ঢাকা ৬ বৈশাখ ১৪৩১, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪
Khaborer Kagoj

সাক্ষাৎকারে মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা সব সূচকেই ইসলামী ব্যাংক শীর্ষে

প্রকাশ: ০২ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৩৫ পিএম
সব সূচকেই ইসলামী ব্যাংক শীর্ষে
ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) অ্যান্ড সিইও মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা

ইসলামী ব্যাংক ৪২ বছরে পদার্পণ করেছে ৩০ মার্চ। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে শরিয়াহভিত্তিক সেবা দিয়ে আসছে ব্যাংকটি। আমদানি, বিনিয়োগ, রেমিট্যান্সসহ সব সূচকেই ইসলামী ব্যাংক শুরু থেকে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে। দীর্ঘ এই যাত্রায় ব্যাংকের সেবা, সাফল্য এবং ব্যাকিং খাতের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে খবরের কাগজ কথা বলেছে এই ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) অ্যান্ড সিইও মুহাম্মদ মুনিরুল মওলার সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক এম মনিরুল আলম। 

খবরের কাগজ: বর্তমানে সবচেয়ে আলোচিত ইস্যু ব্যাংক মার্জার বা একীভূতকরণ নিয়ে আপনার মূল্যায়ন কী? সুশাসন ফেরাতে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রেসক্রিপশন বা সাম্প্রতিক উদ্যোগ (রোডম্যাপ) কি কাজে আসবে?

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা: ব্যাংক খাত বাংলাদেশের অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি। বাংলাদেশে মোট ৬১টি ব্যাংক কাজ করছে। এর মধ্যে অনেকগুলো ব্যাংক ভালো করছে আবার কয়েকটি ব্যাংক তুলনামূলকভাবে পিছিয়ে রয়েছে। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় ব্যাংক দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের বিষয় বিবেচনা করে পেছনে থাকা ব্যাংকগুলোকে শক্তিশালী ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত করার উদ্যোগ নিয়েছে। ইতোমধ্যেই এটি বাস্তবায়নও শুরু হয়েছে। দেশের অর্থনীতি ও ব্যাংক খাতকে শক্তিশালী করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই।

বাংলাদেশ ব্যাংক প্রয়োজনীয় সংস্কারের অংশ হিসেবে একীভূতকরণের যে উদ্যোগ নিয়েছে, তা অবশ্যই সময়োপযোগী এবং প্রশংসার দাবি রাখে। ব্যাংক খাতের নানা সমস্যা সমাধানে সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক একটি রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে। এটি ব্যবসা পুনরুজ্জীবিত বা সম্প্রসারণ বা সবল করার কৌশল। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই রোডম্যাপ ব্যাংক খাতে সুশাসন নিশ্চিত করতে কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে আমি মনে করি। 

খবরের কাগজ: ইসলামী ধারার ব্যাংকগুলোর প্রধান চ্যালেঞ্জ কী কী? সম্ভাবনাই বা কতটুকু? 

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা: বাংলাদেশে ইসলামী ব্যাংকিংয়ের যাত্রা শুরু হয়েছে ৪১ বছর আগে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ইসলামী ব্যাংকিং গাইডলাইনের আলোকে ইসলামী ব্যাংকিং ব্যবসা পরিচালিত হয়ে আসছে। ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ পিএলসি এই দীর্ঘ ৪১ বছরের পথ চলায় ব্যবসায়িক প্রতিটি সূচকেই ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এসবের মধ্যেও কিছু চ্যালেঞ্জ রয়েছে। ইসলামী ব্যাংকিং আইন এখন সময়ের দাবি। ইসলামী ব্যাংকিং সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমী একটি ব্যবস্থা। সাধারণ মানুষের মধ্যে এখনো এ ব্যবস্থা সম্পর্কে সঠিক ধারণা নেই। তাদের মাঝে এ ব্যবস্থা সম্পর্কে ধারণা পৌঁছাতে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায় ইসলামী ব্যাংকিং বিষয়ে সিলেবাস প্রণয়ন করা জরুরি। ইসলামী ব্যাংকিংয়ের সঠিক ধারণা সবার মাঝে পৌঁছাতে পারলে আশা করা যায় এ ব্যবস্থা আরও বেগবান হবে।

ইসলামী ব্যাংকিং পরিচালিত হয় মানুষের প্রয়োজনকে প্রাধান্য দিয়ে। সম্পদভিত্তিক বিনিয়োগ প্রদানের মাধ্যমে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে ইসলামী ব্যাংক। ফলে প্রকৃত আর্থিক ও বাণিজ্যিক উন্নয়ন সাধিত হয়। ইসলামী ব্যাংকের সাফল্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশে ১০টি পূর্ণাঙ্গ ইসলামী ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আরও অনেকগুলো ব্যাংক আংশিকভাবে ইসলামী পদ্ধতিতে ব্যাংকিং পরিচালনা করছে। আশা করা যায়, দেশের উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে ইসলামী ব্যাংকিং গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।

খবরের কাগজ: কোভিড-১৯ ও ইউক্রেন-রাশিয়ার চলমান যুদ্ধ পরিস্থিতিতে ব্যাংক খাতে কী ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছেন?

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা: করোনা মহামারির কারণে ২০২০ সালের প্রথমার্ধ থেকে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক কার্যক্রম প্রায় স্থবির হয়ে পড়েছিল, ভেঙে পড়েছিল উৎপাদন ও বিপণনব্যবস্থা। সেই সময় শত প্রতিকূলতার মধ্যেও ব্যাংক খাত চালু ছিল। করোনা মহামারির ধাক্কা কাটিয়ে বাংলাদেশ যখন অর্থনীতিকে চাঙা করার চেষ্টা করছিল, এমন সময়েই শুরু হলো ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধ। বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বের অর্থনীতির ওপর এর কঠিন প্রভাব পড়েছে। ইউরোপে আমাদের তৈরি পোশাক রপ্তানি ক্ষতিগ্রস্ত হয়, দেশে ডলার আসা কমে যায়। প্রয়োজনীয় বৈদেশিক মুদ্রার অপ্রতুলতা এবং ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়নের ফলে ব্যাংকিং খাতের চ্যালেঞ্জ আরও বৃদ্ধি পায়। এলসিতে পণ্যভেদে ১০০ শতাংশ পর্যন্ত মার্জিন আরোপ করা হয়। করোনা ও ইউক্রেন-রাশিয়ার চলমান যুদ্ধের কারণে আমেরিকা, ইউরোপ, চীনসহ সারা বিশ্বের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতও বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়েছে। ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ ক্ষতিগ্রস্ত হলে ফরওয়ার্ড লিংকেজ ক্ষতিগ্রস্ত হবে- এটাই স্বাভাবিক। এসব কারণে ব্যাংকও কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ডলারসংকট অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব বিস্তার করলেও বর্তমানে তা স্বাভাবিকের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

খবরের কাগজ: এটি কাটিয়ে ওঠা সম্ভব কি?

