ঢাকা ২ বৈশাখ ১৪৩১, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪
Khaborer Kagoj

মাইক্রোসফটের জন্য কাস্টম চিপ তৈরি করবে ইন্টেল

প্রকাশ: ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১:৩৯ এএম
মাইক্রোসফটের জন্য কাস্টম চিপ তৈরি করবে ইন্টেল

প্রযুক্তি জায়ান্ট মাইক্রোসফট কাস্টম কম্পিউটিং চিপ তৈরিতে ইন্টেলের পরিষেবা ব্যবহারের পরিকল্পনা করছে। নতুন ফাউন্ড্রি বিভাগের জন্য মাইক্রোসফটের মতো বড় গ্রাহক পেয়েছে মার্কিন চিপ নির্মাতা ইন্টেল। যা এর আগে ‘ইন্টেল ফাউন্ড্রি সার্ভিসেস’ নামে পরিচিত ছিল। মাইক্রোসফটের সিইও সত্য নাদেলার বরাত দিয়ে ব্লুমবার্গ ও দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল জানিয়েছে, মাইক্রোসফট পরবর্তী নিজস্ব চিপ ডিজাইনের জন্য ইন্টেলের সর্বশেষ ১৮এ (১.৮ ন্যানোমিটার) ফ্যাব্রিকেশন প্রক্রিয়া ব্যবহার করবে। তবে ইন্টেলের প্রসেস রোডম্যাপ অনুসারে সম্ভবত ২০২৫ সালের আগে এই কাস্টম কম্পিউটিং চিপ বাজারে আসবে না। 

ক্যালিফোর্নিয়ার সান হোসেতে অনুষ্ঠিত প্রথম প্রযুক্তি সম্মেলনে এ তথ্য প্রকাশ করেছে ইন্টেল। মার্কিন চিপ নির্মাতা জানায়, তারা ইন্টেল ১৮এ উৎপাদন প্রযুক্তি দিয়ে চলতি বছরের শেষদিকে টিএসএমসি থেকে বিশ্বের দ্রুততম চিপ তৈরির খেতাব পুনরুদ্ধারের লক্ষ্য নিয়েছে। পাশাপাশি ইন্টেল ১৪এ প্রযুক্তির মাধ্যমে ২০২৬ সালেও চিপ উৎপাদনে নিজেদের নেতৃত্ব ধরে রাখার বিষয়ে আশাবাদী।

যদিও কোনো কোম্পানিই তাদের চিপ সম্পর্কে বিস্তারিত জানায়নি। তবে গত নভেম্বরে মাইক্রোসফট নিজেদের কাস্টমাইজ করা ‘আজুরে মাইয়া এআই এক্সিলারেটর’ ও ‘আজুরে কোবাল্ট ১০০ সিপিউ’ সার্ভার চিপ প্রকাশ করেছিল। যা এই বছরের শুরুর দিকে বাজারে আসার কথা ছিল। এটি কোবাল্ট ১০০ আর্ম আর্কিটেকচারের ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে। আর এর লক্ষ্য ছিল কোম্পানির নিজস্ব এআই পরিষেবার সক্ষমতা বাড়ানো। ইন্টেল গত বছরের এপ্রিল থেকেই আর্ম ডিজাইনের জন্য তাদের ১৮এ প্রসেসকে অপ্টিমাইজ করছে। এমনকি প্রতিষ্ঠানটি আর্মে বিনিয়োগও করেছে। প্রতিষ্ঠান দুটির যৌথভাবে পরবর্তী প্রজন্মের কোবাল্ট সিপিউ তৈরির সম্ভাবনাও রয়েছে।

ইন্টেলের ১৪এ প্রযুক্তি উন্মোচনের মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মতো প্রতিষ্ঠানটি ২০২৫ সালের পর তাদের বিস্তারিত পরিকল্পনা প্রকাশ করেছে। চিপ তৈরিতে নিজেদের নেতৃত্ব পুনরুদ্ধারে তিন বছর আগে প্রতিষ্ঠানটির সিইও প্যাট গেলসিঙ্গার সময় নির্ধারণ করে দিয়েছিলেন।

