ঢাকা ১০ আষাঢ় ১৪৩১, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪

মা হলেন ইয়ামি গৌতম

প্রকাশ: ২১ মে ২০২৪, ১২:৫৫ পিএম
আপডেট: ২১ মে ২০২৪, ১২:৫৫ পিএম
মা হলেন ইয়ামি গৌতম

ছেলের মা হলেন বলিউড তারকা ইয়ামি গৌতম। গতকাল সোমবার সকালে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সন্তান জন্মের খবর জানিয়েছেন তিনি। ছেলের নাম রেখেছেন বেদাবিদ। গত ১০ মে জন্মেছে সে। ‘আর্টিকেল ৩৭০’ ছবির ট্রেইলার অবমুক্তির সময় অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার খবর জানিয়েছিলেন ইয়ামি। এরপর একদিকে সিনেমার মুক্তি ও দর্শক প্রতিক্রিয়া উদযাপন করেছেন, অন্যদিকে অপেক্ষা করছিলেন মা হওয়ার। অবশেষে ইয়ামি ও আদিত্যের ঘরে এল নতুন অতিথি।

ইয়ামি-আদিত্যর ছেলে বেদাবিদের নামটি দারুণ অর্থপূর্ণ। সংস্কৃত শব্দ বেদাবিদের ‘বেদ’ হচ্ছে পুরাণ, আর ‘বিদ’ অর্থ জ্ঞানী। নামটির অর্থ দাঁড়ায় ‘বেদ’-এ যার অগাধ জ্ঞান। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ভগবান বিষ্ণুকে বলা হয় বেদ-এ অগাধ জ্ঞানের অধিকারী।

ইনস্টাগ্রামে মা-সন্তানের সুদৃশ্য গ্রাফিক ছবিসহ পোস্টে ইয়ামি লিখেছেন, ‘আমরা যখন অভিভাবকত্বের চমৎকার যাত্রাটা শুরু করি, তখন অধীর আগ্রহে সন্তানের এক উজ্জ্বল ভবিষ্যতেরও প্রত্যাশা করি। জীবনের প্রতিটি মাইলফলক স্পর্শ করার পাশাপাশি আমরা প্রত্যাশা ও বিশ্বাস করি, পরিবারের পাশাপাশি আমাদের সন্তান  জাতির জন্য গর্বের আলোকবর্তিকা হয়ে উঠবে।’ ইয়ামি তার পোস্টে যে হাসপাতালে ছেলের জন্ম হয়েছে, সেখানকার চিকিৎসকদেরও ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

জাহ্নবী

ভক্তকে খুন করে কারাগারে

প্রকাশ: ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩৯ পিএম
আপডেট: ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩৯ পিএম
ভক্তকে খুন করে কারাগারে

এক ভক্তকে নৃশংসভাবে খুন করে কারাগারে গেছেন ভারতের কন্নড় সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেতা দর্শন থুগুদিপা। ধারণা করা হচ্ছে, তার প্রেমিকা কন্নড় অভিনেত্রী পবিত্র গৌড়াকে ইনস্টাগ্রামে আপত্তিকর মেসেজ পাঠানোয় ক্ষুব্ধ হয়ে ওই ভক্তকে খুন করেন অভিনেতা।

ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, গত ৯ জুন বেঙ্গালুরুর এক নালা থেকে রেণুকা স্বামী নামের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। কর্ণাটকের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে তাকে নৃশংসভাবে খুন করে ওই নালায় ফেলে খুনিরা। হত্যার তদন্তে বেরিয়ে আসে দর্শনের সম্পৃক্ততা। গত ১২ জুন তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। যদিও অভিযোগকে ভিত্তিহীন দাবি করেছেন দর্শনের আইনজীবী।

দর্শন ৬০টির বেশি সিনেমায় অভিনয় করেছেন। গড়ে ২০০ থেকে ২৫০ মিলিয়ন রুপি পারিশ্রমিক নেন তিনি। এর আগে তার নামে নির্যাতনের মামলা করেছিলেন স্ত্রী বিজয়ালক্ষ্মী।

জাহ্নবী

সংগীতে রুনা লায়লার ৬ দশক

প্রকাশ: ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩৭ পিএম
আপডেট: ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩৭ পিএম
সংগীতে রুনা লায়লার ৬ দশক

ভারতীয় উপমহাদেশের জীবন্ত কিংবদন্তি কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লা। তার গাওয়া গানে কয়েক প্রজন্মের শ্রোতারা বুঁদ হয়ে আছেন। খ্যাতিমান এই শিল্পী সংগীত জীবনের ছয় দশক পূর্ণ করলেন আজ। বিগত এই দশকগুলোয় বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানসহ অনেক দেশের শ্রোতাদের মুগ্ধ করেছেন গানে গানে। দীর্ঘ এই ক্যারিয়ারে কখনোই তিনি গান থেকে দূরে থাকেননি।