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা: কোভিড-পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন দেশের অর্থনীতির পুনরুদ্ধার কিছুটা শুরু হলেও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ দীর্ঘায়িত হওয়ায় বিশ্বের সাপ্লাই চেইন মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়। বিশেষভাবে খাদ্যপণ্য সরবরাহ ব্যাপক মাত্রায় বাধাগ্রস্ত হয়। বাংলাদেশ দেড় দশক ধরে একটি স্থিতিশীল প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে। ২০২৩ সালে জিডিপি প্রবৃদ্ধি কিছুটা কম হলেও কেন্দ্রীয় ব্যাংক ঘোষিত মনিটরি পলিসিতে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ৫ শতাংশ নির্ধারণ করেছে। ব্যাংকিং সেক্টরের স্থিতিশীলতা ধরে রাখার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সাপোর্ট অব্যাহত রয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক ইতোমধ্যে আমানত ও বিনিয়োগের ক্যাপ প্রত্যাহার করেছে। সংকট কাটিয়ে উঠতে অ্যাসেট কোয়ালিটি নিশ্চিত করার প্রতি আমাদের বিশেষ নজর দিতে হবে। এ ছাড়া বৈদেশিক মুদ্রার বাজারে স্থিতিশীলতা আনয়ন, জনগণের আস্থা তৈরি, বৈধ চ্যানেলের মাধ্যমে রেমিট্যান্সপ্রবাহ বৃদ্ধি, ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা নিশ্চিতকরণ ও সুশাসন নিশ্চিত করতে পারলে এই সংকট কাটিয়ে ওঠা যাবে বলে আমি মনে করি। 

খবরের কাগজ: খেলাপি ঋণের সমস্য সমাধানে আপনার পরামর্শ কী? ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপির সংজ্ঞা নিয়ে কোনো মন্তব্য করবেন?

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা: বাংলাদেশে খেলাপি ঋণের সমস্যা সমাধানের জন্য প্রথমেই প্রয়োজন ঋণ প্রদান প্রক্রিয়ায় নিয়মনীতির যথাযথ অনুসরণ। ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে ঋণ প্রদানের সময় নিয়মনীতি মেনে চলতে হবে এবং ঋণ আদায়ে যথাযথ গুরুত্ব দিতে হবে। খেলাপি ঋণ আদায়ে আইনের শক্ত প্রয়োগ এবং খেলাপিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন। আমাদের দেউলিয়াত্ব আইনে কিছু সংশোধনী আনা যেতে পারে, যাতে খেলাপি ঋণসংক্রান্ত বিষয়গুলো দ্রুত নিষ্পত্তি করা যায়। এমন সামাজিক পরিবেশ তৈরি করতে হবে, যাতে খেলাপিদের জন্য ঋণ ফেরত দেওয়া অপরিহার্য হয়ে পড়ে। বাংলাদেশে ইচ্ছাকৃত খেলাপি ঋণ বিষয়ে সরকারের নতুন পদক্ষেপটি প্রশংসনীয়। 

খবরের কাগজ: দীর্ঘ সময় ধরে ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ আদায়ে মামলার জট লেগে রয়েছে, তা দ্রুত নিষ্পত্তিতে আপনার পরামর্শ বলবেন কি? 

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা: বাংলাদেশে খেলাপি ঋণ আদায়ে দীর্ঘসূত্রিতা একটি বড় বিষয়। এর মধ্যে অনেক ঋণ আদায়ে দীর্ঘদিন ধরে মামলা চলছে। মামলার কারণে যেসব ঋণ আদায় করা যাচ্ছে না, তা কীভাবে আদায় করা যায় এটা গুরুত্বপূর্ণ। এ জন্য আমাদের অর্থঋণ আদালতকে আরও শক্তিশালী করা প্রয়োজন। সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে বিশেষ উদ্যোগ জরুরি। 

খবরের কাগজ: চলমান ডলারসংকটের সমাধান কবে হবে?

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা: দেশের বিরাজমান উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকায় স্বাভাবিকভাবেই ডলারের প্রয়োজন আগের চেয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে। ভারী শিল্পের যন্ত্রপাতি আমদানি ও বড় বড় প্রকল্পের নির্মাণ ব্যয় নির্বাহের জন্যই ডলারের চাহিদা ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে। এ ছাড়া ইউক্রেন-রাশিয়ার চলমান যুদ্ধ পরিস্থিতির কারণের অনেক পণ্যের দামও বেড়েছে। বিশ্ববাজারের স্থিতিশীলতা ও দেশীয় বড় প্রকল্পের নির্মাণ সম্পন্ন হওয়া এবং রেমিট্যান্সপ্রবাহ বৃদ্ধি পেলে চলমান ডলারসংকট সহনীয় পর্যায়ে আসবে বলে আমি মনে করি। ইতোমধ্যে ডলারের দাম কমতে শুরু করেছে।

খবরের কাগজ: রেমিট্যান্সপ্রবাহে আপনার ব্যাংক শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে। এটি কী করে সম্ভব হলো? 

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা: ইসলামী ব্যাংকের ২৯ জন প্রতিনিধি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রবাসীদের ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স প্রেরণে কাজ করে যাচ্ছেন। প্রবাসীদের সঙ্গে নিয়মিত মতবিনিময় সভা ও বিশেষ ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে মানুষকে বৈধ চ্যানেলে টাকা পাঠাতে উৎসাহিত করছেন। বিশ্বের ৬৪টি দেশের ৫৯৪টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সম্পর্ক রয়েছে ইসলামী ব্যাংকের। প্রবাসীদের কষ্টার্জিত আয়কে বৈধ পথে ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে দেশে আনার জন্য ২১ দেশের ১৫৫টি ব্যাংক ও এক্সচেঞ্জ হাউসের সঙ্গে ইসলামী ব্যাংকের চুক্তি রয়েছে, যার মাধ্যমে ২০০-এর অধিক দেশ থেকে রেমিট্যান্স বেনিফিশিয়ারির হিসাবে অর্থ জমা হয়। ইসলামী ব্যাংকের ৩৯৪টি শাখা, ২৪৯টি উপশাখা, ২ হাজার ৭৭৬টি এজেন্ট ব্যাংক ও ২ হাজার ৯৯৪টি এটিএম/সিআরএমের সমন্বয়ে গঠিত দেশের সর্ববৃহৎ নেটওয়ার্কের মাধ্যমে রেমিট্যান্স বেনিফিশিয়ারিরা তাৎক্ষণিক রেমিট্যান্সের টাকা সংগ্রহ করতে পারেন। প্রবাসী ও তাদের সুবিধাভোগীদের আরও দ্রুত ও উন্নত সেবা প্রদানের জন্য ব্যাংকের প্রত্যেকটি শাখায় রেমিট্যান্স লাউঞ্জ রয়েছে, যা বিশেষভাবে সেবা প্রদান করছে। 