এ.জে/জাহ্নবী

হুয়াওয়ে আনবে তিন ভাঁজের স্মার্টফোন

প্রকাশ: ০৮ এপ্রিল ২০২৪, ১১:২২ এএম
হুয়াওয়ে আনবে তিন ভাঁজের স্মার্টফোন

চীনা প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে প্রতিনিয়ত স্মার্টফোনের ডিজাইনসহ উদ্ভাবনী প্রযুক্তিতে যোগ করতে কাজ করে চলেছে। এর ধারাবাহিকতায় প্রতিষ্ঠানটি এবার ফোল্ডেবল বা ডিসপ্লে ভাঁজ করা যায়- এমন স্মার্টফোন বাজারে নতুন সংযোজন আনতে চলেছে। তিন ভাঁজের ডিসপ্লের স্মার্টফোন আনবে চীনা প্রতিষ্ঠানটি। হুয়াওয়ে সম্প্রতি তিন ভাঁজযোগ্য ডিসপ্লের স্মার্টফোন তৈরির পেটেন্ট আবেদন করেছে। প্রযুক্তি দুনিয়ায় গুঞ্জন রয়েছে, চলতি বছরের শেষ নাগাদ এ স্মার্টফোন বাজারে আনতে পারে প্রতিষ্ঠানটি।  

প্রযুক্তিবিষয়ক সংবাদমাধ্যম গিজমোচায়না আইটিহোমের বরাত দিয়ে সম্প্রতি হুয়াওয়ের করা পেটেন্ট আবেদনের বিষয়টি জানিয়েছে। সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে জানা যায়, ডিভাইসটি ভাঁজ করা অবস্থায় ইংরেজি ‘জেড’ অক্ষরের মতো দেখাবে। ভাঁজের জন্য ডিভাইসে আলাদা দুটি হিঞ্জ সিস্টেম থাকবে। এ ডিভাইসের অন্যতম একটি ফিচার হলো দ্বিতীয় হিঞ্জে থাকা ডিসপ্লেটি বাইরের দিকেও খোলা যাবে। ফলে ডিভাইস ভাঁজ করা থাকলেও ডিসপ্লের তৃতীয় অংশটি পুরোপুরি ব্যবহার করা যাবে।

এর আগে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে যুক্তরাষ্ট্রের লাসভেগাসে অনুষ্ঠিত প্রযুক্তিপণ্যের মেলা কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক শোতে (সিইএস) ডিসেপ্লে তিন ভাঁজ করা যাবে- এমন স্মার্টফোনের ধারণা দিয়েছিল দক্ষিণ কোরিয়ার প্রযুক্তি জায়ান্ট স্যামসাং। তবে এ ধরনের ফোন বাজারে আনার বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানায়নি প্রতিষ্ঠানটি। প্রযুক্তিসংশ্লিষ্টদের মতে, চলতি বছর হয়তো দুটি কোম্পানি একই সঙ্গে ডিভাইসগুলো বাজারে আনতে পারে।

২০২৩ সালের শেষদিকে বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান ট্রেন্ডফোর্সের (TrendForce) সর্বশেষ তথ্যে অনুযায়ী জানা যায়, হুয়াওয়ে ডিসপ্লে তিন ভাঁজ করা যায় এমন ফোনের জন্য কাজ করছে। গত বছরের নভেম্বরে হুয়াওয়ের এক ব্লগপোস্টে বলা হয়, ২০২৪ সালের মার্চ মাস নাগাদ এই নতুন ট্রিপল-ফোল্ডেবল ফোন লঞ্চ করা হতে পারে।

গঠনগত সমস্যার কারণে এখন পর্যন্ত তিন ভাঁজের স্মার্টফোন বাজারে আসেনি। কেননা যন্ত্রাংশের কারণে এর ওজন বেড়ে যাওয়ায় ব্যবহার করা কঠিন হয়ে যায়। তবে হুয়াওয়ের পেটেন্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রতিষ্ঠানটির নতুন এ ডিভাইসের প্রতিটি যন্ত্রাংশের ওজন আলাদা থাকবে। ফলে ডিভাইসের ওজনও তুলনামূলক কম হবে। হুয়াওয়ের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত নতুন এ স্মার্টফোন বাজারজাতের বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানানো হয়নি।

কলি

বাজেটের মধ্যে কিনেতে পারেন ল্যাপটপ

প্রকাশ: ০৭ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৫০ এএম
বাজেটের মধ্যে কিনেতে পারেন ল্যাপটপ