গান গাওয়ার পাশাপাশি সুরকার হিসেবেও রয়েছে তার দক্ষতা। রুনা লায়লা জানান, সিনেমার গানে তার যাত্রা শুরু হয় ১৯৬৪ সালের ২৪ জুন। বাংলাদেশ-পাকিস্তানের যৌথ প্রযোজনার সিনেমা ‘জুগনু’ সিনেমাতে ‘গুড়িয়া সি মুন্নি মেরি ভাইয়া কী পেয়ারি’ গানটি গাওয়ার মধ্য দিয়ে। ছবিতে অভিনয় করেছিলেন শওকত আকবর, খলিল, শর্মিলী আহমেদ প্রমুখ। গানটি লিখেছিলেন তিসনা মেরুতি, সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছিলেন মানজুর।

১৯৬৪ সালের ২৪ জুন মাত্র ১২ বছর বয়সে ‘জুগনু’ সিনেমার গানটিতে কণ্ঠ দেন রুনা লায়লা। সেই হিসাবে আজ তিনি পেশাগতভাবে তার সংগীতজীবনে ৬০ বছর পূর্ণ করেছেন। আশরাফ আলী খান প্রযোজিত সিনেমাটি পরিচালনা করেছিলেন মামনুন খান। এই সিনেমাতে রুনা লায়লার বড় বোন দীনা লায়লাও গান গেয়েছিলেন। সিনেমাটি মুক্তি পায় ১৯৬৮ সালের ২৯ মার্চ।

সেই থেকে রুনা লায়লার পথচলা শুরু। এরপর পাকিস্তানের আরও অনেক চলচ্চিত্রের গানে কণ্ঠ দিয়েছেন নন্দিত এই শিল্পী। যার মধ্যে ‘হাম দোনো’, ‘রিশতা হ্যায় পেয়ার কা’, ‘আন্দালিব’, ‘নসীব আপনা আপনা’, ‘দিল অউর দুনিয়া’, ‘উমরাও জান আদা’, ‘আনমোল’, ‘নাদান’, ‘দিলরুবা’ সিনেমার গানগুলো উল্লেখযোগ্য।

মুক্তিযুদ্ধের আগেই রুনা লায়লা প্রথম বাংলাদেশের সিনেমায় প্লে-ব্যাক করেন। বাংলাদেশের সিনেমায় তার গাওয়া প্রথম গানটি ছিল ‘গানেরই খাতায় স্বরলিপি লিখে’। এই গানটি আজও জনপ্রিয়। ১৯৭০ সালের ২৯ মে মুক্তিপ্রাপ্ত নজরুল ইসলাম পরিচালিত সিনেমা ‘স্বরলিপি’ সিনেমার জন্য গানটি লিখেছিলেন প্রখ্যাত গীতিকার গাজী মাজহারুল আনোয়ার, সুর করেছিলেন সুবল দাস। গানে ঠোঁট মিলিয়েছিলেন চিত্রনায়িকা ববিতা।

প্রথম প্লে-ব্যাকেই ব্যাপক সাড়া ফেলেন রুনা লায়লা। এরপর বাংলাদেশের সিনেমার গানে তার কণ্ঠের চাহিদা বেড়ে যায়। ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশে এসে তিনি একে একে ‘জীবন সাথী’, ‘টাকার খেলা’, ‘জিঘাংসা’, ‘আলো তুমি আলেয়া’, ‘লাভ ইন সিমলা’, ‘প্রতিনিধি’, ‘কাজল রেখা’, ‘রং বেরং’, ‘দি রেইন’, ‘জাদুর বাঁশি’, ‘সুন্দরী’, ‘দি ফাদার’, ‘কসাই’, ‘দেবদাস’, ‘অ্যাকসিডেন্ট’, ‘চাঁদনী’, ‘দোলনা’, ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’, ‘অন্ধপ্রেম’, ‘দোলা’, ‘অন্তরে অন্তরে’, ‘বিক্ষোভ’, ‘প্রিয়া তুমি সুখী হও’, ‘পাঙ্কু জামাই’, ‘দুই দুয়ারী’সহ আরও অসংখ্য সিনেমা সিনেমায় গান গেয়েছেন রুনা লায়লা।

