ঢাকা ১১ বৈশাখ ১৪৩১, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪
Khaborer Kagoj

লেনোভোর স্বচ্ছ মাইক্রো এলইডি ডিসপ্লের ল্যাপটপ

প্রকাশ: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১:১৭ এএম
লেনোভোর স্বচ্ছ মাইক্রো এলইডি ডিসপ্লের ল্যাপটপ

চীনা প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান লেনোভো স্বচ্ছ মাইক্রো এলইডি ডিসপ্লের ল্যাপটপ উন্মোচন করেছে। এই স্বচ্ছ মাইক্রো এলইডি ডিসপ্লের ল্যাপটপের ধারণাকে লেনোভো ‘প্রোজেক্ট ক্রিস্টাল’ হিসেবে তুলে ধরেছে। তবে এটি এখনই বাজারে আসছে না। শুধু ধারণাগত ডিভাইস হিসেবে সবার সামনে এনেছে। যা বিশ্বের প্রথম স্বচ্ছ ল্যাপটপ বলে মনে করা হচ্ছে, এটি অনেকটাই কল্পবিজ্ঞানের বাস্তব রূপ।

বর্তমানে প্রোজেক্ট ক্রিস্টাল খুচরা পণ্য হিসেবে বাজারে আনার কোনো পরিকল্পনা নেই প্রতিষ্ঠানটির। লেনোভোর এই সর্বাধুনিক ধারণার নমুনা ডিভাইস নিয়ে থিংকপ্যাড বিভাগ কাজ করবে। তারা স্বচ্ছ মাইক্রো এলইডি প্যানেল ও এআই সমন্বয় করে এটি ব্যবহারের সম্ভাব্য জায়গা অনুসন্ধান করবে। এ ধরনের ডিসপ্লে তথ্য শেয়ার করার জন্য সবচেয়ে উপযোগী হবে। ল্যাপটপটি ডাক্তারের চেম্বার বা হোটেলের ফ্রন্ট ডেস্কে তথ্য শেয়ার করার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। সরাসরি ল্যাপটপটি উল্টো না ধরে, সফটওয়্যারের মাধ্যমে ডিসপ্লেটি উল্টা দিকে ঘুরিয়ে দেওয়া যাবে। যেন অন্য পাশের যে কেউ এটি দেখতে পায়।

লেনোভো বলেছে, সিস্টেমের পেছনে থাকা ক্যামেরা একত্রে কাজ করলে এটি সম্ভবত এআর অ্যাপ্লিকেশনেও কাজ করবে।

উদাহরণ হিসেবে গুগল লেন্সের মতো কোনো বস্তু শনাক্ত করতে ব্যবহার করা যেতে পারে এর ক্যামেরা। লেনোভো এককভাবে প্রোজেক্ট ক্রিস্টালের জন্য কাজ করেছে। বর্তমানে মাইক্রো এলইডি ডিসপ্লে প্যানেলগুলো অত্যন্ত ব্যয়বহুল হয়। সাধারণত এ ধরনের প্যানেল স্যামসাংয়ের ‘দ্য ওয়াল’ বা অ্যাপলের ‘ভিশন প্রোর’ মতো অত্যাধুনিক গ্যাজেটের জন্য সংরক্ষিত রয়েছে। চলতি বছরে যুক্তরাষ্ট্রের লাসভেগাসে অনুষ্ঠিত প্রযুক্তিপণ্যের মেলা কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক শো ২০২৪-তে এই স্বচ্ছ ডিসপ্লে প্যানেলের সংস্করণগুলো শুধু ‘কনসেপ্ট’ বা ধারণামূলক পর্যায়ে দেখা গেছে।

বাস্তবে ডিসপ্লের স্বচ্ছতা কিছুটা বিভ্রান্তিকর মনে হতে পারে। ল্যাপটপটি বন্ধ বা ডিসপ্লে বন্ধ থাকা অবস্থায় প্রোজেক্ট ক্রিস্টালের স্ক্রিন প্রায় সামান্য বাদামি রঙের সাধারণ কাচের টুকরার মতো দেখায়।