বর্তমান আধুনিক যুগে শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে পেশাদারদের দৈনন্দিন কাজের একটি মৌলিক চাহিদা হয়ে উঠেছে ল্যাপটপ। কনটেন্ট তৈরি, মিডিয়ার ব্যবহার বা পেশাদার কাজে একটি ভালো ল্যাপটপ যেকোনো কাজকে সহজ করে দেয়। তবে কিনতে গিয়ে ল্যাপটপের ফিচার, কর্মক্ষমতা ও দামের মধ্যে সমন্বয় জটিল হয়ে যায়।

আসুস ভিভোবুক গো ফিফটিন শিক্ষার্থী ও কর্মজীবীদের ব্যবহারের জন্য বেশ উপযোগী হবে। এটিতে রয়েছে সেভেন জেনারেশন এএমডি রাইজেন ৫ ৭৫২০ইউ  সিপিই। এটির ওজন মাত্র ১ দশমিক ৬৩ কেজি। ল্যাপটপটিতে রয়েছে ৮ জিবি র‌্যাম ও ৫১২ জিবি এসএসডি স্টোরেজসহ উইন্ডোজ ইলেভেন। ডিভাইসটির ডিসপ্লের রেজ্যুলুশন ১৯২০ x ১০৮০ পিক্সেল। আর এই প্যানেলের সর্বোচ্চ উজ্জ্বলতা হবে ২৫০ নিটস। বাংলাদেশে এটির দাম পড়বে ৭৮ হাজার টাকার আশপাশে।

লেনোভো থিংকবুক ফিফটিন জি-ফাইভ হাল্কা থেকে মাঝারি ধরনের কাজের জন্য ভালো হবে। এতে রয়েছে শক্তিশালী এমডি রাইজেন-৫ ৭৫৩০ সিপিইউ। এই ল্যাপটপে রয়েছে উচ্চ রেজ্যুলুশনের ডিসপ্লে, যার আকার ১৫ দশমিক ৬ ইঞ্চি।  এতে রয়েছে ৮ জিবি র‌্যাম ও ৫১২ জিবি এসএসডি স্টোরেজসহ ২০২৪ সালের স্ট্যান্ডার্ড ফিচারগুলো। ভালো মানের অডিওর জন্য এটিতে রয়েছে ‘ডলবি অডিও’ প্রযুক্তি। এর দাম পড়বে প্রায় ৭০ হাজার টাকা।

এমএসআই মডার্ন ফোরটিন মাল্টিটাস্কের জন্য আদর্শ ডিভাইস। ল্যাপটপটিতে কোর আই-ফাইভ ১২৩৫ইউ প্রসেসরের সঙ্গে ইন্টিগ্রেটেড আইরিস এক্স গ্রাফিক্স রয়েছে। এতে রয়েছে ১৬ জিবি র‌্যাম ও ৫১২ জিবি এসএসডি স্টোরেজ সুবিধা। এই ল্যাপটপটি বেশ হাল্কা। এর ওজন মাত্র ১ দশমিক ৪ কেজি। এটি কিনতে খরচ করতে হবে প্রায় ৮১ হাজার টাকা।

কলি 

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্যামেরা তৈরি করলেন যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা

প্রকাশ: ০৬ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৪৪ এএম
বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্যামেরা তৈরি করলেন যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা

যুক্তরাষ্ট্রের এসএলএসি ন্যাশনাল অ্যাকসিলারেটর ল্যাবরেটরির গবেষক ও প্রকৌশলীরা বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্যামেরা নির্মাণ করেছেন। দুই দশকের গবেষণার পর এটি তৈরি করছে। সর্বকালের সেরা ছবি ও ভিডিও ক্যামেরাবন্দি করতে এটি নির্মাণ করেছে তারা। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এটির মাধ্যমে মহাবিশ্বের রহস্য উদঘাটন করা যাবে।

