‘ন্যায়বিচার ও সাম্যের জন্য প্রয়োজন সকল ভাষার স্বীকৃতি ও সম্মান’ । খবরের কাগজ
ঢাকা ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

‘ন্যায়বিচার ও সাম্যের জন্য প্রয়োজন সকল ভাষার স্বীকৃতি ও সম্মান’

প্রকাশ: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০২:৫৩ পিএম
‘ন্যায়বিচার ও সাম্যের জন্য প্রয়োজন সকল ভাষার স্বীকৃতি ও সম্মান’

সকল ভাষার স্বীকৃতি ও সম্মানের মধ্যে সামাজিক ন্যায়বিচার, সাম্য প্রতিষ্ঠা হতে পারে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের অঙ্গীকার বলে মন্তব্য করেছেন জেনেভাস্থ বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত সুফিউর রহমান।

জেনেভায় বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের উদ্যোগে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনাসভায় তিনি এ কথা বলেন।

আলোচনার শুরুতে তিনি ভাষাশহিদ এবং ভাষা আন্দোলনের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যারা অবদান রেখেছেন, তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।
 
বাংলা ভাষার সম্মান রক্ষায় সাংস্কৃতিক ও বাংলা ভাষাভাষীদের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারের রাজনৈতিক আন্দোলনে যুগপৎ নেতৃত্ব দেওয়ায় বঙ্গবন্ধুর প্রতি তিনি বিনম্র শ্রদ্ধা জানান।

দিবসটির তাৎপর্য ও গুরুত্ব তুলে ধরে আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে স্থায়ী প্রতিনিধি সুফিউর রহমান কয়েক হাজার বছরে সংস্কৃত, প্রাকৃত ভাষার বিবর্তনের ধারায় বাংলা ভাষার বর্তমান অবস্থানের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে বলেন, ‘বাংলাভাষী অঞ্চলসমূহের আশেপাশের এলাকার ভাষার সঙ্গে মিথষ্ক্রিয়ায় এবং ব্যাকরণ, চিন্তা, দর্শন আত্মীকরণ করে বাংলা ভাষা সমৃদ্ধ হয়েছে।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘প্রবৃদ্ধি বা প্রগতির জন্য যে জ্ঞান দরকার, তা অর্জনের জন্য বাংলার চর্চা ও প্রসারের পাশাপাশি অন্য ভাষাকে সম্মান দিতে হবে, অন্য ভাষার সঙ্গে যোগাযোগ বাড়াতে হবে।’ 

এ প্রসঙ্গে তিনি বাংলাদেশের ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্ঠীর শিশুরা যাতে প্রাথমিক পর্যায়ে নিজেদের ভাষায় আত্মগরিমায় শিক্ষালাভ করতে পারে, সে বিষয়ে অধিকতর সুযোগ সৃষ্টির জন্য সরকারি উদ্যোগের উপর গুরুত্বারোপ করেন।

রাষ্ট্রদূত সুফিউর রহমান বলেন, ‘দ্রুত নগরায়ন, বিশ্বায়ন ও ডিজিটালাইজেশনের কারণে আঞ্চলিক ও ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর ভাষার অস্তিত্ব ক্রমশ হুমকির মুখে পড়ছে। আমাদের সতর্ক হতে হবে যাতে ভাষাগুলো কালের বিবর্তনে হারিয়ে না যায়।’ 

অনুষ্ঠানে মিশনের কমার্শিয়াল মিনিস্টারসহ দুইজন প্রবাসী বাংলাদেশিও বক্তব্য রাখেন।

মিশনের মিলনায়তনে মিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যদের অংশগ্রহণে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০২৪ পালিত হয়েছে। 

দিবসের শুরুতে মিশন ভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হয়। এরপর দিবসটি উপলক্ষে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়। 

অনুষ্ঠানে ভাষা আন্দোলন ও মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী বীর শহিদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। 

শহিদদের আত্মার মাগফেরাত এবং দেশের সুখ, সমৃদ্ধি ও কল্যাণ কামনায় বিশেষ মোনাজাতের ও বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। 

এরপর মহান ভাষা আন্দোলনের উপর নির্মিত ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ও ভাষা আন্দোলন’ শীর্ষক একটি প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

