ঢাকা ১০ আষাঢ় ১৪৩১, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪

রাইসির শেষ বিদায়ে জনসমুদ্র

প্রকাশ: ২৪ মে ২০২৪, ১০:১৩ এএম
আপডেট: ২৪ মে ২০২৪, ১০:১৩ এএম
রাইসির শেষ বিদায়ে জনসমুদ্র

ইরানের প্রেসিডেন্ট সৈয়দ ইব্রাহীম রাইসি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির আবদোল্লাহিয়ানের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার (২৩ মে) প্রেসিডেন্ট রাইসিকে দাফন করা হয়েছে ইরানের ধর্মীয় শহর মাশহাদে ইমাম রেজার মাজার কমপ্লেক্সে। মাশহাদ রাইসির নিজ শহর। আর আমির আবদোল্লাহিয়ানকে দাফন করা হয়েছে তেহরানের পার্শ্ববর্তী রেই শহরে অবস্থিত ইমামজাদা আব্দুল আজিমের মাজারে।

মাশহাদ শহরে প্রেসিডেন্ট রাইসির লাশ প্রবেশের পর থেকেই শহরটি যেন জনসমুদ্রে পরিণত হয়। সেখানে লাখ লাখ মানুষ চোখের জলে তাকে শেষ বিদায় জানিয়েছেন। সবার হাতে হাতে রাইসির ছবি এবং বিভিন্ন বক্তব্য লেখা প্ল্যাকার্ড শোভা পাচ্ছিল। 

এ সময় লোকজন নানাভাবে প্রেসিডেন্টের জন্য দোয়া করেন। মাশহাদ যেহেতু প্রেসিডেন্ট রাইসির জন্ম শহর, সে কারণে সেখানকার মানুষের ভালোবাসা ছিল ভিন্ন রকমের। তারা নানাভাবে নিজেদের আবেগের বহির্প্রকাশ ঘটিয়েছেন। সেখানে কান্নার রোল পড়ে যায়। শেষ বিদায় অনুষ্ঠান শেষে লাশ মাজার কমপ্লেক্স নেওয়া হয় এবং আগে থেকেই প্রস্তুত করা কবরে দাফন করা হয়। এর আগে গত বুধবার রাজধানী তেহরানে জানাজার নামাজ পড়ান ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি। সেখানেও লাখ লাখ মানুষ অংশ নেন। 

তেহরানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বহু রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক ব্যক্তি উপস্থিত থেকে প্রেসিডেন্ট ও তার সফরসঙ্গীদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। গত রাতে বিভিন্ন দেশের শীর্ষ নেতারা ইরানের সর্বোচ্চ নেতার সঙ্গে বৈঠক করে শোক ও সমবেদনা জানান। এ সময় নানা বিষয়ে আলোচনা হয়। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা গত রাতেই প্রেসিডেন্ট রাইসির বাসভবনে গিয়ে তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করেন এবং আলোচনা করেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন প্রেসিডেন্টের শ্বশুর, যিনি একজন বড় আলেম। এ ছাড়া তার স্ত্রী এবং দুই মেয়ে। 

প্রেসিডেন্ট রাইসির স্ত্রী একজন শিক্ষাবিদ। তিনি শহিদ বেহেশতী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক। রাইসির মেয়েরাও উচ্চশিক্ষিত। রাইসির শ্বশুর আয়াতুল্লাহ আহমাদ আলামুল হুদা মাশহাদে ইরানের সর্বোচ্চ নেতার প্রতিনিধি এবং জুমা নামাজের প্রধান খতিব। এদিকে প্রেসিডেন্ট রাইসির প্রতি সম্মান জানাতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আগত নেতাদের মধ্যে বিভিন্ন প্রতিরোধ সংগঠনের প্রভাবশালী ব্যক্তিরাও ছিলেন। তারা তেহরানে নিজেদের উপস্থিতিকে সুযোগ হিসেবে কাজে লাগিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক করেছেন গতকাল। 

সেখানে উপস্থিত ছিলেন ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের পলিটিক্যাল ব্যুরোর প্রধান ইসমাইল হানিয়া, লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহর উপ-মহাসচিব শেখ নায়িম কাসেম, ইয়েমেনের হুথি আনসারউল্লাহর প্রতিনিধিসহ আরও কয়েকজন প্রতিরোধকামী নেতা। 