সিনেমার পাশাপাশি তার গাওয়া অনেক আধুনিক গানও জনপ্রিয় হয়েছে। যার মধ্যে বিশেষভাবে উল্লেখ্য হচ্ছে ‘যখন থামবে কোলাহল’, ‘পাখি খাঁচা ভেঙ্গে উড়ে গেলে’, ‘বন্ধু তিন দিন তোর’, ‘পান খাইয়া ঠোঁট লাল করিলাম’, ‘প্রতিদিন তোমায় দেখি সূর্যর আগে’, ‘ভাষার জন্য যারা দিয়ে গেছো প্রাণ’, ‘শেষ করোনা শুরুতে খেলা’ ইত্যাদি।

‘দি রেইন’, ‘জাদুর বাঁশি’, ‘অ্যাকসিডেন্ট’, ‘অন্তরে অন্তরে’, ‘দেবদাস’, ‘প্রিয়া তুমি সুখী হও’, ‘তুমি আসবে বলে’ সিনেমার গানের জন্য সেরা গায়িকা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন তিনি। রুনা লায়লা ‘একটি সিনেমার গল্প’ সিনেমাতে প্রথম সুরকার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। তার সুর করা গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছিলেন আঁখি আলমগীর। গানটি লিখেছিলেন গাজী মাজহারুল আনোয়ার। প্রথম গানেই সুরকার হিসেবে তিনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন তার স্বামী প্রযোজক, পরিচালক, অভিনেতা আলমগীর।

এরপর রুনা লায়লার সুরে বেশ কয়েকটি আধুনিক গানে কণ্ঠ দেন আঁখি আলমগীর, লুইপা, হৈমন্তী। রাজা ক্যাশেফের সংগীতায়োজনে গানগুলো ধ্রুব মিউজিক স্টেশন’ থেকে প্রকাশিত হয়। পরবর্তী সময়ে রুনা লায়লার সুর করা গানে কণ্ঠ দেন ভারতের খ্যাতিমান শিল্পী আশা ভোসলে, হরিহরণ, আদনান সামী, রাহাত ফতেহ আলী খান। রুনা লায়লা জানান, এখনো তিনি নতুন নতুন গানের সুর করছেন নতুন পরিকল্পনা নিয়ে।

১৯৮২ সালে ‘হিজ মাস্টার ভয়েজ’ থেকে বাপ্পী লাহিড়ীর কম্পোজিশনে প্রকাশ পায় ‘সুপার রুনা’ অ্যালবামটি। এই অ্যালবামের ‘শোনো শোনো মেরি ইয়ে কাহানি’, ‘হাইয়া হো’, ‘দে দে পেয়ার দে’ গানগুলো শ্রোতা মহলে ব্যাপক সাড়া ফেলে। রুনা লায়লা হিন্দি সিনেমাতেও প্লে-ব্যাক করেছেন। ‘এক সে বারকার এক’, ‘জান-এ বাহার’, ‘ইয়াদগার’, ‘ঘর দুয়ার’, ‘অগ্নিপথ’, ‘স্বপ্ন কা মন্দির’সহ বেশ কিছু সিনেমার গানে তিনি কণ্ঠ দিয়েছেন।

 ‘দামাদাম মাসকালান্দার’ গানটি বিভিন্ন শিল্পী গেয়েছেন। তবে রুনা লায়লার কণ্ঠে গানটি বেশি জনপ্রিয় হয়েছে।

সংগীতজীবনের ৬০ বছর প্রসঙ্গে রুনা লায়লা বলেন, ‘আল্লাহর কাছে কোটি কোটি শুকরিয়া যে, আমি এখনো গান গাইতে পারছি ও সুর করতে পারছি। তারচেয়েও বড় কথা আমার সংগীতজীবনের চলার পথের সফলতার ছয় দশক আমি নিজের চোখে উপভোগ করে যেতে পারছি। এটা যে কত বড় সৌভাগ্যের বিষয়, জীবনে কত বড় যে প্রাপ্তি তা আসলে ভাষায় প্রকাশের নয়। আমার বাবা-মা, আমার পরিবার আমাকে শুরু থেকেই ভীষণ সহযোগিতা করে এসেছেন। সবার প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা।’

রুনা লায়লা আরও বলেন, ‘জুগনু সিনেমার সংগীত পরিচালক মানজুর সাহেব আমাকে কীভাবে সিনেমায় গান গাইতে হয় তা টানা এক মাস শিখিয়েছেন। এটাই আমার সারা জীবনের জন্য ভীষণ কাজে লেগেছে। এরপর আমি অনেক বড় বড় গুণী সংগীত পরিচালকের সঙ্গে কাজ করেছি। আমি ভীষণ ভাগ্যবতী যে আমি শুরু থেকে এখন পর্যন্ত কোটি কোটি মানুষের ভালোবাসা পেয়েছি। এখনো গান গাইতে পারছি, সুর করছি, এটাই অনেক বড় বিষয়।’

