবস্থান নিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন।

৩২ নম্বর ওয়ার্ডের চর কালিবাড়ী এলাকার বাসিন্দা বয়োবৃদ্ধ শামসুল আলম বলেন, ‘জীবনে অনেক নির্বাচন দেখেছি, তবে কখনো সরকারি কর্মকর্তাকে প্রকাশ্যে প্রচারণায় অংশ নিতে দেখিনি। ওই খাদ্য কর্মকর্তার প্রচারণা দেখে অন্য যেকোনো সরকারি কর্মকর্তারাও নির্বাচনে প্রকাশ্যে প্রচারণা চালাতে পারে। তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।’

১৬ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘ওই নারী কর্মকর্তা সরকারি চাকরি করে কারও পক্ষে অবস্থান নিতে পারেন না। এটি অনেক ভোটাররা ভালো চোখে দেখছে না।’

প্রার্থীদের জন্য প্রচারণায় অংশ নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে জিন্নাত শামসুন্নাহার রুমা বলেন, ‘ওই প্রার্থীরা আমার পছন্দের লোক, এমনকি আমার আত্মীয়ও হতে পারে। তাই তাদের জন্য কারও কাছে ভোট চাইতেই পারি। আমার চাকরি ঠিক রেখে সবকিছু করছি।’
 
ময়মনসিংহ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সফিকুল ইসলাম বলেন, ‘কোনো সরকারি কর্মকর্তা কারও পক্ষ নিয়ে নির্বাচনে প্রচারণায় নামতে পারবেন না। সেই বিষয়ে সুস্পষ্ট আইন রয়েছে। এ বিষয়ে অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এ বিষয়ে ময়মনসিংহের আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক আবু নাঈম মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, ‘সরকারি চাকরি করে নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তবে এলাকার কেউ প্রার্থী হলে তার পক্ষে সমর্থন থাকতে পারে। প্রকাশ্যে প্রচারণায় নামা যাবে না। খোঁজখবর নিয়ে ঘটনার সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

কামরুজ্জামান মিন্টু/জোবাইদা

বাগেরহাট জেলা শহিদ মিনার নেই ১২৪০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে

প্রকাশ: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১:৫৯ এএম
শহিদ মিনার নেই ১২৪০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে

বাগেরহাটের ১ হাজার ২৪০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভাষাশহিদদের স্মরণে এখনো নির্মাণ করা হয়নি শহিদ মিনার। যদিও সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী দেশের প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার থাকা বাধ্যতামূলক। সরকারি এ নির্দেশনা মানা হচ্ছে না জেলার অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। ফলে একুশে ফেব্রুয়ারিতে ফুল দিয়ে শহিদদের শ্রদ্ধা নিবেদন করতে পারছেন না শিক্ষার্থীরা। এদিকে যেসব প্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার রয়েছে, সেগুলোও সারা বছর পড়ে থাকে অযত্নে-অবহেলায়।

জেলায় সরকারি-বেসরকারি মিলে ২৮২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৪০টি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১১টি স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ১১২টি মাদ্রাসা ও ১ হাজার ১৬২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় আছে। জেলায় সব মিলিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ১ হাজার ৬০৭টি। এর মধ্যে ১ হাজার ২৪০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার ও স্মৃতিস্তম্ভ নেই। স্বাধীনতার প্রায় ৫৩ বছরেও এসব প্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার না হওয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, বাগেরহাটে মোট ৯টি উপজেলায় ১ হাজার ১৬২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আছে। এর মধ্যে ২৪০টিতে শহিদ মিনার ও স্মৃতিস্তম্ভ নেই। প্রতিটি বিদ্যালয় শহিদ মিনার ও স্মৃতিস্তম্ভ তৈরিতে সরকারিভাবে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

জেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ঘুরে দেখা যায়, প্রাথমিক পর্যায়ে ৮০ ভাগ স্কুলে শহিদ মিনার নেই। অধিকাংশ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার নেই। এর মধ্যে কোনো মাদ্রাসাতেই নেই শহিদ মিনার। বেশির ভাগ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার না থাকার কারণ অনুসন্ধানে জানা গেছে, বিদ্যালয়গুলোয় শহিদ মিনার নির্মাণে অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয় না।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মু. শাহ আলম বলেন, ‘কিছু কিছু বিদ্যালয়ে স্থায়ী শহিদ মিনার আছে। সরকারিভাবে জেলার প্রতিটি স্কুলে শহিদ মিনার তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। একই নকশায় প্রতিটি স্কুলে শহিদ মিনার তৈরি করার জন্য সরকারিভাবে আমাদের কাছে স্কুলের হিসাব চাওয়া হয়েছে। আমরা আমাদের জেলার হিসাব দিয়েছি।’

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এস এম ছায়েদুর রহমান বলেন, ‘প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিজস্ব উদ্যোগে শহিদ মিনার তৈরি করার জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে।’ জেলা প্রশাসক মো. খালিদ হোসেন বলেন, ‘শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার থাকলে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ভাষার প্রতি ভালোবাসা ও ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পারে। জেলার যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার নেই, সেসব প্রতিষ্ঠানে তা নির্মাণে বিভিন্ন বরাদ্দের মাধ্যমে সহযোগিতা করা হবে।’

খাল কেটে মাটি বিক্রির অভিযোগ ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে

প্রকাশ: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১:৫৬ এএম
খাল কেটে মাটি বিক্রির অভিযোগ ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে
ফরিদপুরের সালথায় স্থানীয় ইউপি সদস্য ফরিদ হোসেন খালের মাটি ইটভাটায় বিক্রি করছেন। খবরের কাগজ

ফরিদপুরের সালথায় স্থানীয় ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে পেঁয়াজ খেতের মধ্য দিয়ে খাল খনন করে ইটভাটায় মাটি বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার যদুনন্দী ইউনিয়নের খারদিয়া ছয়আনি গ্রামের আশ্রয়ণ প্রকল্পের সামনে দিয়ে এই খাল খনন করা হয়েছে। এ ছাড়া একটি মেহগনির বাগানের ভেতর দিয়েও খাল খনন করা হয়েছে। এতে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বেশ কয়েকজন কৃষক। 

জানা যায়, এই স্থানে একটি সরকারি খাল ছিল। খালটি ভরাট হয়ে যাওয়ায় কৃষকরা সেখানে পেঁয়াজ চাষ করে আসছেন। তবে বর্তমানে খালটি সরকারি কোনো প্রকল্পের মাধ্যমে কাটা হয়নি। ইউপি সদস্য মো. ফরিদ হোসেন মাটি বিক্রি করার জন্য ব্যক্তিস্বার্থে খাল কেটেছেন। 

সরেজমিনে দেখা যায়, খারদিয়া ছয়আনি আশ্রয়ণ প্রকল্প থেকে বলতলা এলাকা পর্যন্ত পেঁয়াজ খেত ও মেহগনি বাগানের ভেতর দিয়ে ভেকু মেশিনের মাধ্যমে একটি খাল খনন করা হয়েছে। ভেকুর তাণ্ডবে নষ্ট হয়েছে কয়েক বিঘা জমির পেঁয়াজের চারা। উপড়ে ফেলা হয়েছে একটি বাগানের কয়েকটি মেহগনি গাছ। পাশেই কৃষি জমিতে খনন করা হয়েছে আরেকটি পুকুর। 

স্থানীয় কৃষকরা জানান, পেঁয়াজ খেত ও বাগানের ভেতর দিয়ে খাল কাটার নামে মাটি কেটে ইটভাটাসহ বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করেছেন যদুনন্দী ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ফরিদ হোসেন। মাটি খালের দুই পাড়ে না ফেলে বিক্রি করে দেওয়ায় ওই খাল কৃষকের কোনো উপকারে আসবে না। বরং বৃষ্টি হলে খালের দুই পাশের কৃষিজমির মাটি ভেঙে খাল ভরাট হয়ে যাবে। 

