ঢাকা ২ বৈশাখ ১৪৩১, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪
Khaborer Kagoj

রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর ১০ বৈশিষ্ট্য

প্রকাশ: ০১ মার্চ ২০২৪, ০৮:৪৪ এএম
রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর ১০ বৈশিষ্ট্য
মসজিদে নববির সবুজ গম্বুজ। ছবি : সংগৃহীত

আল্লাহতায়ালা রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে এমন কিছু গুণ ও বৈশিষ্ট্য দান করেছেন, যার মাধ্যমে তিনি স্বতন্ত্র মর্যাদায় উন্নীত হয়ে মানবজাতির সকলকে ছাড়িয়ে স্বমহিমায় উদ্ভাসিত হয়েছেন। এই গুণ ও বৈশিষ্ট্যগুলো জগতের সব সৃষ্টি ও নবি-রাসুলদের ওপর তাঁর মর্যাদা এবং শ্রেষ্ঠত্বের দলিল। এখানে রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর স্বতন্ত্র ১০টি বৈশিষ্ট্যের কথা তুলে ধরা হলো—

১.  রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর প্রতি ঈমান আনয়ন : পৃথিবীতে যত নবি-রাসুল এসেছেন, প্রত্যেকের কাছ থেকে আল্লাহতায়ালা রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর প্রতি ঈমান আনা এবং তাঁকে সাহায্য করার প্রতিশ্রুতি নিয়েছেন। পবিত্র কোরআনে এরশাদ হয়েছে, ‘আর আল্লাহ যখন নবিদের কাছ থেকে অঙ্গীকার গ্রহণ করলেন যে, আমি যা কিছু তোমাদের দান করেছি কিতাব ও জ্ঞান, অতঃপর তোমাদের কাছে কোনো রাসুল আসেন তোমাদের কিতাবকে সত্য বলে দেওয়ার জন্য, তখন সে রাসুলের প্রতি ঈমান আনয়ন করবে ও তাঁকে সাহায্য করবে।’ (সুরা আলে ইমরান, ৮১)

২.  চিরন্তন মুজেজা কোরআন : রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে চিরন্তন মুজেজা কোরআন প্রদান করা হয়েছে। এই মুজেজা চিরকালের। মহান আল্লাহ কোরআন অবতীর্ণ করে একে সংরক্ষণের দায়িত্ব নিজে নিয়েছেন। এর আগে নবি-রাসুলদের ওপর যেসব ধর্মগ্রন্থ অবতীর্ণ হয়েছিল, সেগুলো বিকৃত, পরিবর্তিত ও রহিত হয়ে গেছে। কিন্তু কোরআনের মধ্যে কোনো বিকৃতি, পরিবর্তন বা এর কোনো কিছু রহিত হয়নি। আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয় আমিই কোরআন নাজিল করেছি আর অবশ্যই আমি তার সংরক্ষক।’ (সুরা হিজর, ৯)

৩. বিশ্ববাসীর রাসুল : রাসুলুল্লাহ (সা.) ছাড়া যেসব নবি-রাসুল পৃথিবীতে এসেছেন, তারা সবাই নির্দিষ্ট জাতি, গোষ্ঠী বা সম্প্রদায়ের হেদায়েতের জন্য এসেছেন। কিন্তু রাসুলুল্লাহ (সা.) পৃথিবীর সব জাতির জন্য প্রেরিত হয়েছেন। তাঁর নবুয়তকাল থেকে নিয়ে কেয়ামত পর্যন্ত যত জাতি, গোষ্ঠী ও সম্প্রদায় পৃথিবীতে আসবে, তিনি সবার নবি ও রাসুল। আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আমি আপনাকে সমগ্র মানবজাতির জন্য সুসংবাদদাতা ও সতর্ককারীরূপে প্রেরণ করেছি।’ (সুরা সাবা, ২৮) 