গত রবিবার যে আটজন হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে নিহত হয়েছেন, তাদের একেকজনকে একেক জায়গায় দাফন করা হয়েছে। কেউ কেউ তাদের দাফনের বিষয়ে ওসিয়াত করে গিয়েছিলেন। আত্মীয়স্বজনরা তাদের নিজেদের এলাকায় দাফন করতে নিয়ে গেছেন। এ ছাড়া বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় শোক পালনের অংশ হিসেবে তেহরানে বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে গতকাল বিশেষ দোয়ার আয়োজন করা হয়। তেহরানে বসবাসরত বাংলাদেশিরাও ওই দোয়ার অনুষ্ঠানে অংশ নেন। নিহতদের সম্মানে দূতাবাসে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়। 

কনস্টেবলের সঙ্গে ডেটে গিয়ে পদাবনতি ডিএসপির

প্রকাশ: ২৩ জুন ২০২৪, ০৪:০৪ পিএম
আপডেট: ২৩ জুন ২০২৪, ০৪:২১ পিএম
কনস্টেবলের সঙ্গে ডেটে গিয়ে পদাবনতি ডিএসপির
কৃপা শংকর

ভারতের উত্তর প্রদেশে কৃপা শংকর কানৌজিয়া নামে পুলিশের এক ডেপুটি সুপারিনটেনডেন্টকে (ডিএসপি) কনস্টেবল পদে পদাবনতি দেওয়া হয়েছে। তিন বছর আগে একটি হোটেলে অধঃস্তন নারী কনস্টেবলের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ায় তাকে এ শাস্তি দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

রবিবার (২৩ জুন) ইন্ডিয়া টুডের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, কৃপা শংকর উন্নাওয়ের বিঘাপুরের সার্কেল অফিসার ছিলেন। তবে শাস্তি হিসেবে সেখান থেকে সরিয়ে তাকে গোরক্ষপুরের ২৬তম প্রভিনশিয়াল আর্মড কনস্টেবলারি (পিএসি) ব্যাটালিয়নের কনস্টেবল পদে দেওয়া হয়।

২০২১ সালের জুলাই মাসে কৃপা শংকর পারিবারিক কারণ দেখিয়ে ছুটি নিয়েছিলেন। তবে বাড়ি না ফিরে তিনি এক নারী কনস্টেবলকে নিয়ে কানপুরের একটি হোটেলে যান। হোটেলে ঢুকেই কৃপা শংকর তার ব্যক্তিগত ও দাপ্তরিক মোবাইল নম্বর বন্ধ করে দেন।

এদিকে স্বামীর খোঁজ না পেয়ে কৃপার স্ত্রী উন্নাওয়ের পুলিশ সুপারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

পরে তাদের একটি নজরদারি দল কানপুরের হোটেলে ঢোকার পরই কৃপা শংকরের মোবাইল নম্বর বন্ধ হওয়ার বিষয়টি জানতে পারে। এতে দ্রুত হোটেলে পৌঁছায় উন্নাও পুলিশ।

হোটেলে গিয়ে নারী পুলিশ সদস্যের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় পাওয়া যায় কৃপা শংকরকে।

হোটেলের সিসিটিভি ক্যামেরায় কৃপা শংকর ও নারী কনস্টেবলের প্রবেশের দৃশ্য ধরা পড়ে। পরে তদন্তের ক্ষেত্রে এই ফুটেজটি গুরুত্বপূর্ণ প্রমাণ হিসেবে কাজ করে।

এই ঘটনা তদন্ত করে সরকারের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। প্রতিবেদন পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পর্যালোচনার পর কৃপা শংকরকে কনস্টেবল পদে পদাবনতির সুপারিশ করেন সরকার।

পুলিশের এডিজি অবিলম্বে এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে একটি আদেশ জারি করে। ফলে জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা থেকে কৃপা শংকর হয়ে গেলেন কনস্টেবল। সূত্র: ইন্ডিয়া টুডে

পপি/অমিয়/

কলকাতায় নিখোঁজ বাংলাদেশি যুবকের সন্ধান মিলেছে

প্রকাশ: ২৩ জুন ২০২৪, ১২:৩২ পিএম
আপডেট: ২৩ জুন ২০২৪, ০১:২৫ পিএম
কলকাতায় নিখোঁজ বাংলাদেশি যুবকের সন্ধান মিলেছে
ছবি : সংগৃহীত

অবশেষে খুঁজে পাওয়া গেল পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় চিকিৎসা করাতে এসে নিখোঁজ বাংলাদেশি যুবকের। 