ইসলামী ব্যাংক দীর্ঘ ১৬ বছর ধরে প্রবাসী আয়ে দেশের ব্যাংকিং খাতে শীর্ষস্থানে রয়েছে। প্রতিষ্ঠার শুরু থেকে নিজস্ব আমদানি ব্যয় পরিশোধের পর এ পর্যন্ত সরকারি রিজার্ভে ১৩ দশমিক ১ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি যোগ করে অর্থনীতিতে বিশেষ অবদান রেখেছে এই ব্যাংক। 

খবরের কাগজ: আপনার নিজের ব্যাংকটির বর্তমান পরিস্থিতি কীভাবে মূল্যায়ন করবেন?

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা: ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ পিএলসি দেশের আমানত, বিনিয়োগ, রেমিট্যান্সসহ সব সূচকেই শীর্ষ ব্যাংক। এ ব্যাংকের পরিচালনগত সাফল্যের জন্য বিগত সময়ে বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এ ব্যাংক সর্বোচ্চ ক্রেডিট রেটিং ট্রিপল এ রেটেড ব্যাংক। আমানত, বিনিয়োগ, আমদানি, রপ্তানিসহ সব সূচকেই ব্যাংকের অগ্রগতি অব্যাহত রয়েছে। সব মিলিয়ে ইসলামী ব্যাংক ভালো অবস্থানে রয়েছে।     

খবরের কাগজ: ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এ সময়ে আগামী দিনে আপনার ব্যাংক নিয়ে পরিকল্পনা কী? 

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা: ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ পিএলসি প্রতিষ্ঠার ৪১ বছর অতিক্রম করছে। এই দীর্ঘ যাত্রায় ইসলামী ব্যাংক অর্জন করেছে ঈর্ষণীয় সাফল্য। ইসলামী ব্যাংক দেশের অন্যতম শীর্ষ ব্যাংক। এ ব্যাংকের আন্তর্জাতিক সুনাম রয়েছে। এ ব্যাংকের সব কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের পাশাপাশি পরিচালনা পরিষদ নিয়মিত দিকনির্দেশনা দিয়ে থাকে। নির্দেশনাগুলো বাস্তবায়নের মাধ্যমে ব্যাংকের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রয়েছে। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার অংশ হিসেবে স্মার্ট অর্থনীতি বাস্তবায়নে ইসলামী ব্যাংক কাজ করছে। ব্যাংকের সব কার্যক্রমে শরিয়াহর নীতিমালা শতভাগ পরিপালন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশিত শুদ্ধাচার যথাযথ অনুসরণ, জনশক্তির দক্ষতা বৃদ্ধি ও আরও উন্নত সেবা প্রদানের মাধ্যমে অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখা ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ইসলামী ব্যাংকের অবস্থান আরও সুসংহত করার জন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

রপ্তানি বাড়াতে বন্ড সুবিধা চাই

প্রকাশ: ২৪ মার্চ ২০২৪, ০১:০৪ পিএম
রপ্তানি বাড়াতে বন্ড সুবিধা চাই
বাংলাদেশ ফার্নিচার শিল্পমালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এবং ব্রাদার্স ফার্নিচার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইলিয়াস সরকার।

ফার্নিচারের বাজার দিন দিন বাড়ছে। দেশের চাহিদা পূরণ করে বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে। বর্তমানে নানামুখী সংকটে রয়েছে উদীয়মান এই শিল্প। ডলার সংকটের কারণে ফার্নিচার তৈরিতে খরচ বেড়েছে। প্রয়োজনীয় এলসির অভাবে কাঁচামাল আমদানি করতে হচ্ছে। ফলে উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। ফার্নিচার শিল্পের সংকট ও সম্ভাবনা নিয়ে খবরের কাগজ কথা বলেছে বাংলাদেশ ফার্নিচার শিল্পমালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এবং ব্রাদার্স ফার্নিচার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইলিয়াস সরকারের সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ডেপুটি বিজনেস এডিটর ফারজানা রশিদ লাবনী

খবরের কাগজ: ফার্নিচার শিল্পের সমস্যা সম্পর্কে কিছু বলুন। 

ইলিয়াস সরকার: ডলারের মূল্যবৃদ্ধির কারণে উৎপাদন ব্যয় বৃদ্ধি এবং বিক্রি কমে যাওয়ায় কঠিন সময় পার করছে ফার্নিচার শিল্প। মূল্যস্ফীতি বেড়ে যাওয়ার কারণে বিক্রি কমেছে। আমাদের টিকে থাকাই কঠিন হয়ে পড়েছে। এ পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে সরকারের সহায়তা লাগবে। 

খবরের কাগজ: বাংলাদেশের ফার্নিচার শিল্পের সম্ভাবনা কেমন?

ইলিয়াস সরকার: বাংলাদেশে তৈরি পোশাক খাতের মতোই ফার্নিচার খাতের সম্ভাবনা রয়েছে। সারা দেশে ফার্নিচার শিল্প গড়ে তোলার মতো পরিবেশ আছে। 

খবরের কাগজ: চীন সারা বিশ্বে ফার্নিচার রপ্তানিতে শীর্ষ অবস্থানে আছে। বাংলাদেশ ফার্নিচার রপ্তানিতে আরও সফলতা দেখানোর জন্য আপনার পরামর্শ কী? 

