ঢাকা ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, রোববার, ২৬ মে ২০২৪

গ্রেপ্তার এড়াতে বিভিন্ন এলাকায় আত্মগোপনে, অবশেষে ধরা

প্রকাশ: ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৫৯ পিএম
গ্রেপ্তার এড়াতে বিভিন্ন এলাকায় আত্মগোপনে, অবশেষে ধরা
ছবি : সংগৃহীত

তিন মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি মো. শাখাওয়াত হোসেনকে (৪৮) গ্রেপ্তার করেছে অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট (এটিইউ)। এটিইউ জানায়, গ্রেপ্তার এড়াতে দেশের বিভিন্ন এলাকায় আত্মগোপনে ছিলেন শাখাওয়াত। এনজিওকর্মী হিসেবেও বেশ কিছুদিন কক্সবাজারে আত্মগোপনে ছিলেন।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) রাতে ঠাকুরগাঁওয়ের সদর থানার বেগুনবাড়ি ইউনিয়নের দানারহাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

রবিবার (১৪ এপ্রিল) এটিইউর মিডিয়া অ্যান্ড অ্যাওয়ারনেস উইংয়ের পুলিশ সুপার ব্যারিস্টার মাহফুজুল আলম রাসেল গণমাধ্যমকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, শনিবার রাতে ঠাকুরগাঁওয়ে অভিযান চালিয়ে আসামি শাখাওয়াতকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি দিনাজপুরের চিরিরবন্দর থানায় দায়ের করা ৪টি মামলার আসামির ছিলেন। এর মধ্যে তিন মামলায় তার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট ছিল। 

মাহফুজুল আলম রাসেল বলেন, ‘আসামি ২০১৮ সাল থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে পলাতক ছিলেন। এনজিও কর্মী হিসেবে তিনি বেশ কিছুদিন কক্সবাজারে আত্মগোপনে ছিলেন। সর্বশেষ তিনি মোহাম্মদপুরে একটি ডেভেলপার কোম্পানিতে ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তাকে চিরিরবন্দর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘আসামির বিরুদ্ধে দিনাজপুর কোতোয়ালি থানায় একাধিক মামলাও আছে। শাখাওয়াত দীর্ঘদিন ধরে পলাতক ছিলেন। তিনি জামায়াতে ইসলামীর রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। বর্তমানে তিনি চিরিরবন্দর জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি এবং রুকন পদবিধারী।’

খাজা/সালমান/

ঘুমে ব্যাঘাত ঘটানোয় বাড়িওয়ালাকে খুন, যুবক গ্রেপ্তার

প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৪, ০৬:৫৩ পিএম
ঘুমে ব্যাঘাত ঘটানোয় বাড়িওয়ালাকে খুন, যুবক গ্রেপ্তার
গ্রেপ্তার মোরশেদ আহম্মেদ

রাজধানীর তেজগাঁওয়ে ঘুমে ব্যাঘাত ঘটানোয় মোহাম্মদ রনি নামের এক বাড়িওয়ালাকে খুন করেন ভাড়াটে মো. মোরশেদ আহম্মেদ। গতকাল শনিবার (২৫ মে) রাতে এ খুনের ঘটনা ঘটে। তেজগাঁও থানার পুলিশ সেই ভাড়াটে যুবককে গ্রেপ্তার করেছে। 

রবিবার (২৬ মে) জামালপুরের মাদারগঞ্জ থানার চর ভাটিয়ালি এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ওসি বলেন, গ্রেপ্তার মোরশেদ (৩৭) জামালপুরের মাদারগঞ্জ থানার চর ভাটিয়ালি গ্রামের বাসিন্দা। তিনি যে বাসায় ভাড়া থাকেন রনি সেই বাসার মালিক। রনি এবং তার বন্ধুদের ‘যন্ত্রণায় ঘুমাতে না পেরে’ রনিকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেন বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন মোরশেদ।

