ঢাকা ৫ আষাঢ় ১৪৩১, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪

ঘুমে ব্যাঘাত ঘটানোয় বাড়িওয়ালাকে খুন, যুবক গ্রেপ্তার

প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৪, ০৬:৫৩ পিএম
আপডেট: ২৬ মে ২০২৪, ০৬:৫৩ পিএম
ঘুমে ব্যাঘাত ঘটানোয় বাড়িওয়ালাকে খুন, যুবক গ্রেপ্তার
গ্রেপ্তার মোরশেদ আহম্মেদ

রাজধানীর তেজগাঁওয়ে ঘুমে ব্যাঘাত ঘটানোয় মোহাম্মদ রনি নামের এক বাড়িওয়ালাকে খুন করেন ভাড়াটে মো. মোরশেদ আহম্মেদ। গতকাল শনিবার (২৫ মে) রাতে এ খুনের ঘটনা ঘটে। তেজগাঁও থানার পুলিশ সেই ভাড়াটে যুবককে গ্রেপ্তার করেছে। 

রবিবার (২৬ মে) জামালপুরের মাদারগঞ্জ থানার চর ভাটিয়ালি এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ওসি বলেন, গ্রেপ্তার মোরশেদ (৩৭) জামালপুরের মাদারগঞ্জ থানার চর ভাটিয়ালি গ্রামের বাসিন্দা। তিনি যে বাসায় ভাড়া থাকেন রনি সেই বাসার মালিক। রনি এবং তার বন্ধুদের ‘যন্ত্রণায় ঘুমাতে না পেরে’ রনিকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেন বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন মোরশেদ।

পুলিশ জানায়, মোরশেদ তেজগাঁও থানার পশ্চিম নাখালপাড়া শিয়া মাজার এলাকায় ভাড়া থাকেন। তিনি যে বাসায় ভাড়া থাকেন সেই বাসার মালিক ছিলেন রনি। মোরশেদকে যে কক্ষ ভাড়া দেওয়া হয় সেই কক্ষেই রনি ও তার বন্ধুরা তাস খেলতেন ও মাদক সেবন করতেন। এ জন্য মোরশেদকে প্রায়ই দেরিতে ঘুমাতে হয়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বেশ কয়েকবার বাগবিতণ্ডাও হয়। গত ২৫ মে রাতেও সেই কক্ষে রনি তার বন্ধু মশিউর, বায়জুদুল ইসলাম, একিন, অবিতকে নিয়ে খেলছিলেন। পরে মোরশেদ আসার পর তাদের মধ্যে বাগবিতণ্ডার একপর্যায়ে মোরশেদ ছুরি দিয়ে রনিকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকেন। এ সময় রনির বন্ধুরা চিৎকার করলে রনির ভাই রফিক ছুটে আসেন। তিনি বাধা দিতে চাইলে তাকেও ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান মোরশেদ। গুরুতর আহত অবস্থায় রনি ও রফিককে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রনিকে মৃত ঘোষণা করেন। 

ঘটনার পরপরই জামালপুর পালিয়ে যান মোরশেদ। পরে পুলিশ কৃষকের ছদ্মবেশে তাকে গ্রেপ্তার করে।

বগুড়ায় জোড়া খুন: শ্রমিকনেতাসহ ৪ জন কারাগারে

প্রকাশ: ১৯ জুন ২০২৪, ০৪:৩৬ পিএম
আপডেট: ১৯ জুন ২০২৪, ০৪:৪৮ পিএম
বগুড়ায় জোড়া খুন: শ্রমিকনেতাসহ ৪ জন কারাগারে
নিহত মো. রুমন শেখ-নোমান আহম্মেদ

বগুড়া পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর সৈয়দ সার্জিল আহম্মেদ টিপুর ব্যক্তিগত গাড়ির সঙ্গে মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগার ঘটনা কেন্দ্র করে দুই যুবককে হত্যার অভিযোগে গ্রেপ্তার চারজনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বুধবার (১৯ জুন) সকালে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. শাহীনুজ্জামান আদালতে প্রত্যেকের ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। আদালত রিমান্ড আবেদনের শুনানি না করে আসামিদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এর আগে মঙ্গলবার (১৮ জুন) রাতে বগুড়া সদর থানায় ২৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন নিহত শরিফের মা মোছা. হেনা বেগম।

কারাগারে পাঠানো আসামিরা হলেন- বগুড়া মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ কবির আহম্মেদ মিঠু, মো. শেখ সৌরভ, মো. নাইম হোসেন ও মো. আজরিন রিফাত।

বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সায়হান ওয়ালিউল্লাহ জানান, এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে নিহত শরিফের মা মোছা. হেনা বেগম ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে ২৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা করলে সৈয়দ সার্জিল আহম্মেদের বড় ভাই ও এ মামলার প্রধান আসামি বগুড়া মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদ সৈয়দ কবির আহম্মেদ মিঠু, মো. শেখ সৌরভ, মো. নাইম হোসেন ও মো. আজরিন রিফাতকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সোমবার (১৭ জুন) রাতে শহরের নিশিন্দারা এলাকায় মো. রুমন শেখ ও নোমান আহম্মেদ নামে দুই যুবককে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

হাসিবুর রহমান/অমিয়/

নরসিংদীতে আগ্নেয়াস্ত্র তৈরির কারখানার সন্ধান, গ্রেপ্তার ১

প্রকাশ: ১৯ জুন ২০২৪, ০৩:৫০ পিএম
আপডেট: ১৯ জুন ২০২৪, ০৩:৫০ পিএম
নরসিংদীতে আগ্নেয়াস্ত্র তৈরির কারখানার সন্ধান, গ্রেপ্তার ১
ছবি: খবরের কাগজ

দীর্ঘদিন ধরে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে আগ্নেয়াস্ত্র তৈরির অভিযোগে অবশেষে গ্রেপ্তার হয়েছেন ৫১ বছর বয়সী সালাউদ্দিন দুলাল।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বিষয়টি খবরের কাগজকে নিশ্চিত করেন নরসিংদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ তানভির আহমেদ।

জানা যায়, সদর উপজেলার সাহেপ্রতাপ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছনে দীর্ঘদিন যাবত এ অস্ত্র কারখানা চালিয়ে আসছিল দুলাল। এই গোপন অস্ত্রের কারখানায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার ও দেশীয় আগ্নেয়াস্ত্র এবং আগ্নেয়াস্ত্র তৈরির সরঞ্জাম জব্দ করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার দুলালের ছোট ভাই জুয়েল মিয়া জানান, সাহেপ্রতাবে নিজ বাড়ি থাকা সত্ত্বেও দুলাল নিজের বাড়ি ও পরিবার ছেড়ে বাড়ির বিপরীত পাশের একটি জরাজীর্ণ বাড়িতে থাকতে শুরু করে। তার অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের আভাস পেয়ে তাকে কয়েকবার সাবধানও করেছিলেন তিনি।

এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দুলাল তার জরাজীর্ণ ঘরটিতে একাই থাকতেন। সেখানে কাউকে প্রবেশ করতে দিতেন না। সেখানে তিনি গোপনে যে অস্ত্র কারখানা পরিচালনা করতেন, সে বিষয়ে তারা কিছুই জানে না।

শাওন খন্দকার/সাদিয়া নাহার/অমিয়/

বগুড়ায় তুচ্ছ ঘটনায় দুইজনকে কুপিয়ে হত্যা

প্রকাশ: ১৯ জুন ২০২৪, ১২:২৩ পিএম
আপডেট: ১৯ জুন ২০২৪, ০৪:৩৬ পিএম
বগুড়ায় তুচ্ছ ঘটনায় দুইজনকে কুপিয়ে হত্যা
ছবি: খবরের কাগজ

বগুড়ায় ব্যক্তিগত গাড়ির সঙ্গে মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

সোমবার (১৭ জুন) রাতে শহরের নিশিন্দারা এলাকায় মো. রুমন শেখ ও নোমান আহম্মেদ নামে দুই যুবককে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

বগুড়া সদর থানা-পুলিশ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, বগুড়া পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর সৈয়দ সারজিল আহম্মেদ টিপুর ব্যক্তিগত গাড়ির সঙ্গে মো. রুমন শেখের মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগে। এ নিয়ে ওই গাড়ির চালকের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় রুমনের। পরে রুমন শেখকে আটক করে নোমান আহম্মেদ ওরফে শরিফকে ফোন করে ডেকে নেওয়া হয়। 

রাত ১২টার পর দুর্বৃত্তরা নোমান ও রুমনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। পরে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। 

এ ঘটনায় মো. হোসাইন ওরফে বুলেট নামে এক যুবক গুলিবিদ্ধ হয়। বুলেট শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তবে তিনি আশঙ্কামুক্ত।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইয়ান ওয়ালিউল্লাহ বলেন, ‘সিসি ক্যামেরা ফুটেজ দেখে ঘটনাস্থলে যাদের শনাক্ত করা হয়েছে, তার মধ্যে আছে বগুড়া মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ কবি আহম্মেদ মিঠু, তার ছোট ভাই সৈয়দ সারজিল আহমেদ টিপু ও বগুড়া পৌরসভার বর্তমান কাউন্সিলর শাহ মো. মেহেদী হাসান হিমু। এ তিনজন ছাড়াও অভিযুক্তদের মধ্যে কয়েকজনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাদের আটকের চেষ্টা করা হচ্ছে। ঘটনাস্থল থেকে পিস্তলের গুলির দুটি খোসা পাওয়া গেছে।’