ইলিয়াস সরকার: ফার্নিচার শিল্পে রপ্তানিতে বড় সাফল্য পেতে হলে সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা করতে হবে সরকারকে। আমাদের তৈরি করা ফার্নিচারের মান উন্নত হলেও আমরা প্রতিযোগী দেশগুলোর সঙ্গে দামের প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়ছি। আমি প্রতি বছরই বিদেশের বিভিন্ন কোম্পানিতে গিয়ে কীভাবে, কী কৌশলে উৎপাদন করছে তা দেখি। চীনে ফার্নিচার শিল্পের শ্রমিকদের মজুরি অনেক বেশি। এখানে আমাদের একটা সুযোগ আছে। মজুরি বাড়ায় চীনের ফার্নিচার শিল্পে খরচ বাড়ছে। খরচ বাড়ার কারণে চীনের অনেক ফার্নিচার কারখানা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এখনো এ দেশে শ্রমিকের মজুরি কম। এই সুবিধা কাজে লাগিয়ে যদি কাঁচামাল কম দামে কেনার সুবিধা দেওয়া হয় তবে আমরাও রপ্তানি বাড়াতে পারব। আমাদের পণ্যের পরিচিতি বাড়াতে বিদেশে স্টল নিতে পারি। সেখানকার মানুষের সামনে ফার্নিচার নিয়ে যেতে হবে। এ ছাড়া বিভিন্ন দেশের বাজারে বিভিন্ন ধরনের ফার্নিচারের চাহিদা। এখানে বায়ারের রুচি ও চাহিদামতো সরবরাহ করতে হবে। আমরা সেদিকেই যাচ্ছি। আশাকরি সরকারের সহযোগিতা পেলে রপ্তাতিতে বড় ধরনের সফলতা দেখাতে পারব। 

খবরের কাগজ: দেশে-বিদেশে ফার্নিচার রপ্তানি বাড়াতে সরকারের কাছে কোন ধরনের নীতি সহায়তা চেয়েছেন? 

ইলিয়াস সরকার: আগামী ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাবে ফার্নিচার খাতে ১০০ ভাগ ব্যাংক গ্যারান্টির আওতায় সমপরিমাণ অর্থের বিপরীতে আংশিক শুল্ক বন্ড সুবিধা প্রদানের বিষয় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। ইতোমধ্যে আমরা রাজস্ব বোর্ডে আমাদের দাবি জানিয়ে আবেদন করেছি। 

খবরের কাগজ: ফার্নিচার শিল্পে কর্মরতদের সক্ষমতা বাড়ানো এখন সময়ে দাবি। এ দায় কিন্তু বেসরকারি খাতেরও আছে। এ বিষয়ে আপনারা কী করছেন? 

ইলিয়াস সরকার: বেসরকারি খাতের দায় থাকলেও সরকারের দায় বেশি। আমরা ইতোমধ্যে সরকারের বিভিন্ন নীতি নির্ধারকের সঙ্গে এ বিষয়ে বৈঠক করছি। এক দিনে হবে না। সময় লাগবে। 


খবরের কাগজ: অভিযোগ আছে ব্র্যান্ডের ফার্নিচারের দাম বেশি। আপনারা উচ্চবিত্তের জন্যই ফার্নিচার বানিয়ে থাকেন। যা সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। এ বিষয়ে আপনার মতামত কী? 

ইলিয়াস হোসেন: আমরা গুণগত মানের ফার্নিচার বানাই। আমাদের পণ্যের চাহিদা আছে বলেই প্রায় সব বিভাগ ও জেলায় ব্র্যান্ডের ফার্নিচারের শোরুম আছে। এসব জায়গায় বিক্রিও হচ্ছে। এ ছাড়া এসব ফার্নিচার দীর্ঘ মেয়াদে ব্যবহার করা যায়। একসময় ব্র্যান্ডের ফার্নিচার উচ্চবিত্তের জন্য ছিল। এখন এ অবস্থার অনেক পরিবর্তন হয়েছে। এখন সবার জন্য ফার্নিচার বানানো হচ্ছে। এ ছাড়া বিভিন্ন মেলাতে তুলনামূলক কম দামে ফার্নিচার বিক্রি করা হয়। ঈদ বা বড় আয়োজন উপলক্ষে ছাড় দিয়ে ফার্নিচার বিক্রি করা হয়। 

খবরের কাগজ: সম্ভাবনাময় এ খাতে নতুন উদ্যোক্তা বাড়াতে আপনারা কী করছেন? 

ইলিয়াস সরকার: নতুন উদ্যোক্তা আসছে। যেহেতু প্রতিকূল পরিবেশেও ফার্নিচারের চাহিদা আছে। তাই নতুন উদ্যোক্তা আসার সম্ভাবনা আছে। বিভিন্ন মেলা আয়োজন করা হচ্ছে। এ ছাড়া এসব মেলাতে ভালো, গুণগতের মানের ফার্নিচার বানানোর জন্য পুরস্কার দেওয়া হয়। এতে পুরোনো প্রতিষ্ঠান ভালো ফার্নিচার বানাতে উৎসাহিত হবে। ভালো পণ্য বানিয়ে সাধারণ মানুষের পছন্দের তালিকায় থাকতে পারলে ব্যবসা বন্ধ করার প্রশ্নই উঠবে না। 

খবরের কাগজ: অনেকে ফার্নিচার খাতের জন্য বন্ড সুবিধার দাবি করেন। এর কারণ কী? 

ইলিয়াস সরকার: ফার্নিচার খাতের জন্য কাঁচামাল আমদানিতে বন্ড সুবিধা প্রয়োজন। এতে বিশ্ববাজারে ফার্নিচারের রপ্তানি বাড়বে। 

খবরের কাগজ: পণ্যের গুণগত মান বাড়াতে আপনার প্রতিষ্ঠান কী করেছে? 

ইলিয়াস সরকার: আমার প্রতিষ্ঠানের সব শাখায় ডেলিভারির (সরবরাহ) ব্যবস্থা আছে। আমরা প্রতিষ্ঠানের পণ্য টেকসই, মানসম্মত ও ক্রেতার পছন্দমতো বানানোর চেষ্টা করি।

সাক্ষাৎকারে এম মনিরুল আলম সরবরাহ কেন্দ্রের সংখ্যা আরও বাড়াতে হবে

প্রকাশ: ১০ মার্চ ২০২৪, ০১:২০ পিএম
সরবরাহ কেন্দ্রের সংখ্যা আরও বাড়াতে হবে
ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আশরাফ আহমেদ

রমজানের বাকি আছে আর দুইদিন। এরই মধ্যে নিত্যপণ্যের দাম আরেক দফা বেড়েছে। বাজারে সরবরাহ আছে। তার পরও দাম কমেনি। দাম নিয়ন্ত্রণে সরকারের উদ্যোগও কাজে আসছে না। রমজানকে সামনে রেখে পণ্যের সরবরাহ পরিস্থিতি, মজুত, দাম, সরকারের ভূমিকা ইত্যাদি নিয়ে খবরের কাগজ কথা বলেছে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আশরাফ আহমেদের সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক এম মনিরুল আলম