পুলিশ জানায়, মোরশেদ তেজগাঁও থানার পশ্চিম নাখালপাড়া শিয়া মাজার এলাকায় ভাড়া থাকেন। তিনি যে বাসায় ভাড়া থাকেন সেই বাসার মালিক ছিলেন রনি। মোরশেদকে যে কক্ষ ভাড়া দেওয়া হয় সেই কক্ষেই রনি ও তার বন্ধুরা তাস খেলতেন ও মাদক সেবন করতেন। এ জন্য মোরশেদকে প্রায়ই দেরিতে ঘুমাতে হয়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বেশ কয়েকবার বাগবিতণ্ডাও হয়। গত ২৫ মে রাতেও সেই কক্ষে রনি তার বন্ধু মশিউর, বায়জুদুল ইসলাম, একিন, অবিতকে নিয়ে খেলছিলেন। পরে মোরশেদ আসার পর তাদের মধ্যে বাগবিতণ্ডার একপর্যায়ে মোরশেদ ছুরি দিয়ে রনিকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকেন। এ সময় রনির বন্ধুরা চিৎকার করলে রনির ভাই রফিক ছুটে আসেন। তিনি বাধা দিতে চাইলে তাকেও ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান মোরশেদ। গুরুতর আহত অবস্থায় রনি ও রফিককে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রনিকে মৃত ঘোষণা করেন। 

ঘটনার পরপরই জামালপুর পালিয়ে যান মোরশেদ। পরে পুলিশ কৃষকের ছদ্মবেশে তাকে গ্রেপ্তার করে।

অর্থ আত্মসাৎ মামলার ৩ আসামি গ্রেপ্তার

প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪, ০৭:৩০ পিএম
অর্থ আত্মসাৎ মামলার ৩ আসামি গ্রেপ্তার
ছবি : সংগৃহীত

রাজশাহীর অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারণা মামলার ৩ আসামিকে ঢাকার কেরানীগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব)।

শনিবার (২৫ মে) দুপুরে র‌্যাব-৫ সদর দপ্তরের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মুনীম ফেরদৌস এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

গ্রেপ্তাররা হলেন- ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার দেওড়া গ্রামের নিজাম শেখ (৩৮), একই উপজেলার নুরুল্লাগঞ্জ গ্রামের আলহাজ হোসেন (৩৪) ও মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার কৃষ্ণদী এলাকার আনন্দ চন্দ্র পাল (৪২)।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল মুনীম ফেরদৌস আরও জানান, র‌্যাব-৫ সদর কোম্পানি রাজশাহী ও র‌্যাব-১০ ফরিদপুরের একটি দল গত বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের ধলেশ্বর টোল প্লাজার মাওয়া-ঢাকা এক্সপ্রেসওয়েতে অভিযান চালায়। এ সময় রাজশাহীর বোয়ালিয়া থানার একটি মামলায় তিন পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা দেশের বিভিন্ন এলাকায় প্রতারণার মাধ্যমে জনসাধারণের বিপুল অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারণার কথা স্বীকার করেছেন। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রাজশাহীতে নেওয়া হয়। পরে তাদের বোয়ালিয়া মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়। এরপর পুলিশ আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে পাঠায়। 

 

এমপি আনার হত্যা: আসামিদের টার্গেট ছিল হত্যার গেইম

প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪, ০৬:০৯ পিএম
এমপি আনার হত্যা: আসামিদের টার্গেট ছিল হত্যার গেইম
ছবি : সংগৃহীত

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ বলেছেন, ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারকে হত্যার ঘটনায় রিমান্ডে আসা আসামিরা চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে।

তিনি বলেন, আসামিরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আমাদের জানিয়েছেন, আসামিদের উদ্দেশ্য ছিল সেখানে এমপিকে আটকে রেখে কিছু টাকা নেওয়া। কিন্তু এটা তাদের মূল গেইম বা মূল উদ্দেশ্য ছিল না। তাদের মূল গেইম ছিল এমপিকে মেরে ফেলা। 