তবে ডিভাইসটি চালু করার মুহূর্তে পুরো জিনিসটি যুদ্ধজাহাজের মতো জ্বলজ্বল করে ওঠে। এই ডিসপ্লের স্বাভাবিক উজ্জ্বলতা এক হাজার নিট পর্যন্ত। তবে লেনোভোর দাবি, এর সর্বোচ্চ উজ্জ্বলতা তিন হাজার নিট পর্যন্ত হতে পারে। যা স্যামসাংয়ের ‘গ্যালাক্সি এস২৪’ সিরিজের নতুন ফোনের চেয়েও উজ্জ্বল হবে। 

একাধিক স্তর দিয়ে তৈরি হওয়ার পরেও প্যানেলটি অত্যন্ত পাতলা। লেনোভো বলেছে বিশেষ ধরনের কনট্রাস্ট লেয়ার যুক্ত করার কথাও বিবেচনা করছে। এটি হলে কেবল একটি বাটনে চাপ দিয়ে ডিসপ্লেটিকে অস্বচ্ছ ডিসপ্লেতে রূপান্তর করা যাবে।

তুলনামূলকভাবে বড় ১৬ ইঞ্চি ডিসপ্লেটির রেজল্যুশন খুব বেশি, তাই কাছ থেকে ডিসপ্লেটি দেখলে পিক্সেল আলাদা আলাদা দেখা যাবে।

সূত্র: এনগ্যাজেট

কলি

 

মাইক্রোসফটের নতুন ভিডিও তৈরির এআই মডেল ‘ভাসা ওয়ান’

প্রকাশ: ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:২৯ পিএম
মাইক্রোসফটের নতুন ভিডিও তৈরির এআই মডেল ‘ভাসা ওয়ান’

যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি জায়ান্ট মাইক্রোসফট ছবি ও অডিও থেকে ভিডিও তৈরির কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) প্রযুক্তি নির্ভর ‘ভাসা ওয়ান’ মডেল তৈরি করেছে। গত সপ্তাহে মাইক্রোসফটের গবেষকরা তাদের তৈরি করা নতুন এআই মডেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানিয়েছেন।

এই এআই মডেল দিয়ে ছবির সঙ্গে অডিও ক্লিপ যুক্ত করে এক মিনিট দীর্ঘ ভিডিও তৈরি করা যাবে। যেখানে ছবিতে থাকা ব্যক্তি ঠোঁট নাড়িয়ে কথা বলবে। শুধু তাই নয় অডিওর বিষয় অনুযায়ী কথা বলার সময় চেহারায় অভিব্যক্তিও ফুটে উঠবে। সেই ব্যক্তির কথা বলার বাস্তবচিত্র ধরা দেবে তৈরি করা ভিডিওতে। এই এআই মডেলের মাধ্যমে ছবি ছাড়াও কার্টুন বা চিত্রকর্ম থেকে ভিডিও তৈরি করা 
একটি ডেমো ভিডিওতে গবেষকরা দেখিয়েছেন, মোনালিসাকে কীভাবে অভিনেত্রী অ্যান হ্যাথওয়ের একটি কৌতুকধর্মী আবৃত্তি করার জন্য অ্যানিমেটেড করেছেন।

মাইক্রোসফট জানিয়েছে, এই প্রযুক্তি শিক্ষার কাজে অথবা যোগাযোগে সমস্যার সম্মুখীন ব্যক্তিদের সমস্যা সমাধানে ব্যবহার করা যেতে পারে। এর মাধ্যমে মানুষের জন্য ভার্চ্যুয়াল সঙ্গীও তৈরি করা যাবে। তবে টুলটির অপব্যবহার বা কারও ছদ্মবেশী হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

এটা শুধু মাইক্রোসফটের জন্যই উদ্বেগের বিষয় নয়। এটা প্রযুক্তি সংশ্লিটদের মাঝেও শঙ্কা তৈরি করেছে। কারণ প্রতিনিয়ত জালিয়াতির কাজে ব্যবহার করা যায় এমন ছবি, ভিডিও এবং অডিও তৈরির প্রযুক্তি আবির্ভূত হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এগুলোর অপব্যবহার নতুন ধরনের ভুল তথ্যের বিস্তার ঘটাতে পারে। আবার কেউ কেউ মনে করছেন এই প্রযুক্তি চলচ্চিত্র বা বিনোদনের মতো সৃজনশীল শিল্পকে বিঘ্নিত করতে পারে।