৪. আল্লাহর দরবারে নিমন্ত্রণ : আল্লাহতায়ালা রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে নিজ দরবারে নিমন্ত্রণ জানিয়ে নিজের নিদর্শনাবলি দেখিয়ে সম্মানিত করেছেন। এটা অন্য কোনো নবি-রাসুল বা মানুষের ক্ষেত্রে ঘটেনি। পবিত্র কোরআনে এরশাদ হয়েছে, ‘পবিত্র ও মহীয়ান তিনি, যিনি তাঁর বান্দাকে রাতের বেলা ভ্রমণ করিয়েছেন মসজিদুল হারাম থেকে মসজিদুল আকসা পর্যন্ত, যার চারপাশকে আমি কল্যাণময় করেছি। তাঁকে আমার নিদর্শনাবলি দেখানোর জন্য, তিনি সর্বশ্রোতা, সর্বদ্রষ্টা।’ (সুরা বনি ইসরাইল, ১) 

৫. গুণ ও বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করে সম্বোধন : মহাগ্রন্থ কোরআনে আল্লাহতায়ালা অনেক নবি-রাসুলকে তাদের নাম ধরে সম্বোধন করেছেন। কিন্তু তিনি রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর সম্মান ও মর্যাদা প্রকাশার্থে তাঁর শ্রেষ্ঠতম দুটি গুণ ‘নবি’ ও ‘রাসুল’ বলে সম্বোধন করেছেন। আল্লাহ বলেন, ‘হে নবি! আমি আপনাকে সাক্ষী, সুসংবাদদাতা ও সতর্ককারীরূপে প্রেরণ করেছি।’ (সুরা আহজাব, ৪৫) আল্লাহতায়ালা আরেক জায়গায় বলেন, ‘হে রাসুল! পৌঁছে দিন আপনার প্রতিপালকের পক্ষ থেকে আপনার প্রতি যা অবতীর্ণ হয়েছে।’ (সুরা মায়েদা, ৬৭)

৬. প্রশংসিত স্থানে অধিষ্ঠিতকরণ : আল্লাহতায়ালা রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে জান্নাতে এমন এক মর্যাদাপূর্ণ স্থানে অধিষ্ঠিত করবেন, যেখানে তাঁর বান্দাদের মধ্য থেকে আর কেউ অধিষ্ঠিত হতে পারবে না। এ স্থানকে আরবিতে ‘মাকামে মাহমুদ’ (প্রশংসিত স্থান) বলা হয়। আল্লাহ বলেন, ‘আর রাতের কিছু অংশে তাহাজ্জুদ পড়ো, ওটা তোমার জন্য নফল, শীঘ্রই তোমার প্রতিপালক তোমাকে প্রশংসিত স্থানে উন্নীত করবেন।’ (সুরা বনি ইসরাইল, ৭৯) 

৭. ক্ষমার ঘোষণা প্রদান : আল্লাহতায়ালা রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর পূর্বাপরের সব গুনাহ ক্ষমা করে দিয়েছেন। পবিত্র কোরআনে এরশাদ হয়েছে, ‘নিশ্চয় আমি আপনার জন্যে এমন একটা ফায়সালা করে দিয়েছি, যা সুস্পষ্ট। যাতে আল্লাহ আপনার অতীত ও ভবিষ্যৎ ত্রুটিসমূহ মার্জনা করে দেন এবং আপনার প্রতি তার নেয়ামত পূর্ণ করেন ও আপনাকে সরল পথে পরিচালিত করেন।’ (সুরা ফাতহ, ১-২)

৮. মর্যাদাপূর্ণ উসিলা প্রদান : পরকালে আল্লাহ রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে মর্যাদাপূর্ণ উসিলা প্রদান করবেন। এই উসিলার মাধ্যমে যারা প্রার্থনা করবেন, তাদের জন্য রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর শাফায়াত অবধারিত হবে। হাদিসে এসেছে, ‘...আমার জন্য আল্লাহর কাছে উসিলা প্রার্থনা করো। কেননা উসিলা জান্নাতের একটি সম্মানজনক স্থান। এটা আল্লাহর বান্দাদের মধ্যে একজনকেই দেওয়া হবে। আমি আশা করি, আমিই হব সে বান্দা। যে আল্লাহর কাছে আমার জন্য উসিলা প্রার্থনা করবে, তার জন্য আমার শাফায়াত ওয়াজিব হয়ে যাবে।’ (মুসলিম, হাদিস : ৭৩৫)