লেগাসি সার্ভে অব স্পেস অ্যান্ড টাইম (এলএসএসটি) ক্যামেরার রেজ্যুলশন ৩ হাজার ২০০ মেগাপিক্সেল। এর ওজন ৩ মেট্রিক টন ও লেন্সের ব্যাস ১ দশমিক ৫৭ মিটার বা ৫ দশমিক ১ ফুট। আইফোনের সর্বশেষ মডেলের স্মার্টফোনের রয়েছে মাত্র ৪৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা, যা এলএসএসটি ক্যামেরার তুলনায় মাত্র ০ দশমিক ০১ শতাংশ ডিটেইল ক্যাপচার করতে পারে।
চিলির রুবিন অবজার্ভেটরিতে একটি টেলিস্কোপের ওপরে এটি স্থাপন করা হলে, জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা এর সাহায্যে মহাবিশ্বের ‘ডার্ক ম্যাটার’ অনুসন্ধান করতে পারবেন।

ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও রুবিন অবজার্ভেটরি কনস্ট্রাকশন পরিচালক জেলজকো ইভেসিক বলেছেন, ‘আমরা শিগগিরই সর্বকালের সেরা ছবি ও ভিডিও ক্যাপচার করতে পারব। পাশাপাশি রাতের আকাশের সবচেয়ে বিস্তৃত মানচিত্র তৈরি করতে শুরু করব।’ 
রুবিন অবজার্ভেটরির উপপরিচালক অ্যারন রুডম্যান বলেছেন, ‘এই ক্যামেরার রেজ্যুলশন এত উচ্চ যে, এর একটি ছবি পুরোপুরি দেখাতে কয়েকশ হাই ডেফিনিশন টেলিভিশন প্রয়োজন হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এটির ছবি এত বিস্তৃত যে, প্রায় ১৫ মাইল দূর থেকেও একটি গলফ বল দেখা যাবে। এমনকি এটি দিয়ে পূর্ণ চাঁদের চেয়ে সাতগুণ বড় আকাশের একটি অংশের ছবি তোলা যাবে। কয়েক কোটি তারকা ও গ্যালাক্সি সমৃদ্ধ এই ছবিগুলো বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের রহস্য উন্মোচনে সাহায্য করবে।’

কলি 

 

বিটিসিএল ডোমেইন সার্ভারে ত্রুটি, ওয়েবসাইট ডাউন

প্রকাশ: ০৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১:০৮ এএম
বিটিসিএল ডোমেইন সার্ভারে ত্রুটি, ওয়েবসাইট ডাউন

বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল) নিয়ন্ত্রিত তিনটি ডোমেইন সার্ভারে গত মঙ্গলবার রাত থেকেই ত্রুটি দেখা দেয়। এরপর থেকেই এসব ডোমেইন সার্ভার নিয়ন্ত্রিত কোনো সরকারি-বেসরকারি ওয়য়েবসাইটে ব্যবহারকারীরা প্রবেশ করতে পারছেন না। বিটিসিএল নিয়ন্ত্রিত সার্ভারগুলো হচ্ছে ডট গভ ডট বিডি, ডট কম ডট বিডি ও ডট বাংলা। তবে ওয়েবসাইটগুলোয় যদি এসব ডোমেইন ছাড়া অন্য কোনো ডোমেইন যুক্ত থাকলে, তা ব্যবহার করে ওয়েবসাইটগুলোয় প্রবেশ করা যাচ্ছে।

মঙ্গলবার রাত থেকেই এই তিন ডোমেইনের ওয়েবসাইটগুলোয় প্রবেশ করা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন ব্যবহারকারীরা। দেশের প্রায় সবগুলো মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট এসব ডোমেইন ব্যবহার করা হয়েছে। ফলে সেগুলোয় প্রবেশ করতে পারছেন না ব্যবহারকারীরা। এ ছাড়া ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান দারাজ, ইভ্যালি ও সংবাদ সংস্থা ইউএনবিসহ অনেক বেসরকারি ওয়েবসাইট এসব ডোমেইন ব্যবহার করা হয়। সেই সব ওয়েবসাইটেও প্রবেশ করা যাচ্ছে না।