মাইক্রোসফটের নতুন এআই মডেলকে মানুষ কথা বলছে এমন অসংখ্য ভিডিও দিয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। গবেষকদের মতে, এটি ঠোঁটের গতিবিধি, মুখের অভিব্যক্তি, চোখের দৃষ্টি ও চোখের পলক ফেলাসহ অন্যান্য প্রকৃত মুখ ও মাথার সঞ্চালন চিহ্নিত করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। যা এখন একটি ছবিকে অ্যানিমেট করে একটি বাস্তবিক ভিডিও তৈরি করতে পারে।

মাইক্রোসফট জানিয়েছে, এখনই তারা ভাসা ওয়ান এআই মডেলটি সবার জন্য উন্মুক্ত করছে না। কারণ এআই টুল ব্যবহার করে নকল ভিডিও বানিয়ে প্রতারণা ও গুজব তৈরি আশঙ্কা রয়েছে। ভাসা ওয়ান এআই মডেলও এর বাইরে নয়। এমনকি মডেলটির কোনো পরীক্ষামূলক সংস্করণও উন্মুক্ত করা হবে না। সূত্র: সিএনএন

কলি

 

প্রোগ্রামিংয়ের কাজ আরও সহজ করবে ৫টি কোডিং টুল

প্রকাশ: ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১১ পিএম
প্রোগ্রামিংয়ের কাজ আরও সহজ করবে ৫টি কোডিং টুল

প্রোগ্রামিংয়ের কাজ জটিল ও সময়সাপেক্ষ হয়ে থাকে। তবে বিভিন্ন কোডিং টুল ব্যবহার করে দক্ষতার সঙ্গে কাজের গতি বাড়ানো যায়। আর এই কোডিং টুল প্রোগ্রামিংয়ের কাজকে আরও সহজ করে তোলে। আজ এমন ৫টি কোডিং টুল সম্পর্কে জানাচ্ছেন আবরার জাহিন

ভিজ্যুয়াল স্টুডিও কোড (VS Code)
জনপ্রিয় ওপেন-সোর্স কোড সম্পাদনা টুল হচ্ছে ‘ভিজ্যুয়াল স্টুডিও কোড’। এটি বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ভাষা সমর্থন করে। সিনট্যাক্স হাইলাইটিং,  ডিবাগিং টুলস, গিট ইন্টিগ্রেশন ও এক্সটেনশন সাপোর্টের মতো এটিতে অনেকগুলো ফিচার রয়েছে, যা প্রোগ্রামিংকে সহজ করে তোলে। এটি বিনামূল্যে ব্যবহার করা যায়। এটি শিক্ষানবিশ ও অভিজ্ঞ প্রোগ্রামার উভয়ের ব্যবহারের জন্য উপযুক্ত।

সাবলাইম টেক্সট (Sublime Text)
সাবলাইম টেক্সট আরেকটি জনপ্রিয় ক্রস-প্ল্যাটফর্ম কোড সম্পাদনা টুল। এটিতেও ভিজ্যুয়াল স্টুডিও কোডের মতো অনেক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এতে দ্রুত ও কার্যকরভাবে প্রোগ্রামিং করা যায়। এটিতে অনেক ফিচার কাস্টমাইজ করা যায়।

গিট (Git)
গিট একটি ভার্সন কন্ট্রোল সিস্টেম, যা কোডের পরিবর্তনগুলো ট্র্যাক করতে ও পরিচালনা করতে সহায়তা করে। এটি কোডিং সহযোগিতার জন্য অপরিহার্য। এটি ব্যবহার করা তুলনামূলকভাবে সহজ।

গিটহাব (GitHub)
গিটহাব হচ্ছে কোড হোস্টিং প্ল্যাটফর্ম। যেখানে প্রোগ্রামাররা যেকোনো প্রোগ্রামিং প্রজেক্ট সংরক্ষণ ও শেয়ার করতে পারেন। এতে প্রোগ্রামিং প্রজেক্টে সহযোগিতা ও ইস্যু ট্র্যাকিংয়ের মতো অনেকগুলো ফিচার রয়েছে, যা প্রোগ্রামারদের দলীয়ভাবে কাজ করার জন্য প্রয়োজন হয়। এটি ওয়েব ও ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশন উভয়ভাবেই ব্যবহার করা যায়। এটি ব্যক্তিগত ও পেশাদার উভয় উদ্দেশ্যেই ব্যবহার করা যায়। এটি ওপেন সোর্স প্রকল্পগুলোর জন্য বিশেষভাবে জনপ্রিয়, যেখানে ডেভেলপাররা বিশ্বজুড়ে অন্যদের সঙ্গে তাদের কোড শেয়ার ও সহযোগিতা করে থাকে।