খবরের কাগজ:  রমজান সামনে রেখে ৮ নিত্যপণ্য আমদানিতে ডেফার্ড পেমেন্ট বা বাকিতে আমদানির সুবিধা কতখানি কার্যকর হবে?
আশরাফ আহমেদ: আসলে রমজান সামনে রেখে ব্যবসায়ীদের আমদানি পরিকল্পনার অধিকাংশই ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে পরিপালন হয়ে যাওয়ার কথা। কারণ, পণ্য আমদানির সঙ্গে পরিবহন ও বাজারজাতকরণের বিষয় জড়িত। সে জন্য আগাম সময়ও দরকার হয়। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্যোগ অবশ্যই ভালো। তবে এর ফলাফল পেতে পেতে মার্চ ও এপ্রিল পর্যন্ত গড়াবে। কারণ, জানুয়ারিতে দেওয়া ওই সুবিধার আওতায় ঋণপত্র খোলা হলে তা রমজানের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা কঠিন হয়ে পড়বে। 

খবরের কাগজ: পণ্য সরবরাহ ও বাজারমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকারের উদ্যোগ কতটা সফল?
আশরাফ আহমেদ: পণ্য হিসেবে যদি আমরা মূল্যায়ন করি তা হলে চাল সরবরাহে সরকার বেশি গুরুত্ব দেয়। রমজান মাসে যদিও অনেক পণ্য ভোক্তার তালিকায় থাকে, তার পরও চালের চাহিদা প্রায় একই রকম থাকে। একটা সমস্যা ইতিপূর্বে আমরা দেখেছি যে, সরবরাহ ব্যবস্থায় ত্রুটি হওয়ায় কখনো ঢাকায় কম সরবরাহ হয়েছে, আবার অন্য শহরে একটু বেশি হয়েছে। এমন অসম সরবরাহ দুই ক্ষেত্রেই দামে প্রভাব ফেলে। রমজানে ভোগ্যপণ্যের মধ্যে মাছ, মুরগি, সবজি ও ডিমের সরবরাহও একইভাবে গুরুত্বপূর্ণ। এক্ষেত্রে সরকারের সঠিক ব্যবস্থাপনা জরুরি। আমরা আশাবাদী যে, সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে শুরু করে অনেক মন্ত্রী ও আমলা দ্রব্যমূল্য নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজ করছেন।

খবরের কাগজ: সরকার ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কাছে অসহায়! এ ব্যাপারে কিছু বলবেন? 
আশরাফ আহমেদ: সিন্ডিকেট যে আছে তার তো কোনো প্রমাণ বা লক্ষণ দেখতে পাচ্ছি না। এর অস্তিত্ব নিয়ে আমার দ্বিধা-সন্দেহ আছে। এটা কি কাল্পনিক নাকি এর অস্তিত্ব আদৌ আছে- বিষয়টা জানতে ইচ্ছে করে।

খবরের কাগজ: অর্থনীতির বাইরে কোন কারণে দ্রব্যমূল্য বাড়ছে বলে আপনি মনে করেন?
আশরাফ আহমেদ: কারণ অবশ্যই আছে। ঢাকায় ৪০-৫০ বছর পূর্বে যে বাজার অবকাঠামো ছিল সেটাই এখনো আছে। এসব বাজার বা আড়তকে সরবরাহ পয়েন্ট বা সাপ্লাই পয়েন্ট ধরলে তার সংখ্যা বাড়েনি। অর্থাৎ যে মোহাম্মদপুর টাউন হল বা কারওয়ান বাজার বা সোয়ারীঘাট আগে ঢাকা মহানগরীর ৫০ লাখ মানুষের পণ্য সরবরাহ করত, এখন তা ২ কোটি ৫০ লাখ মানুষের চাহিদা পূরণ করে। 

নগরায়ণের পরিকল্পনায় এই গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো বাড়ানোর চিন্তা করা হয়নি। ফলে একই পয়েন্টে আগে আসত ১০০ ট্রাক। এখন আসে ৫০০ ট্রাক। এতে করে ট্রাফিকসহ ও জীবনযাত্রার সব ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। কয়েক দফা চাঁদাবাজি হচ্ছে। আর এর প্রভাব পড়ছে দ্রব্যমূল্যে। এগুলো ভাবতে হবে।

খবরের কাগজ: সরকার জ্বালানির দাম কিছুটা কমিয়েছে। যেহেতু পরিবহনে জ্বালানি ব্যয় একটি বড় বিষয়, এর কোনো প্রভাব বাজারদরে পড়বে কি?
আশরাফ আহমেদ: এটা খুবই ভালো উদ্যোগ। আমি মনে করি এর ইতিবাচক প্রভাব পড়বে বাজারে। কারণ এতে পরিবহন ব্যয় সামান্য হলেও কমবে। 

উৎপাদক ও আমদানিকারক পর্যায় থেকে ভোক্তা পর্যায় পর্যন্ত পরিবহন ব্যয় কমলে দ্রব্যমূল্য কম হবে এটাই স্বাভাবিক। বিশেষ করে চাল, ডাল, আলু, পেঁয়াজ, ভোজ্যতেল, শাকসবজি, মাছ, মাংস ও ডিম পরিবহনে ব্যয় বেশি হয়।

ধরা যাক, এক ট্রাক পণ্য পরিবহনে আগে ২০ হাজার টাকা ভাড়া ছিল। ওই ট্রাকে ১০ মেট্রিক টন পণ্য পরিবহন করা গেলে পণ্যের পরিমাণ হয় ১০ হাজার কেজি। এতে প্রতি কেজি পণ্য পরিবহনে ২ টাকা ভাড়া পড়ত। পথে আরও খরচ আছে। যেটা আমরা সবাই জানি। তা হলে জ্বালানি তেলের দাম প্রতি লিটারে ৪ টাকা কমলে মোট জ্বালানি ব্যয়ে কিছুটা সাশ্রয় হবে। তাতে প্রতি ১০০ লিটার জ্বালানিতে একটি ট্রাকের ব্যয় সাশ্রয় হবে ৪০০ টাকা। ব্যয় হ্রাসের এই অংশ থেকে ব্যবসায়ীরাও লাভবান হবেন। তাই জ্বালানির দাম কমাতে বাজারে নিত্যপণ্যের দামও কমার কথা। এ ছাড়া, সারা দুনিয়াতেই জ্বালানির দাম ওঠানামা করলে সব ধরনের পণ্যের দামে তার প্রভাব পড়ে।

বাধা পেরিয়ে এগিয়ে যেতে হবে নারীদের

প্রকাশ: ০৮ মার্চ ২০২৪, ১১:৫৩ এএম
বাধা পেরিয়ে এগিয়ে যেতে হবে নারীদের
শাহীন আকতার

শাহীন আকতার। চ্যালেঞ্জ নিয়ে মার্লিন ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেল কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন। সফলতার সঙ্গে ব্যবসা করে চলেছেন। তার ব্যবসা এবং এগিয়ে চলা নিয়ে খবরের কাগজ কথা বলেছে শাহীন আকতারের সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ডেপুটি বিজনেস এডিটর ফারজানা লাবনী