রুনা লায়লা বাংলা, হিন্দি উর্দু, গুজরাটি, পাঞ্জাবি, সিন্ধি, পশতু, আরবি, ফার্সি, মালয়, নেপালি, জাপানি, ইতালীয়, স্প্যানিশ, ফরাসি, ইংরেজিসহ ১৮টি ভাষায় গান গেয়েছেন। গানে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ৩০০-এরও বেশি সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন তিনি।

ক্যারিয়ারের দীর্ঘ ৬০ বছর উপলক্ষে আজ দুপুর সাড়ে ১২টায় চ্যানেল আইতে অনন্যা রুমার প্রযোজনায় রুনা লায়লাকে নিয়ে সরাসরি বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার হবে। অনুষ্ঠানে ইমরান, ইউসুফ, লুইপা, ঝিলিকসহ আরও বেশ কয়েকজন শিল্পী গান পরিবেশন করবেন।

জাহ্নবী

শুটিংয়ের পরও বাদ দেওয়া হলো বুবলীকে

প্রকাশ: ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩৫ পিএম
আপডেট: ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩৫ পিএম
শুটিংয়ের পরও বাদ দেওয়া হলো বুবলীকে

চিত্রনায়িকা বুবলীর সময়টা ভালো যাচ্ছে না। একদিকে শাকিব খানের সঙ্গে দূরত্ব, অন্যদিকে একের পর এক সিনেমা ফ্লপ। গত ঈদে মুক্তি পেয়েছে বুবলী ও জিয়াউল রোশান অভিনীত সিনেমা ‘রিভেঞ্জ’। মো. ইকবাল পরিচালিত এই ছবিটি দর্শক টানতে ব্যর্থ হয়েছে। ঈদে মুক্তি পাওয়া ফ্লপ সিনেমাগুলোর তালিকায় যুক্ত হয়েছে এই ছবিটি। 

এবার শুটিং করার পরও সিনেমা থেকে বাদ দেওয়া হলো এই নায়িকাকে। এই বাদ পড়ার তালিকায় বুবলীর সঙ্গী হয়েছেন রোশানও। নির্মাতা ও প্রযোজক মো. ইকবাল বেশ আগেই রোশান ও বুবলীকে নিয়ে ‘বিট্রে’ নামের একটি ছবির শুটিং শুরু করেছিলেন। এর ৪০ শতাংশ শুটিং হওয়ার পর হঠাৎ ছবিটি বন্ধ রেখে পরিচালক ‘ডেডবডি’ ও ‘রিভেঞ্জ’ ছবি দুটি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। দুটি ছবিতেই অভিনয় করেছিলেন রোশান। এ বছর ৩ মে ‘ডেডবডি’ মুক্তি পেয়েছে, আর ঈদে মুক্তি পেয়েছে ‘রিভেঞ্জ’। তবে ‘রিভেঞ্জ’ সিনেমাটি নিয়ে বুবলী ও রোশানকে নিয়ে মোটেও সন্তুষ্ট নন ইকবাল। ছবির এমন ভরাডুবির জন্য দায়ী করেছেন এই জুটিকে। তাই নির্মাতা ৪০ শতাংশ শেষ হওয়া ‘বিট্রে’ ছবি থেকে বুবলী ও রোশানকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এ সম্পর্কে ইকবাল গণমাধ্যমকে বলেন, ‘প্রযোজক যে টাকাটা লগ্নি করেন সেটাও অনেক কষ্টে উপার্জন করা। আর একজন নির্মাতাও অনেক কষ্ট করে সিনেমা তৈরি করেন। আমি রোশান ও বুবলীকে নিয়ে যে বাজি ধরেছিলাম, সে বাজিতে হেরেছি। এখন আর ভুল করতে চাই না। ৪০ শতাংশ শুটিং হয়েছে মানে বাজেটের ৪০ শতাংশ খরচ হয়ে গেছে। এখনো ৬০ শতাংশ আছে। আমি চাই, এই ৬০ শতাংশ টাকা যেন অপচয় না হয়। তাই নতুন কোনো জুটিকে নিয়ে ছবিটি করতে চাই।’

জাহ্নবী

মঞ্চে ‘রবীন্দ্রনাথের দ্বিতীয় বিজয়া’

প্রকাশ: ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩৪ পিএম
আপডেট: ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩৪ পিএম
মঞ্চে ‘রবীন্দ্রনাথের দ্বিতীয় বিজয়া’
‘রবীন্দ্রনাথের দ্বিতীয় বিজয়া’ নাটকের একটি মুহূর্ত