৯. সুপারিশ করার যোগ্যতম মহামানব : কেয়ামতের অবস্থা অত্যন্ত ভয়াবহ ও বিভীষিকাময় হবে। মানুষ সুপারিশের জন্য বিভিন্ন নবি-রাসুলের কাছে ছুটবে। কেউ সুপারিশে রাজি হবেন না। শুধু রাসুলুল্লাহ (সা.) সুপারিশ করার জন্য সম্মত হবেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘আমি তখন আল্লাহর আরশের নিচে এসে সেজদায় পড়ে কান্নাকাটি করতে থাকব। (আল্লাহ যেন আমাকে সুপারিশ করার অনুমতি দেন)। অতঃপর আল্লাহর পক্ষ থেকে বলা হবে, আপনি মাথা উঠান, আপনার প্রার্থনা কবুল করা হবে। রাসুলুল্লাহ (সা.) মাথা উঠিয়ে বলবেন, হে আমার রব! আপনি আমার উম্মতকে ক্ষমা করুন। আল্লাহতায়ালা বলবেন, হে আমার প্রিয় নবি! আমার নিরপরাধ বান্দাদের বেহেশতের ডানদিকের দরজা দিয়ে প্রবেশ করান। অন্য দরজা দিয়েও ইচ্ছা করলে প্রবেশ করাতে পারেন।’ (বুখারি, হাদিস :  ৪৭১২)

১০. সর্বশেষ নবি ও রাসুল : অন্য নবি-রাসুলের আগমনের পর নবি-রাসুলের আগমনের ধারা অব্যাহত ছিল। কিন্তু রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর পর আর কোনো নবি-রাসুল আগমন করবেন না। তিনি সর্বশেষ নবি ও রাসুল। তাঁর মাধ্যমে নবুওয়াত ও রিসালাতের পরিসমাপ্তি ঘটেছে। পবিত্র কোরআনে এরশাদ হয়েছে, ‘মুহাম্মাদ তোমাদের কোনো ব্যক্তির পিতা নন; বরং তিনি আল্লাহর রাসুল ও শেষ নবি। আল্লাহ সব বিষয়ে জ্ঞাত।’ (সুরা আহজাব, ৪০) 

লেখক : শিক্ষক, জামিয়া ইসলামিয়া ইসলামবাগ চকবাজার

খাবারের দোষ ধরা যাবে কি?

প্রকাশ: ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৪৪ এএম
খাবারের দোষ ধরা যাবে কি?
ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত একটি মুসলিম পরিবারে খাবার গ্রহণের ছবি।

আল্লাহতায়ালা নানা স্বভাব ও বিচিত্র রুচি দিয়ে মানুষ সৃষ্টি করেছেন। ফলে একজনের পছন্দ বা রুচি অন্যজনের সঙ্গে তেমন মেলে না। একজনের যেটা পছন্দ, সেটা অন্য কারও অপছন্দও হতে পারে। ব্যাপারটি দোষের কিছু নয়। রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর সুন্নাহ হলো, খাবার যদি হালাল হয়, তা হলে তাতে কোনোরকম ত্রুটি না ধরা। ভালো লাগলে খাওয়া, না লাগলে আদবের সঙ্গে ফিরিয়ে দেওয়া। রাসুলুল্লাহ (সা.) কখনো খাবারের দোষ ধরতেন না। আবু হুরাইরা (রা.) বলেন, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) কখনো খাবারের দোষ ধরেননি। ইচ্ছা হলে তিনি খেতেন, না হলে রেখে দিতেন।’ (বুখারি, হাদিস: ৩৩৭০)
 
আবু হুরাইরা (রা.) থেকে অপর বর্ণনায় আছে, ‘আমি রাসুল (সা.)-কে কখনো খাবারে দোষ ধরতে দেখিনি, ভালো লাগলে খেতেন। ভালো না লাগলে চুপ থাকতেন।’ (মুসলিম, হাদিস: ২০৬৪) 

রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর জীবনীতে এর প্রায়োগিক উদাহরণ অনেক রয়েছে। যেমন খালিদ ইবনে ওয়ালিদ (রা.) বলেন, “রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে ভুনা দব (সরীসৃপজাতীয় বুকে ভর দিয়ে চলা একটি প্রাণী। এর শরীরের চামড়া পুরু ও মসৃণ। লেজ চওড়া, রুক্ষ, খসখসে ও অতি গিঁটবিশিষ্ট) আনা হলে তিনি তা খাওয়ার উদ্দেশ্যে হাত বাড়ালেন। তখন তাকে বলা হলো, ‘এটা দব। তা শুনে তিনি হাত গুটিয়ে নিলেন।’ খালিদ (রা.) জিজ্ঞাসা করলেন, ‘এটা কি হারাম?’ তিনি বললেন, ‘না। যেহেতু এটা আমাদের এলাকায় নেই, তাই আমি এটা খাওয়া পছন্দ করি না।’ তারপর খালিদ (রা.) তা খেতে থাকেন, আর রাসুল (সা.) তা দেখছিলেন।” (বুখারি, হাদিস: ৫০৮৫) 