স্ট্যাক ওভারফ্লো
প্রোগ্রামিং সম্পর্কিত প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যায় স্ট্যাক ওভারফ্লো ওয়েবসাইটটিতে। এখানে বিভিন্ন প্রোগ্রামিং সমস্যার সমাধান খুঁজে পাওয়া যায়। এই ওয়েবসাইটে অন্যান্য প্রোগ্রামারের কাছ থেকে সাহায্য পাওয়া যায়।

কলি

মেটার নতুন এআই মডেল লামা ৩ ও ইমেজ জেনারেটর

প্রকাশ: ২১ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৫৪ এএম
মেটার নতুন এআই মডেল লামা ৩ ও ইমেজ জেনারেটর

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান মেটা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাভিত্তিক লার্জ ল্যাঙ্গুয়েজ মডেল লামা ইমেজ জেনারেটর উন্মোচন করেছে। এগুলো সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি সবার সামনে এনেছে। এই ইমেজ জেনারেটর ব্যবহারকারীদের নির্দেশ লেখার সময় রিয়েল টাইমে ছবি আপডেট করতে পারে। লামা মডেল প্রশিক্ষণে নতুন কম্পিউটার কোডিং দক্ষতা দিয়ে সাজানো হয়েছে। এই মডেলগুলোকে মেটার ভার্চুয়াল সহকারীমেটা এআইয়ের সঙ্গে একত্রিত করা হবে।

প্রতিষ্ঠানটি দাবি করছে, বিনামূল্যে ব্যবহার করা যায় এমন অন্যান্য এআই মডেলের তুলনায় মেটা এআই সবচেয়ে জটিল কাজগুলো করতে পারে। বর্তমানে মেটা এআই চ্যাটবট বেসিক চ্যাটজিপিটির চেয়ে উন্নত বলে বিশ্বাস করে প্রতিষ্ঠানটি। কোডিং সৃজনশীল লেখার মতো বিষয়গুলোতে এর কর্মক্ষমতা তুলনা করে দেখা গেছে, এটি ফরাসি স্টার্টআপ মিস্ট্রাল এআইসহ অন্যদের থেকে এগিয়ে।

মেটা এআই মডেল ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপ মেসেঞ্জার অ্যাপগুলোতে ব্যবহার করা যায়। ছাড়া এই মডেলের জন্য একটি নতুন স্বতন্ত্র ওয়েবসাইট চালু করা হচ্ছে। মেটা তাদের আগের বেশির ভাগ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা গবেষণার মতোই লামা মডেলকেও সবার পরীক্ষা-নিরীক্ষা ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করছে। এটি গুগল এবং ওপেনএআইয়ের মতো প্রতিযোগীদের থেকে এগিয়ে রাখবে। মেটা মনে করে, এই সিস্টেমটি সবার জন্য উন্মুক্ত করলে নতুন আবিষ্কার উদ্ভাবনীকে উৎসাহিত করা যাবে। ছাড়া বিভিন্ন কাজে এআই ব্যবহারের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

মেটা কয়েক বিলিয়ন ব্যবহারকারীকে লক্ষ করে জেনারেটিভ এআই পণ্য বাজারে আনার জন্য চেষ্টা চালাচ্ছে। তারা ওপেনএআইয়ের মতো শীর্ষস্থানীয় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাভিত্তিক প্রতিষ্ঠানের অবস্থানকে চ্যালেঞ্জ করতে চায়। এজন্য মেটা তাদের কম্পিউটিং অবকাঠামোর ব্যয়বহুল সংস্কার এবং পৃথক থাকা প্রযুক্তি গবেষণা দলগুলোকে একত্রিত করছে।

প্রতিযোগিতায় এগিয়ে থাকার কৌশল হিসেবে প্রতিষ্ঠানটি এআই অ্যাপ তৈরি করে এমন ডেভেলপারদের জন্য লামা মডেলগুলো ওপেন-সোর্স হিসেবে প্রকাশ করছে। তবে সমালোচকরা এই বিষয়ে নিরাপত্তাসংক্রান্ত উদ্বেগ জানিয়েছেন। কারণ খারাপ উদ্দেশ্যে এই মডেল ব্যবহার করা হতে পারে, সে বিষয়ে তাদের আশঙ্কা রয়েছে।