খবরের কাগজ: কত দিন আগে ব‍্যবসা শুরু করেন? 
শাহীন আকতার: সাত বছর আগে ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে ব্যবসা শুরু করি।

খবরের কাগজ: শুরুতে কত টাকা পুঁজি ছিল? 
শাহীন আকতার: ৫ লাখ টাকার পুঁজি নিয়ে ব্যবসা শুরু করেছিলাম।

খবরের কাগজ: ব‍্যবসায়ে আসার ক্ষেত্রে কী ধরনের বাধার মুখে পড়েছেন?
শাহীন আকতার: ব্যবসায় আসার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বাধা ছিল প্রচুর টাকা বিনিয়োগ করা, যা আমার মতো চাকরিজীবীর জন্য অসম্ভব। তার পরও মনে সাহস নিয়ে শুরু করেছি, কষ্ট হয়েছে অনেক, এখনো কষ্ট হচ্ছে। কারণ, এই ব্যবসায় টাকাই টাকা আনে, এই ব্যবসায় যত বেশি টাকা বিনিয়োগ করা যাবে, ব্যবসার পরিধি তত বেশি বাড়বে।

খবরের কাগজ: এসব বাধা কীভাবে কাটিয়ে উঠেছেন?
শাহীন আকতার: ব্যবসায় নতুন বাধা আসবেই, সব বাধা অতিক্রম করার ক্ষমতা আল্লাহপাক মানুষকে দেননি। পরিবার-পরিজনের সহযোগিতায় ধীরে ধীরে অর্থনৈতিক বাধা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা এখনো করছি।

খবরের কাগজ: আপনার ব‍্যবসায় অন‍্যতম প্রতিবন্ধকতা কী কী?    
শাহীন আকতার: আমার ব্যবসায় প্রতিবন্ধকতা কম্পিটিটিভ মার্কেট। উন্নত তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে মোবাইল অ্যাপস এবং বিভিন্ন সাইটের মাধ্যমে ঘরে বসেই মানুষ টিকিট, হোটেল ভাড়া করতে পারে, তাহলে কেন আমার মতো ট্রাভেল এজেন্সির কাছে আসবে? ব্যাংকগুলো বিভিন্ন রকম সুযোগ-সুবিধা ও ছাড় দিচ্ছে গ্রাহকদের, সব এখন গ্রাহকদের অনুকূলে, লাভ করার সুযোগ খুব কম, কিন্তু একটা প্রতিষ্ঠানের প্রতি মাসে নির্দিষ্ট কিছু খরচ থাকে, কিছু লাভ যদি না থাকে, তাহলে প্রতিষ্ঠান চলবে কী করে?

খবরের কাগজ: এসব প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে উঠতে কী করছেন?
শাহীন আকতার: এসব প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে উঠতে সর্বোচ্চ মানের সেবা দিতে চেষ্টা করছি। দিন-রাত যেকোনো সময় গ্রাহক আমাদের পাচ্ছে, দিনের ২৪ ঘণ্টা, সপ্তাহের সাত দিনই সেবা দিতে বদ্ধপরিকর। যেকোনো দেশের ভিসা জটিলতা থেকে শুরু করে হোটেল, ট্যুর প্যাকেজ, বিমান টিকিট কম দামে সর্বোচ্চ সেবার নিশ্চয়তা দিয়ে আমাদের পথচলা।

খবরের কাগজ: নতুন নারী উদ‍্যোক্তাদের জন‍্য আপনার পরামর্শ কী?
শাহীন আকতার: নতুনদের জন্য আমার একটাই উপদেশ, বাধা আসবেই। সব বাধা কাটিয়ে উঠে এগিয়ে যেতে হবে। মনোবল শক্ত করে পরিবারের সহযোগিতা নিয়ে যেকোনো পছন্দমতো ব্যবসা শুরু করুন, কঠিন পরিশ্রম করুন। সফলতা আসবেই। কারণ, পরিশ্রম কখনো বৃথা যায় না।

প্রান্তিক নারীদের ক্ষমতায়নে ব্যাংকঋণ দিতে হবে

প্রকাশ: ০৮ মার্চ ২০২৪, ১১:৪৩ এএম
প্রান্তিক নারীদের ক্ষমতায়নে ব্যাংকঋণ দিতে হবে
ওয়াসিকা আয়শা খান

ওয়াসিকা আয়শা খান গত ১ মার্চ অর্থ প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। তিনি বাংলাদেশের প্রথম নারী, যিনি প্রথমবারের মতো অর্থ মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব পেয়েছেন। চট্টগ্রামের এই কৃতী সন্তান জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসন-৩১ থেকে নির্বাচিত হয়েছেন। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে নারীর ক্ষমতায়ন, অগ্রযাত্রায় প্রতিবন্ধকতা, অর্থনীতিতে নারীর অবদান ইত্যাদি বিষয় নিয়ে খবরের কাগজের সঙ্গে খোলামেলা কথা বলেছেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বিজনেস এডিটর আবু কাওসার

খবরের কাগজ: নারীর অগ্রযাত্রায় বর্তমান সরকারের অবদান কতটুকু?
ওয়াসিকা আয়শা খান: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে নারী ক্ষমতায়নের অগ্রদূত। তিনি বাংলাদেশকে সারা বিশ্বে নারীর ক্ষমতায়ন, নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং লিঙ্গ সমতাকরণের এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছেন। তার নিরলস পরিশ্রম, দূরদৃষ্টিসম্পন্ন চিন্তাধারা এবং সময়োপযোগী পদক্ষেপে সবকিছুর মধ্য দিয়েই আজকে বাংলাদেশের নারীরা দৃশ্যমানভাবে প্রতিটি ক্ষেত্রে এগিয়ে এসেছেন। রাষ্ট্র পরিচালনা, আর্থসামাজিক, সাংস্কৃতিক, এমনকি সৃজনশীল সৃষ্টিকর্মের জগতে নারী-পুরুষের সমান অধিকার ও উপস্থিতি বাংলাদেশের সর্বত্র দৃশ্যমান। ব্যবসা-বাণিজ্য, রাজনীতি, প্রশাসন, কূটনীতি, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নারীরা অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে বাঙালিদের শক্তিশালী জাতিতে পরিণত করে তুলছে। জাতিসংঘের বিভিন্ন শান্তিরক্ষা মিশনে সফল অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাঙালি নারীরা তাদের নিজেদের অনুকরণীয় করে তুলছেন। 