সাদিয়া নাহার/অমিয়/

ব্রিটেনের চেস্টার সিটির ডেপুটি মেয়র সিলেটের শিরিন

প্রকাশ: ২০ মে ২০২৪, ১১:০০ পিএম
ব্রিটেনের চেস্টার সিটির ডেপুটি মেয়র সিলেটের শিরিন
ছবি : সংগৃহীত

যুক্তরাজ্যের চেস্টার সিটির ডেপুটি মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন শিরিন আক্তার। বাংলাদেশি হিসেবে প্রথম কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পর এবার ডেপুটি মেয়র হলেন তিনি। স্থানীয় সময় গত রবিবার অফিস হলে ডেপুটি মেয়র হিসেবে তাকে শপথবাক্য পাঠ করানো হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শিরিন আক্তারের চাচা শাহ বাবুল উল্ল্যাহ।

তার পরিবার সূত্রে জানা যায়, শিরিন সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার উত্তর ধর্মদা গ্রামের শাহ হুশিয়ার উল্ল্যা ও পারভীন আক্তার দম্পতির দ্বিতীয় মেয়ে। ২০২৩ সালের ৪ মে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে লেবার পার্টি থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ‘চেস্টার সিটির আপটন’ এলাকা থেকে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। কাউন্সিলর বিজয়ী হওয়ার পর থেকেই চেস্টার সিটি কাউন্সিলের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করে আসছেন শিরিন।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত শিরিন আক্তারের জন্ম যুক্তরাজ্যে হলেও ছোটবেলায় তিনি বিশ্বনাথের মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুই বছর লেখাপড়া করেন। পরে বাবা-মায়ের সঙ্গে যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমান এবং সেখানে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। এ ছাড়া শিরিন আক্তারের নির্বাচনি প্রচারণায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনি রেজওয়ানা সিদ্দিক টিউলিপসহ বাঙালি কমিউনিটির বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মী অংশ নিয়েছিলেন।

শিরিন আক্তার যুক্তরাজ্যে ডেপুটি মেয়র নির্বাচিত হওয়ায় বাঙালি কমিউনিটির পাশাপাশি নিজ জন্মভূমি বিশ্বনাথ তথা সিলেটে থাকা আত্মীয়স্বজনদের মধ্যেও আনন্দের বন্যা বইছে। এ ব্যাপারে শিরিন আক্তারের বাবা শাহ হুশিয়ার উল্ল্যা বলেন, ‘চেস্টার সিটির ইতিহাসে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে আমার মেয়ে ডেপুটি মেয়র পদে শপথ নিয়েছে। এই আনন্দ মুখে বলে প্রকাশ করতে পারব না। এতে শুধু সিলেটের নয়, বাংলাদেশের সুনামও বৃদ্ধি পাচ্ছে। কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে শিরিন বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে আসছে। আশা করি, আগামীতে তার কর্মদক্ষতা দিয়ে দেশ ও জন্মভূমির মানুষের জন্য কাজ করবে।’

শাকিলা ববি/এমএ/

যুক্তরাজ্যে উদ্বাস্তুদের মানবিক সহায়তা এইডমিইউকে’র

প্রকাশ: ১০ মে ২০২৪, ১২:২৩ এএম
যুক্তরাজ্যে উদ্বাস্তুদের মানবিক সহায়তা এইডমিইউকে’র
ছবি : সংগৃহীত

যুক্তরাজ্যের উদ্বাস্তুদের মানবিক সহযোগিতা দিচ্ছে এইডমিইউকে। এসকল মানুষকে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী ও খাবার সরবরাহ করছে এই সংস্থাটি।

বৃহস্পতিবার (৯ মে) এইডমিইউকে’র সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘ইউনাইটিং ফর বেটার কমিউনিটি’ শ্লোগানকে ধারণ করে এইডমিইউকে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার ইয়র্ক মসজিদ ও ইসলামিক সেন্টারে উদ্বাস্তু দু’শতাধিক পরিবারের মধ্যে খাবার পরিবেশন ও নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, যুক্তরাজ্যে যারা রিফিউজি স্ট্যাটাসে আছেন তাদের মধ্যে অনেকে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তাদের সনাক্তের মাধ্যমে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে এইডমিইউকে। মানবতার সেবায় বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনাসহ নানাবিদ সচেতনতামূলক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে চলেছে এই সংস্থাটি।