কলি

বিশ্বব্যাপী বাজারে এসেছে মটোরোলা এজ৫০ সিরিজের স্মার্টফোন

প্রকাশ: ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৫১ পিএম
বিশ্বব্যাপী বাজারে এসেছে মটোরোলা এজ৫০ সিরিজের স্মার্টফোন

মার্কিন প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতাপ্রতিষ্ঠান মটোরোলা চলতি মাসে বিশ্বব্যাপী বাজারে এনেছে ‘মটোরোলা এজ৫০’ সিরিজের স্মার্টফোন। এই সিরিজের স্মার্টফোনে তিনটি মডেল রয়েছে। মডেলগুলো হলো মটোরোলা এজ৫০ ফিউশন, এজ৫০ প্রো ও এজ৫০ আলট্রা। এই সিরিজে শক্তিশালী কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন চিপসেট ব্যবহার হয়েছে।  

মটোরোলা এজ৫০ ফিউশন
মটোরোলা এজ৫০ ফিউশনে রয়েছে ৬ দশমিক ৭ ইঞ্চির ফুল এইচডিপ্লাস পিওএলইড ডিসপ্লে, যার সর্বোচ্চ রিফ্রেশ রেট ১৪৪ হার্জ ও  পিক ব্রাইটনেস ১৬০০ নিটস। এটিতে রয়েছে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৭এস জেন২ এসওসি চিপসেট। আর রয়েছে ২৫৬ গিগাবাইট অভ্যন্তরীণ স্টোরেজ সুবিধাসহ ১২ গিগাবাইটের র্যাম।

এজ৫০ ফিউশনে ক্যামেরায় রয়েছে একটি করে ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর ও ১৩ মেগাপিক্সেল আলট্র ওয়াইড লেন্সসহ একটি ডুয়াল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ। এটিতে একটি ৩২ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরাও রয়েছে।ফোনটির ব্যাটারি সক্ষমতা ৫ হাজার মিলি অ্যাম্পিয়ার আওয়ার। ফোনটিতে ৬৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সুবিধাও পাওয়া যাবে।

মটোরোলা এজ৫০ প্রো
মটোরোলা এজ৫০ প্রোতে রয়েছে ৬ দশমিক ৭ ইঞ্চির ১ পয়েন্ট ৫ কে পিওএলইড ডিসপ্লে, যার সর্বোচ্চ রিফ্রেশ রেট ১৪৪ হার্জ ও  পিক ব্রাইটনেস ২ হাজার নিটস। এতে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৭ জেন ৩ চিপসেট ব্যবহার করা হয়েছে। আর রয়েছে ৫১২ গিগাবাইট অভ্যন্তরীণ স্টোরেজ সুবিধাসহ ১২ গিগাবাইটের র্যাম।  

মটোরোলা এজ৫০ প্রো মডেলে একটি ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ রয়েছে, যাতে একটি করে ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি ক্যামেরা, ১০ মেগাপিক্সেলের টেলিফোটো সেন্সর ও ১৩ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড ক্যামেরা রয়েছে। এদিকে সেলফির জন্য ৫০ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা রয়েছে। ফোনটির ব্যাটারি সক্ষমতা ৪ হাজার ৫০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার আওয়ার। ফোনটি ১২৫ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সুবিধাও সঙ্গে পাওয়া যাবে ৫০ ওয়াট ওয়ারলেস চার্জিং ও ১০ ওয়াট রিভার্স চার্জিং সাপোর্ট।

মটোরোলা এজ৫০ আলট্রা
এজ৫০ আলট্রায় রয়েছে একটি ৬ দশমিক ৭ ইঞ্চির পিওএলইড ডিসপ্লে, যার সর্বোচ্চ রিফ্রেশ রেট ১৪৪ হার্জ ও পিক ব্রাইটনেস ২ হাজার ৫০০ নিটস। ফোনটিতে রয়েছে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮এস জেন ৩ প্রসেস। আর রয়েছে ১ টেরাবাইট অভ্যন্তরীণ স্টোরেজ সুবিধাসহ ১৬ গিগাবাইটের র্যাম।