শনিবার (২২ জুন) সন্ধ্যায় মধ্য কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালের কাছে উদ্দেশ্যহীন ভাবে ঘুরে বেড়ানোর সময় তাকে উদ্ধার করে ভবানীপুর থানার পুলিশ।

পাবনার বাসিন্দা দিলওয়ার হোসেন স্নায়ুরোগের চিকিৎসা করাতে সপরিবার কলকাতায় এসেছিলেন।

কলকাতা পুলিশের ডিসি (দক্ষিণ) প্রিয়ব্রত রায় জানান, যুবকের বাবা তাকে সনাক্ত করেছেন। বর্তমানে এসএসকেএম হাসপাতালেই চিকিৎসা চলছে দিলওয়ারের। 

তবে অসুস্থ এক যুবককে খুঁজে পেতে ৪৮ ঘন্টার বেশি সময় কেন লাগলো, তার কোনও ব্যাখ্যা দিতে পারেনি ভবানীপুর বা পার্ক স্ট্রিট থানার পুলিশ। 

নিখোঁজের অভিযোগ দায়েরের পর দিলওয়ারের ছবি কলকাতার সব থানায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

দিলওয়ারের বাবা আব্দুল করিম পাবনা জেলা আদালতের আইনজীবী। তিনি জানান, দিলওয়ার দীর্ঘদিন ধরেই স্নায়ুরোগে ভুগছেন। তার ওপর সম্প্রতি হৃদরোগেও আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। ফলে দীর্ঘ সময় ধরে কথা বলা বা হাঁটা, কোনোটাই তার পক্ষে সম্ভব ছিল না। কলকাতার অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে ১৮ জুন কলকাতা এসেছিলেন তারা।

দীপঙ্কর দাশগুপ্ত/অমিয়/

আবারও যুক্তরাষ্ট্রে গোলাগুলিতে প্রাণহানি

প্রকাশ: ২৩ জুন ২০২৪, ০৯:১৮ এএম
আপডেট: ২৩ জুন ২০২৪, ০৯:১৮ এএম
আবারও যুক্তরাষ্ট্রে গোলাগুলিতে প্রাণহানি
ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের একটি সুপার মার্কেটে গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া দুই পুলিশ সদস্যসহ আহত হয়েছেন ১০ জন। 

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত শুক্রবার আরকানসাস অঙ্গরাজ্যে এ ঘটনা ঘটে। ৩ হাজার ২০০ জন বাসিন্দার শহর ফোরডিসে ম্যাড বুচার নামে একটি মুদি দোকানে গুলির ঘটনা ঘটে।

অঙ্গরাজ্যটির পুলিশ পরিচালক মাইক হ্যাগার বলেন, ‘সুপার মার্কেটে এক বন্দুকধারী বেপরোয়া গুলি চালায়। বাধ্য হয়ে পুলিশ পাল্টা গুলি ছুড়লে সন্দেহভাজন ব্যক্তি আহত হন।’

হ্যাগার জানান, মোট ১১ বেসামরিকের ওপর গুলি চালায় বন্দুকধারী। এতে তিনজন নিহত হয়েছেন। পুলিশের দুই কর্মকর্তাও এ ঘটনায় আহত হয়েছেন। সন্দেহভাজনকে আহত অবস্থায় পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।’ 

পুলিশের এ কর্মকর্তা ঘটনার বিস্তারিত সাংবাদিকদের জানাননি। তাদের প্রশ্ন করারও সুযোগ দেননি। আহত পুলিশ কর্মকর্তা ও সন্দেহভাজন ব্যক্তি শঙ্কামুক্ত বলে জানান তিনি। তবে আহত বেসামরিকদের অবস্থা গুরুতর বলে উল্লেখ করেন। সূত্র: রয়টার্স 

অবশেষে যুক্তরাজ্য সফরে জাপানের সম্রাট নারুহিতো

প্রকাশ: ২৩ জুন ২০২৪, ০৯:১০ এএম
আপডেট: ২৩ জুন ২০২৪, ০৯:১০ এএম
অবশেষে যুক্তরাজ্য সফরে জাপানের সম্রাট নারুহিতো
জাপানের সম্রাট নারুহিতো ও সম্রাজ্ঞী মাসাকো।ছবি: সংগৃহীত

অবশেষে জাপানের সম্রাট নারুহিতো (৬৪) স্ত্রীকে নিয়ে যুক্তরাজ্যে রাষ্ট্রীয় সফর শুরু করেছেন। ২০২০ সালে রানি এলিজাবেথ বেঁচে থাকাকালীন সম্রাট নারুহিতো ও সম্রাজ্ঞী মাসাকোর এই সফরে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কোভিড-১৯ মহামারির কারণে সেবার সফরটি স্থগিত করা হয়েছিল। 