রাসুলুল্লাহ (সা.) কেন খাচ্ছেন না; তার একটি কারণ তুলে ধরেছেন, কিন্তু ওই অদ্ভুত খাদ্যের কোনো ত্রুটি বা দবের আকৃতি নিয়ে কোনো বাজে মন্তব্য করেননি তিনি। যাতে করে যারা এটা খেতে চায়, তাদের মধ্যে কোনো বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি না হয়। জাবের ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) বলেন, “রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যে রসুন অথবা পেঁয়াজ খায়, সে যেন আমাদের থেকে দূরে থাকে অথবা বলেছেন, সে যেন আমাদের মসজিদ থেকে দূরে থাকে আর নিজ ঘরে বসে থাকে।’ (উক্ত সনদে আরও বর্ণিত আছে যে,) ‘রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে একটি পাত্র আনা হলো, যার মধ্যে শাকসবজি ছিল। রাসুলুল্লাহ (সা.) এর গন্ধ পেলেন এবং এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলেন, তখন তাঁকে সে পাত্রে রাখা শাকসবজি সম্পর্কে অবহিত করা হলো, তখন একজন সাহাবি আবু আইয়ুব (রা.)-কে উদ্দেশ করে বললেন, ‘তাঁর কাছে এগুলো পৌঁছে দাও। কিন্তু তিনি তা খেতে অনীহা প্রকাশ করলেন।’ তা দেখে রাসুল (সা.) বললেন, ‘তুমি খাও। আমি যার সঙ্গে গোপন আলাপ করি তার সঙ্গে তুমি আলাপ করো না (ফেরেশতাদের সঙ্গে আমার আলাপ হয়। আর তারা দুর্গন্ধ অপছন্দ করেন)।” (বুখারি, হাদিস : ৮১৭) 

এই সুন্নাহটি পালন করলে আমাদের ঘর ও পারস্পরিক সম্পর্ক মজবুত হবে। স্বামী যদি স্ত্রীর সঙ্গে, সন্তান যদি মায়ের সঙ্গে, বন্ধু যদি অপর বন্ধুর সঙ্গে আচরণের এই নিয়ম অনুসরণ করে, তা হলে সমাজের পরিবেশ আরও সুখের ও মধুর হয়ে উঠবে। মানুষের পারস্পরিক বন্ধন আরও সুখকর হবে। 

লেখক: আলেম ও সাংবাদিক

এলো খুশির ঈদ

প্রকাশ: ১১ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৩০ এএম
এলো খুশির ঈদ
কোলাকুলির ছবি। ইন্টারনেট

সারা মাস রোজা রাখার পর মুমিন বান্দার জীবনে পুরস্কার হিসেবে আসে ঈদের দিন। ঈদ আরবি শব্দ, যার অর্থ ফিরে আসা। হাদিসে আছে, “রাসুলুল্লাহ (সা.) যখন মদিনায় গেলেন, তখন মদিনাবাসীরা দুটি দিবসে আনন্দ করত। খেলাধুলা করত। নবিজি তাদের জিজ্ঞেস করলেন, ‘এ দুটি দিনের কোনো তাৎপর্য আছে?’ তারা বলল, ‘আমরা জাহেলি যুগে এ দুটি দিনে খেলা করতাম।’ নবিজি (সা.) তখন বললেন, ‘আল্লাহ এ দুদিনের পরিবর্তে এর চেয়ে শ্রেষ্ঠ দুটি দিন দিয়েছেন। তা হলো ঈদুল আজহা ও ঈদুল ফিতর।” (আবু দাউদ, ১১৩৪)