খবরের কাগজ: নারীর অগ্রযাত্রায় আপনার দৃষ্টিতে এখনো সীমাবদ্ধতা কোথায়?
ওয়াসিকা আয়শা খান: দেশের চলমান অগ্রযাত্রায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার পাশাপাশি নারী তার পরিবারের সচ্ছলতা আনতে দায়িত্বশীলতার সঙ্গে ইটভাঙা শ্রমিক থেকে শুরু করে হিমালয় চূড়া জয় করা, পোশাকশিল্প, রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে বিভিন্ন দায়িত্বশীল পদে থেকে কাজে অংশগ্রহণ করছেন। পুলিশ, বিজিবি, সামরিক বাহিনীসহ সর্বক্ষেত্রেই নারীর অংশগ্রহণ ও ফলপ্রসূ ভূমিকা এখন দৃশ্যমান। নারী অগ্রসর হলেও কিছু সামাজিক মূল্যবোধ ও দৃষ্টিভঙ্গি নারীকে অধস্তন করে রাখছে। এ কারণে আমাদের মা, মেয়ে ও বোনেরা নতুন নতুন নৃশংস ও নিষ্ঠুর সহিংসতার শিকার হচ্ছেন। আমাদের সামাজিক ঐক্য প্রতিষ্ঠা করে দেশ ও দশের স্বার্থেই সবাই মিলে নারীদের এগিয়ে নিতে কাজ করতে হবে।

খবরের কাগজ: অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রী পর্যায়ে এই প্রথম একজন নারীকে দায়িত্ব দেওয়া হলো। এর কি তাৎপর্য আছে বলে আপনার মনে হয়?
ওয়াসিকা আয়শা খান: গ্রাম কিংবা শহর, সব জায়গায় পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও নিজেদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে শুধু জাতীয় পর্যায়েই নয়, আন্তর্জাতিক পর্যায়েও মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করছে। প্রধানমন্ত্রী আমাকে অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে যে পবিত্র দায়িত্ব অর্পণ করেছেন, তা এরই ধারাবাহিকতা বলে আমি মনে করি। আমি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রথম নারী অর্থ ও পরিকল্পনাবিষয়ক সম্পাদক এবং সংরক্ষিত মহিলা আসন থেকে প্রথম সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি।

খবরের কাগজ: গৃহস্থালিতে নারীর শ্রম জিডিপিতে গণনার বিষয়ে অনেক দিন ধরেই আলোচনা চলছে। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে বিষয়টি নিয়ে আপনার পরিকল্পনা জানতে চাই। 
ওয়াসিকা আয়শা খান: কোনো অর্থনৈতিক লেনদেন এবং ক্ষতিপূরণ পাওয়ার আশা না করেই নারীরা গৃহস্থালি কাজ করে থাকেন। তাদের এই কাজটি উৎপাদনের জাতীয় হিসাব অথবা জাতীয় আয় পরিমাপের পদ্ধতির (এসএনএ) বাইরে থাকে। কিন্তু জাতীয় প্রবৃদ্ধিতে এর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এ ব্যাপারে দিকনির্দেশনা প্রদান করেছেন। অনেক আগে থেকেই গ্রামীণ নারীরা কৃষি খাতে অবদান রাখছেন। অধুনা সেই হার বেড়েছে। বাংলাদেশে মোট কর্মজীবী মানুষের মধ্যে প্রায় ৪৭ দশমিক ৬ শতাংশ লোক কৃষিকাজের সঙ্গে জড়িত। আবার তাদের মধ্যে ৬৪ দশমিক ৮ শতাংশই নারী। তাই গৃহস্থালিতে নারীর শ্রম জিডিপিতে গণনার বিষয়ে যথাযথ পরিকল্পনা গ্রহণ করা যেতে পারে।

খবরের কাগজ: দুর্নীতিমুক্ত অর্থনৈতিক ব্যবস্থা গড়তে আপনি কাজ করবেন বলে এরই মধ্যে জানিয়েছেন; এ ক্ষেত্রে কোনো চ্যালেঞ্জ দেখছেন কী? 
ওয়াসিকা আয়শা খান: বর্তমানে বিশ্বব্যাপী অর্থনীতির দুনিয়ায় এক নীরব সংকট বিরাজমান। উন্নত দেশগুলোতেও মুদ্রাস্ফীতি, বেকারত্বসহ নানা অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতা বিরাজমান। যেকোনো সংকট থেকে মুক্তির ধারাবাহিক ধাপগুলো হলো সংকট চিহ্নিত করা, সংকটের প্রকৃত কারণ উদ্ধার এবং এরপর উত্তরণের পথ বের করা। এর থেকে উত্তরণের একটি পথ বাতলে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। বিশেষ কোনো দল বা গোষ্ঠী লক্ষ্যবস্তু নয়, বরং প্রকৃত সমস্যা চিহ্নিত করে বাস্তবতা ও অর্থনীতির মৌলিক সূত্রের আলোকে এর সমাধান নিয়ে কাজ করাই আমার মূল লক্ষ্য।

খবরের কাগজ: নারীদের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে আরও বেশি যুক্ত করতে আপনার কী পরিকল্পনা রয়েছে?
ওয়াসিকা আয়শা খান: ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে নারীদের ভোগান্তি কমিয়ে ব্যাংকঋণের সহজলভ্যতা ও অন্য সব ক্ষেত্রে তাদের সহজ প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা প্রয়োজন। এ জন্য জেন্ডার ইনক্লুসিভ ফিন্যান্সিয়াল সিস্টেম এবং জেন্ডার লেন্স ইনভেস্টমেন্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। নারী-পুরুষ বৈষম্য নিরসন করে জেন্ডার লেন্স ইনভেস্টমেন্ট সুবিধা প্রান্তিক পর্যায়ে নারীদের কাছে পৌঁছে দিয়ে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে নারীদের সম্পৃক্ততা বাড়ালে সারা দেশ উপকৃত হবে। এ ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলোকে শহরমুখী উদোক্তাদের ঋণ দেওয়ার পাশাপাশি প্রান্তিক নারীদের অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের জন্য গ্রামীণ এলাকায় নারী উদ্যোক্তাদের সময়মতো ঋণ দিতে হবে। বাস্তবসম্মত ও সময়োপযোগী প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে দক্ষতা উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে তাদের বাজারমুখী করার চেষ্টা করতে হবে।

ঋণ দিতে নানা অজুহাত তোলে ব্যাংক

প্রকাশ: ০৭ মার্চ ২০২৪, ১০:২০ এএম
ঋণ দিতে নানা অজুহাত তোলে ব্যাংক
আঞ্জুমান আরা পারভীন