তারা আরও জানান, খাল খননের মাটি অবৈধ ট্রলি গাড়িতে করে আনা-নেওয়া করায় কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত স্থানীয় পাকা সড়কগুলো নষ্ট হয়েছে। ফসলসহ পাকা সড়কের ব্যাপক ক্ষতি হলেও স্থানীয়ভাবে ওই ইউপি সদস্য প্রভাবশালী হওয়ায় তার ভয়ে কেউ মুখ খোলেনি।

এ বিষয় অভিযুক্ত ইউপি সদস্য মো. ফরিদ হোসেন মোবাইল ফোনে বলেন, ‘জনস্বার্থে খালটি কাটা হয়েছে।’ 

তবে সরকারি কোনো প্রকল্পের মাধ্যমে খাল কেটে মাটি বিক্রি করছেন কি না, এমন প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে তিনি ফোন কেটে দেন। এরপর আর ফোন রিসিভ করেননি।

যদুনন্দী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আলমগীর হোসেন মিয়া বলেন, ‘ওখানে একটি সরকারি খাল ছিল। খালটি ভরাট হয়ে যাওয়ায় কৃষকরা সেখানে পেঁয়াজ চাষ করে আসছেন। তবে বর্তমানে খালটি সরকারি কোনো প্রকল্পের মাধ্যমে কাটা হয়নি। ইউপি সদস্য ফরিদ হোসেন মাটি বিক্রি করার জন্য ব্যক্তিস্বার্থে খাল কেটেছে বলে জানতে পেরেছি। যে কারণে খালের পাড় বাঁধা হয়নি। ফলে খালটি জনগণের দশ পয়সার উপকারে আসবে না।’

যদুনন্দী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘এই খাল কাটার ব্যাপারে আমি কিছু জানি না। কোনো প্রকল্পের মাধ্যমে খাল কাটা হচ্ছে না, সেটাও জানি না। তবে শুনেছি খাল কেটে মাটি বিক্রি করা হচ্ছে।’

সালথা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আনিছুর রহমান বালী বলেন, ‘সরকারিভাবে খালটি কাটা হয়নি। কেউ আমার অনুমতিও নেয়নি। আমি এই বিষয় কিছু জানিও না। খোঁজখবর নিয়ে দেখা হবে।’

ফরিদপুরে নৌকায় ভেজানো চিতই পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত

প্রকাশ: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১:৫২ এএম
ফরিদপুরে নৌকায় ভেজানো চিতই পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত
ছবি: খবরের কাগজ

ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার সদরবেড়া গ্রামে তিন দিনব্যাপী ব্যতিক্রমধর্মী নৌকায় ভিজানো চিতই পিঠার উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) থেকে শুরু হওয়া এ উৎসব শেষ হয় মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) মধ্য রাতে।

ওই এলাকার তপন সাধু তার বাড়িতে তিন দশক ধরে এ আয়োজন করে আসছেন। তিনি তপন ওঝা নামেও পরিচিত। ষাটোর্ধ্ব তপন ফকিরের পরিচিতি আছে চিতই পিঠা মেলার আয়োজন করার জন্য।

জানা যায়, নিজ এলাকায় প্রায় তিন যুগ ধরে দুধ-গুড়ের রসে ভেজানো চিতই পিঠা উৎসবের আয়োজন করছেন তপন ফকির। এই উৎসবে তৈরি সব পিঠাই ভেজানো হয় নৌকায়। এই পিঠা উৎসব এলাকায় একটা ঐতিহ্য সৃষ্টি করেছে। এবারের পিঠা উৎসব শুরু হয় রবিবার থেকে যা চলে মঙ্গলবার পর্যন্ত।