শুধু খেলাধুলা ও আমোদ-ফুর্তির যে দুটি দিবস ছিল, তা আল্লাহ নেয়ামতের মাধ্যমে পরিবর্তন করেছেন। নেয়ামত হলো—আল্লাহর কাছ থেকে কিছু অর্জন করা। তার নেয়ামত ও দানে সিক্ত হওয়া। তাই এ দিবসটিতে বান্দা তার স্রষ্টার শুকরিয়া, তাঁর জিকির, তাঁর কাছে ক্ষমা প্রার্থনার সঙ্গে সঙ্গে শালীন আমোদ-ফুর্তি, সাজসজ্জা, খাওয়া-দাওয়া করবে। তবেই আল্লাহর দেওয়া ঈদ সার্থক হবে। 

ঈদকে কেউ নেয়ামত হিসেবে নিয়েছেন। কেউবা নিছক আমোদ-ফুর্তি হিসেবে নিয়েছেন। যারা তাকে নেয়ামত হিসেবে নিয়েছেন, তারা কত ভাগ্যবান। হাদিসে এসেছে, ‘এ ঈদের রাতে কেউ যদি জাগ্রত থাকে অর্থাৎ রাত জেগে আল্লাহর ইবাদত করে, ওই দিন তার অন্তর জীবিত থাকবে, যেদিন সব অন্তর মারা যাবে।’ (ইবনে মাজাহ, ১৭৮২)

ঈদের রাত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। অথচ মানুষ এ রাতে নানা পাপাচারে লিপ্ত হয়। কেউ যদি রাত জেগে না থাকতে পারে, তাহলে এশা ও ফজরের নামাজ জামাতের সঙ্গে আদায় করলেই সারা রাত জেগে থেকে ইবাদত করার সওয়াব পাবে। ফজরের নামাজ পড়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হয়ে ঈদের নামাজের প্রস্তুতি নিতে হবে। এ দিনের সুন্নতগুলো আদায় করা উচিত। এর মধ্যে মিসওয়াক ও গোসল অন্যতম। আলি (রা.) বলেন, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) ঈদুল ফিতরের দিনে ঈদগাহে যাওয়ার আগে গোসল করতেন। নতুন জামা বা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন জামা পরতেন। সুগন্ধি লাগাতেন। মিষ্টি জাতীয় কিছু খেতেন।’ (তিরমিজি, ৫৪৩)

ঈদুল ফিতরে মিষ্টি জাতীয় কিছু খেয়ে ঈদগাহে যাওয়া সুন্নত। বুরাইদা (রা.) বলেন, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) ঈদুল ফিতরের দিন না খেয়ে বের হতেন না, আর ঈদুল আজহারের দিনে ঈদের নামাজের আগে খেতেন না।’ (তিরমিজি, ৫৪২)

তাকবির বলে ঈদগাহের দিকে যাত্রা করতেন। আবদুল্লাহ ইবনে উমর (রা.) বলেন, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) ঈদুল ফিতরের দিন ঘর থেকে বের হয়ে ঈদগাহে পৌঁছা পর্যন্ত তাকবির পাঠ করতেন।’ (মুসতাদরাক, ১১০৬)

হেঁটে যাওয়া উত্তম। এক পথ দিয়ে গিয়ে অন্য পথ ধরে আসা ভালো। হাদিসে আছে, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) ঈদের দিনে পথ বিপরীত করতেন।’ (বুখারি, ৯৮৬) রাসুলুল্লাহ (সা.) হেঁটে ঈদগাহে যেতেন। 

ঈদের নামাজের আগে কোনো নফল নামাজ নেই। রাসুলুল্লাহ (সা.) ঈদুল ফিতরের দিনে বের হয়ে দুই রাকাত ঈদের নামাজ আদায় করেছেন। এর আগে ও পরে অন্য কোনো নামাজ আদায় করেননি। (বুখারি, ৯৮৯)। তবে নামাজের আগে ফিতরা দিতে হবে। অভাবীদের খোঁজখবর নিতে হবে। তাদের খাবার খাওয়াতে হবে। সম্ভব হলে তাদের নতুন পোশাকের ব্যবস্থা করতে হবে। এটাই ঈমানদারদের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। এটাই হলো ঈদের আনন্দ। ঈদগাহে গিয়ে ঈদের নামাজ আদায় করতে হবে। খুতবা শোনা ওয়াজিব। হাফেজ ইবনে হাজার আসকালানি (রহ.) বলেন, সাহাবায়ে কেরাম ঈদের দিনে সাক্ষাৎকালে একে অপরকে বলতেন, ‘আল্লাহতায়ালা আমাদের ও আপনাদের ভালো কাজগুলো কবুল করুন।’ নামাজ শেষে দোয়া ও ইস্তেগফার পড়া ভালো। 