আঞ্জুমান আরা পারভীন (লিপি)। মাঠপর্যায় থেকে উঠে আসা একজন সহাসী ও সফল উদ্যোক্তা। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রি অর্জন করেছেন। চাকরির পেছনে না ঘুরে নিজে কিছু করার চেষ্টা করেন। মাত্র ৫ হাজার টাকা নিয়ে শুরু করে বর্তমানে গড়ে তুলেছেন বড় ফ্যাশন হাউস। তার সঙ্গে কাজ করছেন ৮০০ নারী কর্মী। গড়ে তোলেন রাজশাহী শহরে লিনা ফ্যাশান হাউস নামের শোরুম। আঞ্জুমান আরা পারভীন কীভাবে ব্যবসায়ে আসেন,তার বড় হওয়ার গুল্প, ব্যবসার প্রতিবন্ধকতা,ভবিষ্যৎ পরকিল্পনাসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে খবরের কাগজ কথা বলেছে আঞ্জুমান আরার সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ডেপুটি বিজনেস এডিটর ফারজানা লাবনী

খবরের কাগজ : চাকরি না করে কেন ব্যবসায়ে আসলেন? ২০ বছর থেকে ব্যবসায়ে টিকে থাকার কৌশল কী?  
আঞ্জুমান আরা পারভীন : পারিবারিক প্রয়োজনে ব্যবসা শুরু করি। চাকরি একটা করতাম। পরিবারকে নিজের ইচ্ছে মতো সময় দিতে পারছিলাম না। অন্যের অধীনে চলতে ভালো লাগছিল না। নতুন একটি চাকরি জোগাড় করতে হলেও সময় লাগবে। আর কত দিনে জোগাড় হবে বা জোগাড় হবে কি না তারও অনিশ্চিত। তাই অতি দ্রুত আয় করার জন্য ব্যবসা শুরু করি। এ ছাড়া শিক্ষা জীবন থেকেই কাপড় বানিয়েছি, সেলাই করেছি। এসব প্রায় সবাই পছন্দ কর। এ অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে ব্যবসা শুরু করি। ব্যবসায়ে টিকে থাকার কৌশল হলো ধৈর্য আর পরিশ্রম। সব সময় সৎ থেকেছি। নিজের চেয়ে আমার সঙ্গের কর্মীদের সুবিধা অসুবিধার সমাধানে বেশি গুরুত্ব দিয়েছি। ন্যূনতম লাভে পণ্য বিক্রি করি। গুণগত মানের পণ্য সরবরাহ করি। সবচেয়ে বড় কথা নিজের প্রতি বিশ্বাস রাখতে হবে, পরিশ্রমী হতে হবে এবং কৌশলী হতে হবে। প্রথমে পরিবার থেকেও বাধা পেয়েছিলাম। পরে রাজি হয়েছে। 
  
খবরের কাগজ : কীভাবে ব্যবসায় আসলেন?  
আঞ্জুমান আরা পারভীন: ব্যবসার প্রথমে রাজশাহী শহরের বাইরে পোশাক বানিয়ে দোকানে পাঠিয়ে দিতাম। ক্রেতারা আমার পোশাকগুলো খুব পছন্দ করতো। সহজে বিক্রি হয়ে যেত। এভাবে বিক্রি বাড়তে থাকে। একপর্যায়ে রাজশাহী শহরে পাঠাই। বিক্রি আরও বাড়তে থাকে। লাভ হতে থাকে। নিজেই রাজশাহী শহরে দোকান দিয়েছি। এখানে সব ধরনের পোশাক বিক্রি করা হয়। বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে যোগ দিয়েছি। বিশেষভাবে নারী উদ্যোক্তাদের সংগঠন ওয়েবে যোগদান করি। এসব সংগঠনের সহযোগিতায় এবং নিজের চেষ্টায় বিভিন্ন দেশের মেলাতে অংশ নিয়েছি। বিদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে আমার পণ্য চেয়েছে। আমি সেখানেও পাঠিয়ে থাকি।  

খবরের কাগজ:  বর্তমানে প্রায় ৮০০ নারী আপনার সঙ্গে কাজ করছে। তাতে আপনার কেমন লাগছে। 
আঞ্জুমান আরা পারভীন : আমাকে তারা পোশাক বানিয়ে দেন। পোশাকে নকশা করে দেন। বিনিময়ে তাদের মজুরি দেওয়া হয়। তাদের কাজের সুযোগ করে দিতে পরায় আমি খুবই আনন্দ পাই। 

খবরের কাগজ : নারীদের ব্যবসায়ে আর্থিকসংকট বড় সমস্যা? অর্থায়নে  ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছেন?
আঞ্জুমান আরা পারভীন: ব্যবসার শুরুতেই আর্থিকসংকটে ছিলাম। ব্যাংক ঋণের জন্য বার বার গিয়ে ও পাইনি। নারী হিসেবে অনেক বাধার মুখে পড়েছি। তবে ধৈর্য হারায়নি। ব্যাংক যা চেয়েছে তা জোগাড় করে দিয়েছি। শেষ পর্যন্ত ঋণ নিয়েই ছেড়েছি।  

খবরের কাগজ : ব্যাংক ঋণ পেতে নারীদেরে অন্যতম বাধা কী?  
আঞ্জুমান আরা পারভীন : ঋণ পেতে বিভিন্ন ধরনের কাজগপত্র লাগে। যা নারী উদ্যোক্তাদের থাকে না। ব্যবসার বয়স বাড়লেও অনেকে জানেই না যে ট্রেড লাইসেন্স লাগে। অনেক ব্যাংক মনে করে, নারী ঋণ নিয়ে সময় মতো ফেরত দিতে পারবে না। এটা ব্যাংকের ভুল ধারণা।  

খবরের কাগজ : যেসব নারী ব্যবসায়ে আসতে চান তাদের জন্য আপনার পরামর্শ কী? 
আঞ্জুমান আরা পারভীন : নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বলছি ব্যবসা করতে হলে  বিভিন্ন ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। প্রথম বাধা আসে পরিবার থেকে। বাইরে যেতে দিবে না। ভাইবোন আত্মীয়স্বজন পরিচিতজন, পাড়া-প্রতিবেশী  আজেবাজে কথা বলবে। আমাকেও বলত। পুঁজিরসংকট থাকবে। কেউ টাকা দিতে চাইবে না। এ ধরনের সমস্যা পরিবার থেকেও আসবে। আমারও হয়েছে। বিভিন্ন অজুহাত তুলে ব্যাংক ঋণ দিবে না। ধৈর্য ধরতে হবে। বুদ্ধি আর কৌশল করে এগোতে হবে। নিজের প্রতি বিশ্বাস রাখতে হবে। এটাই শক্তি। সমস্যা সমাধানে কাজ  করে  যেতে হবে। অধিকার আদায়ের জন্য প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করতে হবে।