সরেজমিন দেখা যায়, ২০টি মাটির চুলায় মাটির পিঠার ছাঁচে গ্রামের বেশ কয়েকজন নারী তৈরি করছেন চিতই পিঠা। পাশেই বড় বড় পাতিলে জ্বাল দেওয়া হচ্ছে দুধ, আরেকটিতে ফুটানো হচ্ছে খেজুরের রস। উঠানের মাঝখানে রাখা হয়েছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও রং করা একটি নৌকা। নৌকার মাঝখানে পলিথিন বিছানো, কিনারে লাগানো আছে কয়েকটি লাল নিশান। ফুল দিয়ে সাজিয়ে রাখা আছে একটি বৈঠা। এই উৎসবকে ঘিরে অনেক দোকানি পসরা সাজিয়েছেন রংবেরঙের নানা খেলনা, জিনিসপত্র, খাবার আর আচার দিয়ে। পিঠা তৈরিতে ব্যস্ত গ্রামের নারীরা।

তপন ফকির জানান, প্রায় তিন যুগ ধরে চলছে তার এ দুধ-গুড়ে ভেজানো চিতই পিঠার মেলা। প্রতি বছর মাঘ মাসের পূর্ণিমার রাতে শুরু হয় এই উৎসব। তিন দিন ধরে নৌকার মধ্যে দুধ-খেজুরের রসে ভিজিয়ে চিতই পিঠা এলাকাবাসী ও ভক্তদের খাওয়াতে হবে। তপন ফকিরের বিশ্বাস, এতেই বাড়বে দৈবশক্তি। 

তপনের ভাষায়, সেই বিশ্বাস থেকে প্রতি বছর এ সময় তিনি গ্রামবাসী ও ভক্তদের নৌকায় ভেজানো দুধ চিতই পিঠা খাওয়ানোর আয়োজন করে আসছেন।

জানা গেছে, তপন ফকিরের এই পিঠা উৎসব পরিচিত দুধ চিতইয়ের মেলা নামে। প্রতিদিন সন্ধ্যায় শুরু হয় পিঠা খাওয়ার আয়োজন। সন্ধ্যার পর পাতিলে দুধ আর খেজুরের রস মিশিয়ে ঢেলে দেওয়া হয় নৌকায়। এর মধ্যে ডুবিয়ে দেওয়া হয় চিতই পিঠা। বাটিতে তুলে পরিবেশন করা হয় ভক্ত ও দর্শনার্থীদের মাঝে। 

লিয়াকত নামে একজন বলেন, ‘প্রতিদিন মেলায় প্রায় ৫ মণ দুধ, ১ মণ খেজুরের রস এবং ১০ হাজার পিস চিতই পিঠা ভেজানো হয়। সন্ধ্যার পর থেকে শুরু হয় খাওয়া, চলে গভীর রাত পর্যন্ত। প্রতিদিন আয়োজনের পিঠা শেষ হয়ে যায়।’

উৎসব দেখতে স্থানীয়রা ছাড়াও দূর-দূরান্ত থেকে অসংখ্য মানুষ ভিড় করে।

তালমা বাজারের ব্যবসায়ী গোপাল বলেন, ‘তপন সাধুর বাড়িতে পিঠা খাওয়ার এরকম আয়োজন গত তিন দশক ধরে হয়ে চলছে। ‌অনেকে তার কাছে এসে ভালো হয়ে যায়। আমরা যতদূর জানি তিনি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন আয়োজন করে পিঠা খাওয়ান মানুষকে।’

ওই গ্রামের বাসিন্দা হারুন বলেন, ‘আমরা প্রতি বছর এখানে পিঠা খেতে আসি। একদম গরম ভেজানো পিঠা। খুবই সুস্বাদু খেতে।’

তালমা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল হোসেন বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে দেখে আসছি তিন দিনব্যাপী এই পিঠা উৎসবের আয়োজন করা হয়। স্থানীয়রা ছাড়াও দূর-দূরান্ত থেকে অসংখ্য মানুষ আসেন এই পিঠা উৎসবে যোগ দিতে।’

সঞ্জিব দাস/সাদিয়া নাহার/