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হলে আগামীকাল সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটে ম্যাড থেটার মঞ্চস্থ করবে নাটক ‘রবীন্দ্রনাথের দ্বিতীয় বিজয়া’।

নাটকটি রচনা, নির্দেশনা ও পরিকল্পনা করেছেন ম্যাড থেটারের প্রধান পরিচালক আসাদুল ইসলাম। নাটকটির চরিত্র সংখ্যা দুটি। রবীন্দ্রনাথ চরিত্রে অভিনয় করেছেন আসাদুল ইসলাম ও ভিক্টোরিয়া চরিত্রে সোনিয়া হাসান।

নাটকে দেখা যাবে ১০০ বছর আগে ১৯২৪ সালে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর গিয়েছিলেন আর্জেন্টিনা। যদিও তার গন্তব্য আর্জেন্টিনা ছিল না। কেন তিনি হঠাৎই আর্জেন্টিনায় যাত্রাবিরতি নিলেন? তিনি সেখানে কোথায় উঠলেন, কত দিন ছিলেন আর্জেন্টিনায়, কার সান্নিধ্যে আর্জেন্টিনায় সময় পার করেছিলেন, তখন তিনি কী লিখতেন, কী ভাবতেন।

ঘটনার ১০০ বছর পর এই প্রশ্নগুলোর উত্তর খুঁজতে গিয়ে এক ভিন্ন রবীন্দ্রনাথের দেখা পাওয়া যায়, ব্যক্তিগত আবেগে তিনি ভাসছেন, মধুর সময় কাটাচ্ছেন, সুখের মতো অসুখে জর্জরিত হয়ে আছেন। তিনি দেশে ফিরতে চাইছেন, কিন্তু ফেরা হচ্ছে না। অদ্ভুত এক পিছুটান তাকে আটকে ধরেছে অথবা ধরেনি, তিনি সেই সব উপেক্ষা করে সমুদ্র পাড়ি দিলেন। দুই মাসের অনির্দিষ্ট অনির্ধারিত ভ্রমণ শেষে তিনি বাড়ি ফিরলেন। এই ভ্রমণ থেকে তিনি কী নিয়ে বাড়ি ফিরলেন, এই ভ্রমণ রবীন্দ্রনাথের মনে কী রকম ছাপ ফেলেছিল, দক্ষিণ আমেরিকা ভ্রমণের স্মৃতি ছবি কি তিনি মুছতে পেরেছিলেন মন থেকে, এসব প্রশ্নের প্রসঙ্গ ধরে রবীন্দ্রনাথকে আবিষ্কারের চেষ্টায় ‘রবীন্দ্রনাথের দ্বিতীয় বিজয়া’।

প্রায় আট মাস পর আবার মঞ্চে আসছে ম্যাড থেটারের সাড়া জাগানো নাটক ‘রবীন্দ্রনাথের দ্বিতীয় বিজয়া’। গত বছরের অক্টোবর মাসের পর নাটকটির নতুন করে প্রদর্শনী হতে যাচ্ছে। এরই মধ্যে ম্যাড থেটার দুটি উৎসবে অংশ নিতে দুবার ভারত সফর করেছে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে এনএসডি আয়োজিত ভারত রঙ মহোৎসবে অংশ নিয়ে তারা প্রশংসিত হয়েছে। এ ছাড়া নতুন একটি নাটকের আন্তর্জাতিক প্রিমিয়ারও সম্পন্ন করেছে।

জাহ্নবী

আজ থেকে ‘জোনাকির আলো’

প্রকাশ: ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩০ পিএম
আপডেট: ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩০ পিএম
আজ থেকে ‘জোনাকির আলো’

মুসাফির রনি পরিচালিত নতুন ধারাবাহিক নাটক ‘জোনাকির আলো’ আজ থেকে প্রচার শুরু হতে যাচ্ছে। পাপ্পুরাজ রচিত এই ধারাবাহিকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন আবুল হায়াত, ওয়াহিদা মল্লিক জলি, শহীদুজ্জামান সেলিম, মুনিরা আক্তার মিঠু, শেলী আহসান, শ্যামল মাওলা, সালহা খানম নাদিয়া, শতাব্দী ওয়াদুদ, মাসুম বাশার প্রমুখ।

নির্মাতা মুসাফির রনি জানান, আজ থেকে সপ্তাহের প্রতি সোম, মঙ্গল ও বুধবার রাত ৯টা ৪০ মিনিটে এনটিভিতে প্রচার হবে নাটকটি।

জাহ্নবী