ওসি জানান, ময়নাতদন্তের প্রাথমিক তথ্যে বলা হয়েছে মো. রুমন শেখের শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে একটি আর নোমান আহম্মেদের শরীরে আঘাতের চিহ্ন আছে সাত-আটটি। তবে দুইজনেরই পা ভাঙা।

এ বিষয়ে সৈয়দ কবির আহম্মেদ মিঠুর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি দাবি করেন, ঘটনায় খবর জেনে তিনি ও তার ভাই এবং স্থানীয় কাউন্সিলর সেখানে যান। তবে খুনের ঘটনার সঙ্গে কোনোভাবেই তারা জড়িত নন। 

তিনি বলেন, ‘ঘটনার সূত্রপাত হয় তার বাড়িতে আসা এক নারীকে উত্ত্যক্ত করার ঘটনায়।’

বিলু/সাদিয়া নাহার/অমিয়/

কক্সবাজারে স্বামী-স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যা

প্রকাশ: ১৯ জুন ২০২৪, ১১:৫৯ এএম
আপডেট: ১৯ জুন ২০২৪, ১১:৫৯ এএম
কক্সবাজারে স্বামী-স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যা
ছবি : খবরের কাগজ

কক্সবাজারের রামু উপজেলার ঈদগড়ে স্বামী-স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। ধারণা করা হচ্ছে সাবেক প্রেমিক রমজান আলীসহ কয়েকজন তাদের হত্যা করেছে।

বুধবার (১৯ জুন) ভোরে ঈদগড় ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের বৌঘাট উপরেরকিল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 

বিষয়টি খবরের কাগজকে নিশ্চিত করেছেন রামু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু তাহের দেওয়ান। 

হত্যাকাণ্ডের শিকার দুইজন হলেন- বৌঘাট উপরেরকিল এলাকার (নিজ বাড়ি রাউজান) মোহাম্মদ আলিম উদ্দিনের ছেলে নুর মোহাম্মদ (২০) ও তার স্ত্রী রুবি আক্তার (১৮)। নুর মোহাম্মদ স্থানীয় একটি রাবার বাগানে চাকরি করেন। 

নুর মোহাম্মদের পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, গেল তিন মাস আগে পারিবারিকভাবে নুর মোহাম্মদ ও রুবি আক্তারের বিয়ে হয়। কিন্তু রুবি আক্তারের রমজান আলী নামে একজনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিয়ের পর থেকে প্রেমিক রমজান আলী রুবি ও তার স্বামীকে প্রায়ই হুমকি-ধামকি দিচ্ছিল। ধারণা করা হচ্ছে, রমজান আলীর নেতৃত্বে কয়েকজন স্বামী-স্ত্রী দুজনকে গলাকেটে হত্যা করেছে।

রামু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু তাহের দেওয়ান খবরের কাগজকে বলেন, খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হচ্ছে। যে বিষয়গুলো সামনে এসেছে সেগুলো আরও গভীরভাবে তদন্ত করা হচ্ছে।

মুহিববুল্লাহ মুহিব/অমিয়/

কলমাকান্দায় ছুরিকাঘাতে মসজিদের ইমাম নিহত

প্রকাশ: ১৭ জুন ২০২৪, ০৯:৫১ পিএম
আপডেট: ১৭ জুন ২০২৪, ০৯:৫১ পিএম
কলমাকান্দায় ছুরিকাঘাতে মসজিদের ইমাম নিহত

নেত্রকোনার সীমান্ত উপজেলা কলমাকান্দায় দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে মসজিদের ইমাম নিহত হয়েছেন। নিহত আব্দুল বাতেন (৬০) উপজেলার রংছাতি ইউনিয়নের বিসাউতি জামে মসজিদের ইমাম ছিলেন। তিনি সন্ন্যাসীপাড়ার মৃত বাঁশির পণ্ডিতের ছেলে।

রবিবার (১৬ জুন) ভোরে বিসাউতি মসজিদে ঢুকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। 

পরে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে সোমবার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রবিবার ফজরের নামাজের আগে মসজিদে ঢুকে ছুরিকাঘাতে করে ইমাম আব্দুল বাতেনকে। নামাজের সময় এলাকার মুসল্লিরা তাকে উদ্ধার করে কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিযে় যায়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

কলমাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. লুৎফুল হক জানান, ইমাম আব্দুল বাতেনকে ছুরিকাঘাত করেছে দুর্বৃত্তরা। তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজয় দাস/অমিয়/