ঈদের দিনে বর্জনীয় কিছু কাজ রয়েছে। যথা—ঈদের দিনে রোজা রাখা যাবে না। রাসুলুল্লাহ (সা.) ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহার দিনে রোজা রাখতে নিষেধ করেছেন। (বুখারি, ১৯৯০) 

ঈদের দিনে শালীন পোশাক পরিধান করতে হবে। অপসংস্কৃতি বহন করে এমন পোশাক পরা যাবে না। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি অন্য জাতির সঙ্গে সাদৃশ্যতা রাখবে, সে তাদের দলভুক্ত বলে গণ্য হবে।’ (আবু দাউদ, ৪০৩১)

ঈদ একটি ইবাদত। আনন্দ ও ফুর্তির মাঝেই এ ইবাদত করা যায়। এ ব্যাপারে কোরআনে এসেছে, ‘বলো, এটা আল্লাহর অনুগ্রহ ও রহমত। সুতরাং এ নিয়ে যেন তারা খুশি হয়। এটি যা তারা জমা করে তা থেকে উত্তম।’ (সুরা ইউনুস, আয়াত: ৫৮) 

লেখক: আলেম, গবেষক ও সাংবাদিক

চাঁদ দেখে ঈদ পালনের বিধান

প্রকাশ: ০৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:০০ পিএম
চাঁদ দেখে ঈদ পালনের বিধান
চাঁদের ছবি। ইন্টারনেট

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘তোমরা চাঁদ দেখে রমজান পালন করবে এবং চাঁদ দেখে ঈদুল ফিতর পালন করবে।’ (বুখারি, ১০৮১)

হাদিসের আলোকে সচেতন মুমিন-মুসলমানরা রমজানের চাঁদ দেখে রোজা পালন শুরু করেন এবং শাওয়ালের চাঁদ দেখা গেলেই ঈদুল ফিতর পালন করেন। কোরআন ও হাদিসের নির্দেশ পালনের ক্ষেত্রে রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর আচরিত সুন্নতকে সামনে রাখা আমাদের প্রয়োজন। সুন্নতের আলোকে আমরা দেখি, তিনি রাষ্ট্রীয়ভাবে চাঁদ দেখার সাক্ষ্য গ্রহণ ছাড়া রমজান পালনের অনুমতি দেননি। ‘চাঁদ দেখে রমজান বা ঈদ পালনের’অর্থ এ নয়—যে কেউ যেখানে ইচ্ছা চাঁদ দেখলেই ঈদ করা যাবে। এ হাদিসের অর্থ হলো, চাঁদ দেখা প্রমাণিত হলে তোমরা রোজা পালন করো এবং চাঁদ দেখা প্রমাণিত হলে ঈদুল ফিতর পালন করো। চাঁদ দেখা প্রমাণিত হওয়ার সুন্নাহ নির্দেশিত পদ্ধতি হলো—শাসক বা প্রশাসকের কাছে সাক্ষ্য গৃহীত হওয়া। 

রাষ্ট্রীয়ভাবে তার সাক্ষ্য গৃহীত হলে বা চাঁদ দেখা প্রমাণিত হলেই শুধু ঈদ করা যাবে। রাষ্ট্রীয় প্রশাসন ও সমাজের সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে ঈদ পালন করতে নির্দেশ দিয়ে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যেদিন সব মানুষ ঈদুল ফিতর পালন করবে সে দিনই ঈদুল ফিতরের দিন এবং যেদিন সব মানুষ ঈদুল আজহা পালন করবে, সে দিনই ঈদুল আজহার দিন।’(তিরমিজি, ৩/১৬৫)

আলেমরা এ বিষয়ে একমত—রমজানের রোজা ও ঈদ  চাঁদ দেখেই পালন করতে হবে। কারণ রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘তোমরা রমজানের চাঁদ দেখে রোজা রাখো এবং চাঁদ দেখে ইফতার করো। যদি আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হয়, তবে তোমরা ৩০ দিন পূর্ণ করো।’ (মুসলিম, ১০৮১)