ডোমেইন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো জানিয়েছে, বাংলাদেশের ভার্চুয়াল জাতীয় পরিচয়ের রুট ডোমেইন নেটওয়ার্ক সিস্টেমে (ডিএনএস) সমস্যার কারণে এমনটা হয়েছে। এসব ডোমেইনে থাকা সরকারি-বেসরকারি ওয়েবসাইটগুলো অনলাইনে ‘আন অ্যাভেইলেবেল’ দেখাচ্ছে। বিটিসিএল সূত্রে জানা গেছে, প্রকৌশলীরা এরই মধ্যে সমস্যা সমাধানে কাজ করেছেন। বিটিসিএল ডোমেইন সার্ভারে ২০২০ সালের আগস্ট মাসে এ ধরনের সমস্যা হয়েছিল। তাৎক্ষণিক সমস্যা সমাধানের ব্যবস্থা নেওয়া হয়। তবে প্রায় একদিন পর এটি আবার চালু হয়।

 কলি

 

গুগল ম্যাপসে তিন আপডেট

প্রকাশ: ০৩ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৫২ পিএম
গুগল ম্যাপসে তিন আপডেট

সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্ট গুগলের ‘গুগল ম্যাপস’ অ্যাপের মাধ্যমে নেভিগেশন বা কোনো জায়গা খোঁজ করা এ সময়ের প্রযুক্তি ব্যবহারকারীদের মাঝে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। গুগল অ্যাপলিকেশনটির ব্যবহার করার অভিজ্ঞতা আরও উন্নত করতে প্রতিনিয়ত আপডেট করেই চলেছে। এর অংশ হিসেবে সম্প্রতি এতে আরও তিনটি ফিচার যুক্ত করেছে প্রতিষ্ঠানটি। আসন্ন গ্রীষ্মকালীন ছুটির মৌসুমে পর্যটকদের কথা মাথায় রেখে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

মার্চের ২৭ তারিখে গুগল এক ব্লগপোস্টে বিষয়টি জানিয়েছে। এই নতুন আপডেটের ফলে ব্যবহারকারীরা যখন ঘোরাঘুরি করবেন, তখন কোথায় যাবেন সে সম্পর্কে জানতে জায়গার নামের তালিকা ইচ্ছেমতো সাজাতে বা তৈরি করতে পারবেন।

অ্যাপটির ডিজাইনেও নতুনত্ব আনা হয়েছে। এই নতুন ডিজাইন আগের তুলনায় অনেক গোছানো। এতে অল্পসংখ্যক ট্যাবও রাখা হয়েছে। পিনের রঙেও এসেছে নতুনত্ব। এটি মানচিত্রে কোনো স্থান খুঁজে পেতে সাহায্য করবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

গুগল ম্যাপের নতুন ব্যবহারকারীদের জন্য ডিজাইনে বড় ধরনের পরিবর্তন আনা হয়েছে। বিশেষ করে রেস্তোরাঁ ও নির্দিষ্ট জায়গা খুঁজে পাওয়ার জন্য ম্যাপের ডিজাইন পরিবর্তন করা হয়েছে।

গুগল মানচিত্রে এখন রেস্তোরাঁ ও ঘুরতে যাওয়ার জায়গা খুঁজে পেতে আরও সহজ করেছে। যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার নির্দিষ্ট কিছু শহরে বিশেষজ্ঞ ও স্থানীয়দের সঙ্গে যোগাযোগ করে গুগল ব্যবহারকারীদের জন্য রেস্তোরাঁর তালিকা তৈরি করেছে। ব্যবহারকারীর ইচ্ছা অনুযায়ী কোনো শহরের নাম খোঁজ করলে, সে সম্পর্কিত সুপারিশ দেখতে পারবেন।

গুগল ম্যাপস ব্যবহারকারীরা দ্য ইনফাচুয়েশন, লোনলি প্লানেট, ট্রেন্ডি স্পোর্টসের মতো বিশ্বস্ত সূত্র থেকে তালিকা পাবেন। ট্রেন্ডিং থাকা তালিকায় গ্রাহকদের আগ্রহ অনুসারে নতুন রেস্তোরাঁর তালিকা সামনে চলে আসবে। বেশির ভাগ মানুষ কোন জায়গায় বেশি ভিড় জমিয়েছে, সে অনুযায়ী তালিকায় রেস্তোরাঁগুলোর নাম থাকবে ওপরের দিকে। তারপরের স্থানে থাকবে স্থানীয়দের পছন্দ অনুযায়ী রেস্তোরাঁ বা জায়গার নাম। এটি পর্যটকদের জন্য আগে ছিল না।  চোখে আগে কখনো পড়েনি।

সূত্র : নিউজ১৮

কলি