কর্মসূচিতে ইয়র্কের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ অংশগ্রহণ করেন। উপস্থিত ছিলেন এইডমিইউকে’র উপদেষ্টা খালেকুজ্জামান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আখলাকুজ্জামান হারুন, রাকিব আলী, মাহতাব শামীম, ফারুক মিয়া, এইডমিইউকে’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মাকসুদ রহমান, ফিনান্স ডিরেক্টর দেওয়ান ছয়েফ আহমেদ, প্রোজেক্ট ও প্লানিং ডিরেক্টর জিহান আহমেদ চৌধুরী, কমিউনিকেশন হেড রিয়াজ চৌধুরী, ইভেন্ট হেড আনামু হক কায়েস, ভলেন্টিয়ার হেড আব্দুস শহিদ, ইভেন্ট প্ল্যানার মোহাম্মদ তাজিম উল্লাহ প্রমুখ।

রিয়াজ/এমএ/

লন্ডনে গ্রোথ স্ট্রাটেজি প্রোগ্রামে ৭ বাংলাদেশি উদ্যোক্তা

প্রকাশ: ০৮ মে ২০২৪, ০৬:২৭ পিএম
লন্ডনে গ্রোথ স্ট্রাটেজি প্রোগ্রামে ৭ বাংলাদেশি উদ্যোক্তা
ছবি : সংগৃহীত

লন্ডন বিজনেস স্কুল সম্প্রতি গ্রোথ স্ট্রাটেজির ওপর এক্সিকিউটিভ এডুকেশন প্রোগ্রামের আয়োজন করে। যেখানে এন্ট্রোপ্রেনারস অর্গানাইজেশন (ইও) বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের ৭ সদস্য অংশ নেয়। একজন উদ্যোক্তাকে পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে প্রযুক্তি কিংবা তথ্যগত যে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হচ্ছে, সে বিষয়ে কর্মশালায় বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে মোট ৭৭ জন উদ্যোক্তা এই সপ্তাহব্যাপী কর্মশালায় অংশ নেন। জন মুলিন্সের মতো বিশ্বখ্যাত অধ্যাপকদের নেতৃত্বে কর্মশালায় ক্লাসরুম সেশন, কেস স্টাডি এবং গ্রুপ স্টাডিজ অন্তর্ভুক্ত ছিল। বাংলাদেশ থেকে অংশ নেওয়া তরুণ উদ্যোক্তাদের ব্যবসায়িক সাফল্য এবং দক্ষতা অন্য দেশের ব্যবসায়ীদের মুগ্ধ করেছে।

বাংলাদেশ থেকে অংশ নেন- এপেক্স প্রোপার্টি লিমিটেডের চেয়ারম্যান মাইক কাজী, অনন্ত গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শরীফ জহির, ইভিন্স গ্রুপের পরিচালক শাহ্ রাঈদ চৌধুরী, অ্যালটেক অ্যালুমিনিয়াম ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আম্মার মামুন, অ্যারিস্টো ফার্মা লিমিটেডের পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ হাসান, ফখর উদ্দিন ব্রাদার্সের পরিচালক ফখরউস সালেহীন নাহিয়ান এবং অপসোনিন ফার্মার এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর জুবায়ের খান।

লন্ডন বিজনেস স্কুলের শিক্ষামূলক প্রোগ্রামে অংশ নেওয়া বাংলাদেশি উদ্যোক্তারা বলেন, ‘এখানে হাতে কলমে শেখা অভিজ্ঞতালব্ধ জ্ঞান উদ্যোক্তাযাত্রার পথকে সমৃদ্ধ করবে। আমরা যা শিখেছি তা নিজের প্রতিষ্ঠান এবং দেশের শিল্পায়নে কাজে লাগাতে পারব।’

এন্ট্রোপ্রেনারস অর্গানাইজেশন একটি বিশ্বব্যাপী নেটওয়ার্কিং প্ল্যাটফর্ম। যা ১৯৮৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং বর্তমানে ৭৬টি দেশের ১৮ হাজার উদ্যোক্তা এর সদস্য। বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠানটি ২০১৬ সালে যাত্রা শুরু করে এবং বর্তমান সদস্য সংখ্যা ৫৫।

সালমান/

খান শওকতকে বহিষ্কার করল যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ

প্রকাশ: ০৫ মে ২০২৪, ০৯:০৮ পিএম
খান শওকতকে বহিষ্কার করল যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ
বহিষ্কৃত খান শওকত। ছবি : সংগৃহীত