শনিবার (২৫ মে) ডিবি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই কথা বলেন।

মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ বলেন, জানা গেছে, আসামিদের উদ্দেশ্য ছিল সেখানে এমপিকে আটকে রেখে কিছু টাকা নেওয়া। কিন্তু এটা তাদের মূল গেইম বা মূল উদ্দেশ্য ছিল না। তাদের মূল গেইম ছিল এমপিকে মেরে ফেলা।

তিনি বলেন, দেশে ভারতীয় পুলিশের একটি টিম দুই থেকে তিন দিন ধরে তদন্ত করছে। আমাদেরও একটি টিম কলকাতা যাবে। আমিসহ ডিবির একটি টিম আজ রাতে অথবা রবিবার (২৬ মে) ভোরে কলকাতা যাব।

হারুন অর রশিদ জানান, ব্যবসায়িক লেনদেনসহ আধিপত্য বিস্তার বা অনেক কিছুই থাকতে পারে হত্যাকাণ্ডের পেছনে। ভারতীয় পুলিশ অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে এই হত্যাকাণ্ডের তদন্ত করছে। হত্যাকাণ্ডের সুস্পষ্ট প্রমাণ আছে। তবে তদন্তের স্বার্থে এখন জানানো যাবে না।

খাজা/এম/

নতুন জঙ্গি সংগঠন ‘শাহাদাত’

প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪, ০৪:৫৭ পিএম
নতুন জঙ্গি সংগঠন ‘শাহাদাত’
গ্রেপ্তার জঙ্গি সংগঠন শাহাদাত-এর তিন সদস্য

একটি জঙ্গি সংগঠন ভেঙে নতুন আরেকটি সংগঠনের জন্ম হয়েছে। নাম ‘শাহাদাত’। র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‍্যাব) নতুন এই জঙ্গি সংগঠনের সন্ধান পেয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে এই নতুন সংগঠনের প্রধানসহ দুই প্রশিক্ষককে। জব্দ করা হয়েছে উগ্রবাদী বইসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম।

শনিবার (২৫ মে) রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার আরাফাত ইসলাম।

র‌্যাব জানায়, নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের সক্রিয় সদস্য ছিল তারা। সম্প্রতি শাহাদাত নামে নতুন একটি জঙ্গি সংগঠন খোলে দাওয়াতি কার্যক্রম পরিচালনা করে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সাতক্ষীরা অঞ্চলে।

এ কাজে ব্যবহার করতো গোপনীয় ভিওআইপি অ্যাপ। 

সদস্যদের অস্ত্রসহ বিভিন্ন প্রশিক্ষণ দেওয়া হতো বলেও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে। 

গ্রেপ্তাররা হলেন- মো. ইসমাইল হোসেন (২৫), মো. জিহাদ হোসেন ওরফে হুজাইফা (২৪) এবং মো. আমিনুল ইসলাম (২৫)। 

তাদের মধ্যে ইসমাইল হোসেন রিক্রুটিং শাখার প্রধান ও অন্য দুইজন আঞ্চলিক প্রশিক্ষক।

সংবাদ সম্মেলনে কমান্ডার আরাফাত ইসলাম জানান, তারা কৌশল হিসেবে আনসার আল ইসলামের আড়ালে ‘শাহাদাত’ নামে নতুন একটি জঙ্গি সংগঠন তৈরি করে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। তারা আফগানিস্তানে তালেবানের উত্থানে উদ্বুদ্ধ এবং আল-কায়েদা মতাদর্শে বিশ্বাসী।

খাজা/অমিয়/

ওকালতনামায় স্বাক্ষর দেননি শিলাস্তি

প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪, ০১:০১ পিএম
ওকালতনামায় স্বাক্ষর দেননি শিলাস্তি
শিলাস্তি রহমান

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারকে খুনের উদ্দেশ্যে অপহরণের মামলায় গ্রেপ্তার তিন আসামির আট দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

শুক্রবার (২৪ মে) বিকেলে শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দিলরুবা আফরোজ তিথির আদালত এই রিমান্ডের আদেশ দেন।