এখন প্রশ্ন হলো, কতজন মানুষকে চাঁদ দেখতে হবে? তার উত্তর আছে হাদিসে, ‘আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকলে এমন এক ব্যক্তির চাঁদ দেখাই যথেষ্ট, যার দ্বীনদার হওয়া প্রমাণিত অথবা বাহ্যিকভাবে দ্বীনদার হিসেবে পরিচিত।’ (আবু দাউদ, ২৩৪০)। 

লেখক: আলেম ও সাংবাদিক

ঈদুল ফিতরে যা করবেন এবং যা করবেন না

প্রকাশ: ১০ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:০০ এএম
ঈদুল ফিতরে যা করবেন এবং যা করবেন না
প্রতীকী ছবি। ইন্টারনেট

করণীয়: ঈদের দিন ভোরবেলা ফজর নামাজ জামাতে আদায় করার মাধ্যমে দিনটি শুরু করা উচিত। এ দিন গোসল করার মাধ্যমে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অর্জন ও সুগন্ধি ব্যবহার করা উত্তম। ইবনে উমর (রা.) বলেন, ‘তিনি দুই ঈদের দিনে সর্বোত্তম পোশাক পরিধান করতেন।’ (সুনানে কুবরা, বাইহাকি, ৬১৪৩)

রাসুলুল্লাহ (সা.) যে পথে ঈদগাহে যেতেন সে পথে ফিরে না এসে অন্য পথে ফিরতেন। যাতে উভয় পথের লোকদের সালাম দেওয়া ও ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করা যায়। (জাদুল মায়াদ, ১/৪৩২-৪৩৩)

রাসুলুল্লাহ (সা.) ঈদুল ফিতরের দিন ঘর থেকে বের হয়ে ঈদগাহে পৌঁছা পর্যন্ত তাকবির পাঠ করতেন। (মুসান্নাফে ইবনে আবি শাইবা, ৫৬৬৭)

ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করা উত্তম। ঈদের নামাজের আগে খাবার গ্রহণ করা সুন্নত। (বুখারি, ৯৫৩)

ঈদের নামাজ আদায় ও খুতবা শোনা ওয়াজিব। আত্মীয়স্বজনের খোঁজখবর নেওয়া ও ফিতরা আদায় করাও ইবাদত। 

বর্জনীয়: বিজাতীয় সংস্কৃতি উদযাপন না করা: রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি অন্য জাতির সঙ্গে সাদৃশ্য রাখবে, সে তাদের দলভুক্ত বলে গণ্য হবে।’(আবু দাউদ, ৪০৩১)

জুয়া, মদ, জিনা-ব্যভিচার ও মাদকদ্রব্য সেবন না করা: রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘আমার উম্মতের মধ্যে এমন একটা দল পাওয়া যাবে, যারা ব্যভিচার, রেশমি পোশাক, মদ ও বাদ্যযন্ত্রকে হালাল (বৈধ) মনে করবে।’(বুখারি, ৫৫৯০)

অশালীন পোশাকে রাস্তায় বের না হওয়া: রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘একদল নারী যারা পোশাক পরিধান করেও উলঙ্গ মানুষের মতো হবে, অন্যদের আকর্ষণ করবে এবং অন্যরা তাদের প্রতি আকৃষ্ট হবে। তাদের মাথার চুলের অবস্থা হবে উটের হেলে পড়া কুঁজের মতো। ওরা জান্নাতে প্রবেশ করবে না, এমনকি তার সুগন্ধিও পাবে না, যদিও তার সুগন্ধি বহুদূর থেকে পাওয়া যায়।’ (মুসলিম, ২১২৮)

লেখক: খতিব, বনানী আত-তাকওয়া জামে মসজিদ

ঈদের নামাজ আদায় করবেন যেভাবে

প্রকাশ: ১০ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:০০ পিএম
ঈদের নামাজ আদায় করবেন যেভাবে
ঈদের নামাজ আদায়ের পুরোনো ছবি। ইন্টারনেট

রাসুলুল্লাহ (সা.) ঈদের দিনে বিশেষভাবে নামাজ আদায়ের জন্য আদেশ করেছেন। যেহেতু বছরে মাত্র দুইবার ঈদের নামাজ পড়তে হয়, তাই এই নামাজ আদায় করার ক্ষেত্রে অনেকের মধ্যেই জটিলতা ও দ্বিধা-সংশয় সৃষ্টি হয়। তাই ঈদের নামাজের আগে কিছু নিয়মকানুন ও আদায় পদ্ধতি ভালোভাবে জেনে নেওয়া উচিত।