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয় নেতাদের শূন্য পদ পূরণ করতে বলেছেন। তার নির্দেশ মতে গত ১৭ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান ২৫ জনকে কার্যনির্বাহী কমিটিতে জায়গা দেন। নতুন কমিটিতে উপ-প্রচার সম্পাদক হিসেবে ছিলেন খান শওকত। দলীয় নেতা-কর্মী ও সাধারণ জনগণের অভিযোগে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

গতকাল শনিবার (৪ মে) খান শওকতকে বহিষ্কার করা হয়।

নতুন কমিটিতে ১৩ জন সম্পাদকীয় এবং ১২ জন কার্যনির্বাহী সদস্য বলে জানা গেছে।

বহিষ্কারের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের অভিযোগ ছিল, খান শওকত জামায়াত ও বিএনপি ঘেঁষা সাম্প্রদায়িক মানুষ। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে তিনি পহেলা বৈশাখ সম্পর্কে সাম্প্রদায়িকতার কথা ছড়িয়েছেন। গণমাধ্যমকর্মীর তথ্যের ভিত্তিতে তাকে উপ-প্রচার সম্পাদক পদ হতে অব্যাহতি দিয়েছি।’

বহিষ্কৃত খান শওকত বলেন, ‘আমি নোংরা রাজনীতির শিকার। আমার সঙ্গে ঈর্ষাবশত এ কাজ করা হয়েছে। গত পহেলা বৈশাখে আয়োজক ও অভিবাসীদের বলেছি, পহেলা বৈশাখ উদযাপন না করতে। কাউকে জোর করিনি অনুষ্ঠানে না যেতে। মুসলমানদের পহেলা বৈশাখ সম্পর্কে সচেতন করতে চেয়েছি। হিন্দুয়ানি সংস্কৃতি মুসলমানদের পালন করা উচিত নয় বলে জানিয়েছি। আমি সাম্প্রদায়িকতা করলাম কীভাবে?’

কমিউনিটি অ্যাক্টিভিস্ট ও লেখক মাহবুব রহমান বলেন, ‘খান শওকত পহেলা বৈশাখের আগে এ নিয়ে বিরোধিতা করে ফেসবুকে ও মানুষকে ফোন করে সর্বজনীন এ উৎসব সম্পর্কে নেতিবাচক প্রচার চালিয়েছেন। আমার পোস্টে এক মন্তব্যে তার সাম্প্রদায়িক এবং বাংলা সংস্কৃতিবিরোধী মনোভাবের বহিপ্রকাশ ঘটেছিল। গত বছর নিউইয়র্কে পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠান ঠিক তারিখে হওয়ার বিরোধিতা করেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের এমন সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাই।’

সালমান/

ভিয়েনায় বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে বঙ্গবন্ধুর আবক্ষভাস্কর্য উন্মোচন

প্রকাশ: ৩০ এপ্রিল ২০২৪, ০২:২৯ পিএম
ভিয়েনায় বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে বঙ্গবন্ধুর আবক্ষভাস্কর্য উন্মোচন
ভিয়েনায় বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ ভাস্কর্য উন্মোচন করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ছবি: সংগৃহীত

অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায় বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ ভাস্কর্য উন্মোচন করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

সোমবার (২৯ এপ্রিল) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এর আগে গত রবিবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ভিয়েনায় বাংলাদেশ দূতাবাস ও স্থায়ী মিশনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি আবক্ষ ভাস্কর্য উন্মোচন ও শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। এ সময় জাতির পিতার ভাস্কর্য স্থাপনের জন্য দূতাবাসকে ধন্যবাদ জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শুধু বাঙালির বঙ্গবন্ধু নন, বিশ্ব মানবতার প্রতীক বিশ্ববন্ধু। শেখ মুজিব মুক্তিকামী, স্বাধীনতাকামী, নিপীড়িত-নির্যাতিত মানুষের শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে এক অবিনাশী আলোকবর্তিকা।’

রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি আসাদ আলম সিয়াম, দূতাবাসের কর্মকর্তারা ও প্রবাসী বাংলাদেশি প্রতিনিধিরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। ভাস্কর্য উন্মোচন শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী দূতাবাস প্রাঙ্গণে একটি গাছের চারা রোপণ করেন ও বঙ্গবন্ধু কর্নারসহ দূতাবাসের বিভিন্ন অংশ ঘুরে দেখেন। ভিয়েনায় দূতাবাসটি বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব সম্পত্তি বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।