রিমান্ডে নেওয়া দুই আসামি শিমুল ভূঁইয়া ও তানভীর ভূঁইয়ার সঙ্গে ছিলেন শিলাস্তি রহমান। এদিন আসামিদের আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন ডিবি পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার মাহফুজুর রহমান। আসামিদের পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না।

শুনানির শুরুতে শিলাস্তির কাছে এক আইনজীবী ওকালতনামায় সই নিতে যান। তখন শিলাস্তি হাউমাউ করে আদালতে কেঁদে ফেলেন। তিনি বলেন, ‘আমি ওকালতনামায় স্বাক্ষর দেব কেন? আমি কীভাবে আসামি হলাম? আমি শুধু ওই বাসায় ছিলাম। তা ছাড়া কিছুই জানি না।’ অভিযুক্ত শিলাস্তির ওকালতনামায় স্বাক্ষর না করায় তার রিমান্ড বাতিলের বিষয়ে শুনানি হয়নি। পরে আদালত তাদের আট দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন।

এর আগে বেলা সোয়া ২টার দিকে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয় আসামিদের। আসামি শিলাস্তি বলেন, ‘আমাকে এখানে কেন আনা হয়েছে, আমি জানতে চাই। আমাকে বলেছে সাক্ষী দিয়ে চলে যাবা। আমি কিছু জানি না।’ 

শুক্রবার সরেজমিনে দেখা যায়, আদালতে শিলাস্তিকে হাজির করার সময় পুলিশের গাড়ি থেকে নামানোর পর তিনি মুখ ঢাকেন ও মাথা নিচের দিকে নামিয়ে রাখেন। ভিড়ের মধ্যে তিনি মুখ লুকান ডিবির কর্তব্যরত এক নারী সদস্যের কাঁধে। এ সময় তাকে মুখে মাস্ক পরিহিত অবস্থায় দেখা যায়। তাকে খুব সহজে শনাক্ত করা যাচ্ছিল না। 

সংসদ সদস্য আনারকে নৃশংসভাবে খুন করার ঘটনায় শিলাস্তির নাম উঠে আসে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সূত্র বলছে, শিলাস্তি এ হত্যাকাণ্ডের মাস্টারমাইন্ড আখতারুজ্জামান শাহীনের গার্লফ্রেন্ড। শাহীন যুক্তরাষ্ট্রের সিটিজেন এবং তার পরিবার যুক্তরাষ্ট্রেই থাকে। তবে তিনি মাঝেমধ্যেই বাংলাদেশে এলে শিলাস্তিকে নিয়ে কলকাতায় প্রমোদভ্রমণে যেতেন। সেখানে কিছুদিন থেকে ফের দেশে চলে আসতেন। তাদের দুজনের মধ্যে কয়েক বছর ধরেই প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। 

জানা যায়, ২০ বছরের তরুণী শিলাস্তির বাড়ি টাঙ্গাইলে। ঢাকার উত্তরার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিবিএ দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী তিনি। উত্তরাতেই একটি মেস বাসায় তিনি থাকেন। গ্রেপ্তারের পর জানা যায়, শিলাস্তি ছাড়াও সিলভিয়া, সিলিস্তা ও সেলেস্তি নামেও পরিচিত তিনি। 

শিলাস্তির কাছ থেকে একটি কালো রঙের ভ্যানিটি ব্যাগ জব্দ করেছে পুলিশ। ব্যাগে ছিল দুটি সবুজ রঙের পাসপোর্ট। পাসপোর্ট দুটির নম্বর এআইবি ২০২৬৩১ এবং ইএ০৮৪৮৪৯৩। এ ছাড়া ছিল রেড-মি নোট ৯৫ মোবাইল ফোন, যার আইএমইআই নম্বর-১:৮৬৪৮৫০০৪৯৮৮৯৭০৫, ইএমইআই-২: ৮৬৪৮৫০০৪৯৯৭৮৭০৬।