নতুন এজ৫০ আলট্রায় রয়েছে একটি করে ৫০ মেগাপিক্সেল মেইন ক্যামেরা, ৬৪ মেগাপিক্সেল টেলিফোটো লেন্স ও ৫০ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড সেন্সর। সেলফি এবং ভিডিও কলের জন্য এটিতে ৫০ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরাও রয়েছে। মটোরোলা এজ৫০ আলট্রায় রয়েছে ৪ হাজার ৫০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি ও এজ৫০ প্রোর মতো একই চার্জিং ফিচার রয়েছে।

মটোরোলা এজ৫০ ফিউশন, এজ৫০ প্রো ও এজ৫০ আলট্রার দাম শুরু হয়েছে যথাক্রমে ৩৯৯ ইউরো, ৬৯৯ ইউরো ও ৯৯৯ ইউরো। এগুলোতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে রয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ফোরটিন ভিত্তিক হ্যালো ইউআই।

কলি

 

নতুন এক্স ব্যবহারকারীদের পোস্টের জন্য খরচ হবে অর্থ

প্রকাশ: ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ১১:২৪ এএম
নতুন এক্স ব্যবহারকারীদের পোস্টের জন্য খরচ হবে অর্থ

মার্কিন ধনকুবের ইলন মাস্কের মালিকানাধীন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে (সাবেক টুইটার) পোস্ট করার জন্য নতুন ব্যবহারকারীদের অর্থ খরচ করতে হবে। ভুয়া অ্যাকাউন্ট ও বটের সমস্যা সমাধানে এই নতুন পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন মাস্ক।

মাস্কের মালিকানাধীন সামাজিক প্ল্যাটফর্মটি বট সমস্যায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। এ সমস্যা সমাধানের পথ খুঁজছিল প্ল্যাটফর্মটি। তাই তারা মনে করছে- নতুন ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে পোস্টের জন্য নামমাত্র ফি নেওয়া হলে এই সমস্যা উতরানো যাবে।

ইলন মাস্ক এক্সের এক পোস্টে নিশ্চিত করেছেন, ‘নতুন এক্স ব্যবহারকারীদের পোস্ট করার জন্য এবং এমনকি রিপ্লাই দেওয়ার জন্য অর্থ প্রদান করতে হবে।’

মাস্ক আরও বলেন, ‘স্প্যাম ও বট এক্সে বড় ধরনের সমস্যা তৈরি করছে। এ সমস্যা কমানোর একমাত্র উপায়, নতুন যারা প্ল্যাটফর্মে যোগ দিচ্ছেন তাদের থেকে অর্থ আদায় করা।’ তবে সবাই ফ্রিতে প্ল্যাটফর্মটি ফলো ও ব্রাউজ করতে পারবে। নতুন কেউ যদি এক্সে যোগ দিতে আগ্রহী হয়, তাদের ফি দিতে হবে। যদিও ব্যবহারকারীদের এর জন্য ঠিক কত অর্থ খরচ করতে হবে ও কবে নাগাদ এই নীতি কার্যকর হবে তা জানানো হয়নি। ক্যাপচার মতো টুলের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ব্যবহারকারী বট কি না বর্তমানে এআই প্রযুক্তি এ ধরনের পরীক্ষা সহজেই পাশ কাটিয়ে যেতে পারে।

আরেক ব্যবহারকারীর পোস্টে মাস্ক বলেন, নতুন ব্যবহারকারীদের কেবল তিন মাসের জন্য ফি দিতে হবে। এরপর থেকে বিনামূল্যে পোস্ট করতে পারবেন ব্যবহারকারীরা ।

এক্সের এই কৌশল আগে থেকেই পরীক্ষা করা হচ্ছে। গত বছরের অক্টোবরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটি নিউজিল্যান্ড ও ফিলিপাইনে নতুন অ্যাকাউন্টের জন্য ১ মার্কিন ডলার ফি নেওয়া শুরু করেছে। এসব অঞ্চলে এক্সের নতুন ব্যবহারকারীরা বিনামূল্যে পোস্টগুলো পড়তে পারেন, তবে কারও সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন না। কনটেন্ট পোস্ট, লাইক, রিপোস্ট, রিপ্লাই, বুকমার্ক ও উদ্ধৃতি পোস্টের জন্য তাদের একটি ফি দিতে হয়। অন্যান্য অঞ্চলের জন্যও এমন ফি নির্ধারণ করতে পারে মাস্ক।

কলি