শনিবার (২২ জুন) অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শনের মাধ্যমে তারা দীর্ঘ এ সফরের সূচনা করেন। তারা দুজনই ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। প্রথম দিনে রাজা চার্লসের সঙ্গে একটি আনুষ্ঠানিক ভোজসভায় যোগ দেন তারা। তবে প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকের সঙ্গে বৈঠকের কোনো পরিকল্পনা নেই তাদের। 

নারুহিতো জাপানের সিংহাসনে আরোহণের পর তাদের প্রথম বিদেশ সফর ছিল ২০২২ সালে এলিজাবেথের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়াতে। ওই সময় ১৯৮০ সালের গোড়ার দিকে পড়াশোনা করতে আসার পর ব্রিটিশ রাজপরিবারের সদস্যরা তার প্রতি যে উদারতা দেখিয়েছিলেন সে কথা তুলে ধরেছিলেন তিনি। 

এবারের সফরের আগে রানির চা আপ্যায়নের কথা স্মরণ করে টোকিওতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘আমি রানির ও রাজপরিবারের কাছ থেকে যে আন্তরিক আতিথেয়তা পেয়েছিলাম তার স্মৃতি অমলিন রয়েছে।’ সূত্র: রয়টার্স

ভারতীয় অভিবাসীর মৃত্যু, তোলপাড় ইতালি

প্রকাশ: ২৩ জুন ২০২৪, ০৯:০৪ এএম
আপডেট: ২৩ জুন ২০২৪, ০৯:০৪ এএম
ভারতীয় অভিবাসীর মৃত্যু, তোলপাড় ইতালি
ছবি: সংগৃহীত

ইতালিতে এক ভারতীয় অভিবাসীর মৃত্যু নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানাতে শুরু করেছেন অনেকেই।

শনিবার (২২ জুন) বিক্ষোভও হয়েছে দেশটিতে। ওই ভারতীয় অভিবাসীকে গুরুতর আহত অবস্থায় রাস্তায় ফেলে যান তার নিয়োগদাতা।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের খবর বলছে, ভারতীয় ওই অভিবাসীর নাম সাতনাম সিং, বয়স ৩১ বছর। ইতালিতে থাকা বা কাজ করার কোনো বৈধ কাগজ ছিল না তার। দেশটির লাজিও অঞ্চলের লাটিনা শহরের কাছে অবস্থিত এক খামারে কর্মরত ছিলেন তিনি।

গত সোমবার ওই খামারে কাজ করার সময় এক দুর্ঘটনায় তার ডান হাত বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তিনি শরীরের নিচের অংশেও গুরুতর আঘাত পান। ইতালির সংবাদমাধ্যম আরএআই বলছে, সিংকে আহত অবস্থায় ভ্যানে করে নিয়ে তার বাড়ির কাছে রেখে আসা হয়। পরে গত বুধবার রোমের স্যান কামিলো হাসপাতালে মারা যান তিনি। 

খামারটির মালিক আন্তোনেল্লো লোভাতোর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়েছে। তার বিরুদ্ধেই সিংকে বাড়ির বাইরে রেখে আসার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে মানবহত্যা, কোনো ব্যক্তির বিপদে সহায়তায় ব্যর্থতার মতো অভিযোগ দায়ের হতে পারে।

এ ঘটনায় সিএনএন রাষ্ট্রীয় আইনজীবী, লোভাতোর আইনজীবী ও ভারত সরকারকে মন্তব্যের অনুরোধ জানিয়েছিল। লোভাতোর আইনজীবী জানান, তার মক্কেল ঘটনার ঘণ্টাখানেক পর পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল।

ঘটনাটি গোটা ইতালিকেই চমকে দিয়েছে। গত বৃহস্পতিবার মন্ত্রিসভার বৈঠকেও এ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সেখানে ইতালির প্রধানমন্ত্রী জর্জিয়া মেলোনি দুঃখ প্রকাশ করেন এবং এ ঘটনার নিন্দা জানান। এক বিবৃতিতে মেলোনি বলেন, ‘এগুলো অমানবিক ঘটনা যা ইতালির মানুষের শোভা পায় না এবং আমি আশা করি যে এই নৃশংসতার কঠিন শাস্তি হবে।’ সূত্র: সিএনএন