যাদের ওপর জুমার নামাজ ওয়াজিব, তাদের ওপর ঈদের নামাজ ওয়াজিব। আল-জামিউস সগির গ্রন্থে বলা হয়েছে, ‘একই দিনে দুটি ঈদ একত্র হয়েছে। প্রথমটি হলো সুন্নত আর দ্বিতীয়টি হলো ফরজ। তবে দুটির কোনো একটিকেও ছেড়ে দেওয়া যাবে না।’ রাসুলুল্লাহ (সা.) সূর্য এক বা দুই বর্শা পরিমাণ ওপরে উঠলে ঈদের নামাজ আদায় করতেন। (আবু দাউদ, ২/৩৬১)

ঈদের নামাজের জন্য কোনো আজান ও ইকামত নেই। তবে জুমার নামাজের মতোই উচ্চ আওয়াজে কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে ঈদের নামাজ আদায় করতে হয়। প্রথম রাকাতে এক তাকবির বলা হয় তাহরিমার (নামাজ শুরুর তাকবির) জন্য। তার পর তিনবার তাকবির বলতে হবে। প্রথম ও দ্বিতীয় তাকবিরে উভয় হাত উঠিয়ে তা ছেড়ে দেবে এবং তৃতীয় তাকবির দিয়ে উভয় হাত বেঁধে নিতে হবে। এর পর সুরা ফাতেহা ও অন্য একটি সুরা পড়বে এবং তাকবির বলে রুকুতে যাবে। এর পর দ্বিতীয় রাকাতে সুরা ফাতেহার সঙ্গে অন্য একটি সুরা মিলিয়ে শুরু করবে। তার পরে তিনবার তাকবির বলবে। প্রথম রাকাতের মতো দুই তাকবিরে উভয় হাত কাঁধ বরাবর উঠিয়ে ছেড়ে দেবে; অতঃপর তৃতীয় তাকবির দিয়ে হাত বাঁধতে হবে এবং চতুর্থ তাকবির বলে রুকুতে যেতে হবে। (মুসান্নাফে ইবনে আবি শাইবা, ৫৭৪৬-৫৭৪৭) 

ঈদের তাকবিরসমূহ দ্বীনের প্রতীক। তাই তা উচ্চৈঃস্বরে আদায় করা হয়। সুতরাং এর প্রকৃত চাহিদা হলো মিলিতভাবে পাঠ করা। প্রথম রাকাতে এই তাকবিরগুলো তাকবির তাহরিমার সঙ্গে যুক্ত করা ওয়াজিব। যেহেতু এ তাকবির ফরজ এবং প্রথমে হওয়ার প্রেক্ষিতে এটার শক্তি বেশি। আর দ্বিতীয় রাকাতে রুকুর তাকবির ছাড়া অন্য কোনো তাকবির নেই। সুতরাং (ঈদের তাকবিরগুলো) তার সঙ্গে যুক্ত করাই ওয়াজিব। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘সাতটি স্থান ছাড়া অন্য কোথাও হাত তোলা হবে না। (মুসান্নাফে ইবনে আবি শাইবা, ১৫৯৯৬)। এর মধ্যে ঈদের তাকবিরসমূহ উল্লেখ করা হয়েছে। 

নামাজের পর (ইমাম) দুটি খুতবা দেবেন। (বুখারি, ৯৫৮)। যে ব্যক্তির ইমামের সঙ্গে ঈদের নামাজ ছুটে গেছে, সে তা কাজা পড়বে না। কেননা এই প্রকৃতির নামাজ এমন কিছু শর্তসাপেক্ষেই ইবাদতরূপে স্বীকৃত হয়েছে, যা একাকী ব্যক্তির দ্বারা সম্পন্ন হতে পারে না। (শরহু মুখতাসারিত তহাবি লিল জাসসাস, ২/১৬১ )

যদি কোনো কারণে ঈদের দিন নামাজ আদায় সম্ভব না হয়, তা হলে এর পরে আর তা পড়বে না। কারণ জুমার মতো এক্ষেত্রেও মূলনীতি হলো, কাজা না করা। 

লেখক: খতিব, বঙ্গভবন জামে মসজিদ